fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আমফান সহ একাধিক ইস্যুতে রাজ্যকে আক্রমণ অধীরের

কৌশিক অধিকারী, বহরমপুর: আমফান ঘূর্ণিঝড় করোনা সহ রাজ্যে সরকারকে একাধিক ইস্যুতে আক্রমণ শানালেন অধীর চৌধুরী। শুক্রবার বহরমপুরে জেলা কংগ্রেস কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠকে অধীর চৌধুরী রাজ্যকে আক্রমণ করে বলেন, কলকাতাতে দিদি কারোর কথা শুনবেন না। দিদি তিনদিন পর সেনা ডাকলেন, দিদি আরও সেনা নামাতে পারতেন। ওড়িশা সুপার সাইক্লোনে অতি তৎপরতার সঙ্গে কাজ করল। আমাদের রাজ্য এত ঝড় এলেও কোনও প্রস্তুতি নেয়নি। পশ্চিমবঙ্গে সেচ দফতর মানেই টাকা মাটি মাটি টাকা। আবার ঝড় আসবে আর তৃণমূলের পকেট ভরবে। কলকাতা মতো জায়গায় সাত দিন ধরে বিদ্যুৎ নেই, মুখ্যমন্ত্রী খাতির করছেন সিএসসিকে। সিএসসিকে আধুনিকীকরণ হয়নি, কর্মী সংখ্যা বৃদ্ধি হয়নি।

রাজ্যের মন্ত্রী সাধন পান্ডের হিম্মত আছে। তৃণমূলের নেতা ও মন্ত্রীদের সাধন পান্ডেকে দেখে অনুসরণ করা উচিত। সাধন পান্ডে যেমন বলেছেন তেমন সবাইকে বলতে হবে বোবা হয়ে থাকলে মানুষ ক্ষমা করবেন না বলে মন্তব্য করেন অধীর চৌধুরী।

পশ্চিমবঙ্গে যত বেশি সংখ্যক করোনা টেস্ট হবে তত মৃত্যু হার কমবে। পশ্চিমবঙ্গে সরকার টেস্ট করার রাস্তা হাঁটছেন না। করোনা সংক্রমিত কোথায় পৌঁছেছে তা প্রকাশ করা হচ্ছে না। আরও বেশি সংখ্যক টেস্ট করা দরকার। দেশের সবকটা রাজ্য মধ্যে পশ্চিমবঙ্গ অন্যতম রাজ্যে কোভিড সংক্রমণ বেশি এই রাজ্যে। প্রথম দিন থেকে ছেলে খেলা করেছে রাজ্য সরকার। একাধিক আধিকারিক কে সরানো হয়েছে, সব কিছু ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যর মানুষের সতর্কতা অবলম্বন করা দরকার। সাধারণ মানুষের কাছে হাত জোর করে লকডাউন সফল করার জন্য আহ্বান করেন অধীর চৌধুরী।

অন্যদিকে পরিযায়ী শ্রমিক ইস্যুতে বলেন, পরিযায়ী শ্রমিকরা ভিলেন বা দৈত্য নয়। আজকে দেশের বাইরে যারা আছে তাদেরকে কেন্দ্র সরকার নিয়ে আসছেন। কিন্তু রাজ্যের বাইরে যারা আছে তাদেরকে বাড়ি নিয়ে আসার দায়িত্ব রাজ্য সরকারের। কেন্দ্রকে রাজি করানো হয়েছিল যেখানে শ্রমিকরা আটকে ছিলেন তাদের কে ফিরিয়ে আনা জন্য। কিন্তু দিদি নিয়ে আসতে চাননি।

Related Articles

Back to top button
Close