fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

জগন্নাথ সরকারকে খুনের চেষ্টা তৃণমূল দুষ্কৃতীদের, কল্যাণী থানায় অভিযোগ দায়ের স্বয়ং বিজেপি সাংসদের

অভিষেক আচার্য, কল্যাণী: লোকসভার বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকারকে খুনের চেষ্টা করা হয়েছে। স্বয়ং থানায় গিয়ে এমনটাই অভিযোগ দায়ের করলেন তিনি।  কল্যাণী থানায় এই অভিযোগ দায়ের করেন রানাঘাটের বিধায়ক নিজে। জগন্নাথ সরকার বলেন, “এদিন কল্যাণী গয়েশপুর এলাকায় বিজয় শীলের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। সন্ধ্যেবেলা বিজয়ের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে গেলে সেই সময় তৃণমূলের কয়েকজন দুষ্কৃতী আমার ওপর চড়াও হয়। লোহার রড দিয়ে মারার চেষ্টা করা হয় আমাকে।” কিন্তু তিনি মাথা সরিয়ে নেন। ফলে সেই রডের আঘাতে আহত হন তাঁর এক কর্মী। এমনটাই জানালেন তিনি। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে নীলু বক্সী ও বাপি চ্যাটার্জির নামে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি। এই বিষয়ে বিধায়ক আরও বলেন, “যে রাজ্যে সাংসদ আক্রান্ত হন, সেই রাজ্যে গণতন্ত্র বলে কিছু নেই।”

উল্লেখ্য, রবিবার সকাল থেকেই উত্তপ্ত নদীয়ার গয়েশপুর। এদিন গয়েশপুরের ২৩০ নম্বর বুথের বাসিন্দা বিজয় শীলের ঝুলন্ত দেহ পাওয়া যায় গয়েশপুর শ্মশানের পাশে একটি আমবাগানে। এই মৃত্যুকে ঘিরে উত্তাল রাজ্য রাজনীতি। মৃতের পরিবারের দাবি, বিজয় কোনও রাজনৈতিক দলের সদস্য নয়। আবার তৃণমূলের তরফ থেকে দাবি করা হয় বিজয় শীল তাদের দলের কর্মী। বিজয়ের মৃত্যুর প্রতিবাদে সোমবার কল্যাণী বিধানসভায় ১২ ঘন্টার বনধ ডেকেছে বিজেপি।

এদিন সেই বনধকে সফল করার উদ্যেশ্যে কল্যানী সেন্ট্রাল পার্কের শ্যামাপ্রসাদ ভবন থেকে একটি ধিক্কার মিছিলও বের করে কল্যানীর বিজেপি নেতৃত্বরা। পাশাপাশি, সাংসদ জগন্নাথ সরকারের ওপর হামলার প্রতিবাদে কল্যাণী থানায় বিক্ষোভ দেখাচ্ছে গেরুয়া শিবির। যদিও সাংসদের ওপর হামলার ঘটনা পুরোপুরি অস্বীকার করেছে তৃণমূল। সাংসদ নিগ্রহের সঙ্গে তৃণমূলের যোগ নেই বলে জানিয়েছে শাসক দল।

Related Articles

Back to top button
Close