fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ভেষজ ঔষধ ও ব্যায়ামের মাধ্যমে হবে চিকিৎসা, ঝাড়গ্রামে খুলল ‘আয়ুষ কেন্দ্র’

তারক হরি, পশ্চিম মেদিনীপুর: মানুষকে সুস্থ রাখতে নয়া উদ্যোগ নিয়েছে আয়ুষ বিভাগ। বর্তমানে প্রতিটি জেলায় একটি করে আয়ুষ কেন্দ্র গড়ে তুলতে চলেছে আয়ুষ বিভাগ। সেখানে থাকে প্রশিক্ষিত চিকিৎসক। তাদের তত্ববধানে রোগ নিরাময়ের করা জন্য যোগব্যায়ামের ব্যবস্থা করা হবে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দেশবাসীকে শরীর সুস্থ রাখার জন্য যোগব্যায়মের পরামর্শ দিয়েছিলেন। সেই পদ্ধতিতে এই সমস্ত কেন্দ্রগুলিতে রোগ নিরাময়ের ব্যবস্থা করা হবে বলে জানানো হয়েছে।

ভেষজ গাছপালা দ্বারা তৈরি ওষুধ দেওয়া হবে। থাকবে প্যাথলজিক্যাল পরীক্ষার ব্যবস্থা। ডায়াবেটিস, আর্থারাইটিস, উচ্চরক্তচাপ, শ্বাসকষ্টে আক্রান্তের রোগীদের নির্দিষ্ট যোগ ব্যায়াম ও ভেষজ ওষুধের মাধ্যম রোগ নিয়ন্ত্রণে আনা হবে। এছাড়া দুরারোগ্য লিভার ব্যধিও সারিয়ে তোলা হবে।

        আরও পড়ুন: ফের কাঠগড়ায় দিল্লি, মন্দিরে ভবঘুরের ধর্ষণের শিকার এক শিশুকন্যা

বৃহস্পতিবার ঝাড়গ্রামে এমনই একটি আয়ুষকেন্দ্র গড়ে তোলা হয়েছে। সেখানে যোগ ব্যায়াম কেন্দ্র গড়ে তোলা হয়েছে। ভেষজ ওষুধ তৈরির জন্য গড়ে তোলা হয়েছে একটি বাগান। ১৬ ধরনের ভেষজগুণাবলি সপন্ন গাছ লাগানো হয়েছে। নিম, আমলকি, বাসক, তুলসী, নিশিন্দা, থানকুন, ভুঁইআমলা, গুলঞ্চ, ঘৃতকুমারী প্রভৃতি গাছ রয়েছে। এছাড়া এই সমস্ত গাছে গুণাবলী বুঝিয়ে তাদের বাড়িতে এমন বাগান তৈরি করা পরামর্শ দেওয়া হবে এই কেন্দ্রে।

সেখানকার কর্মকর্তা ও চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, অত্যাধুনিক গবেষণা আয়ুর্বেদের প্রাচীন চিন্তাধারার সংমিশ্রণে ‘ আয়ুর জিনোমিক্স ‘ নামক এক নতুন ধারণা সৃষ্টি হয়েছে। সেখানে প্রতিটি মানুষের শারীরিক ও মানসিক ও শারীর বৃত্তীয় বৈশিষ্ট্য নির্ধারণ করা হয়। তাদের নিদির্ষ্ট খাদ্যাভ্যাস ও জীবন চর্চায় মাধ্যমে অনেক রোগ মুক্তি হতে পারে। সেগুলি এই সমস্ত কেন্দ্রে চর্চা করা হবে। এর মাধ্যমে চিকিৎসা করা হবে। তাতে চিকিৎসা বিজ্ঞানে এক নতুন বিপ্লব আনবে বলে মত প্রকাশ করেছেন চিকিৎসক মহলের একাংশ।

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close