fbpx
কলকাতাহেডলাইন

একুশের লক্ষ্যে ১ কোটি মানুষকে অমিত ভাষণ শোনাতে চায় বঙ্গ বিজেপি

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: মঙ্গলবার প্রথম ভার্চুয়াল জনসভায় একুশের মহারণের শঙ্খধ্বনি করবেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ। ঘরে বসে ১ কোটি মানুষ শুনবেন সেই ভাষণ। বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা ও রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ দুজনেই জানালেন, ভার্চুয়াল মাধ্যমে রাজ্যের ৭০ হাজার বুথে সরাসরি এই ভাষণ সম্প্রচার হবে। সভা শুরু সকাল ১১ টায়। দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘ করোনা মোকাবিলায় গোটা বিশ্বকে পথ দেখাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। আর এই নতুন মাধ্যমে কিভাবে জনসমাবেশ করা যায় দেখাবে আমাদের দল। এর আগে কখনও এতো মানুষ এই মাধ্যমে ভাষণ শোনেন নি।আর এই আয়োজনের মাধ্যমে আমরা একটা বিশ্বরেকর্ড করতে চাই।’

দলের কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা বলেন,’শুধু বাংলা নয় বাইরের রাজ্যগুলোতে যেসব প্রবাসী বাঙালী রয়েছেন তাঁরাও এই সম্প্রচার দেখতে পাবেন। এমনকি দেশের বাইরে আমেরিকা, কানাডা, ইংল্যান্ড-এর সঙ্গেও লিঙ্ক সংযুক্তিকরণ হচ্ছে। যাতে অনাবাসী ভারতীয়রা অমিতজির ভাষণ শুনতে পারেন।’

একুশের মহারণের আগে বাংলার বিজেপি কর্মীদের কি বলতে পারেন দলের প্রাক্তন সর্বভারতীয় সভাপতি? রাজধানীসূত্রে খবর, অমিত শাহের তূণে যে অস্ত্র গুলো থাকতে পারে তা হলো- কেন্দ্র এখনও পর্যন্ত রাজ্যকে কি কি খাতে কত টাকা দিয়েছে, রাজ্য সেই বরাদ্দ কতটা কাজে লাগাতে পেরেছে, করোনা, আমফান মোকাবিলায় রাজ্যের ব্যর্থতা, রেশন দুর্নীতি। পরিযায়ী শ্রমিকদের নিয়ে রাজ্যের নীতি নিয়েও সরব হতে পারেন। একই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী গরিব কল্যাণ যোজনাসহ একাধিক জনকল্যাণ মূলক প্রকল্পের কথা বাংলার মানুষের কাছে তুলে ধরতে পারেন অমিত। পাশাপাশি আমফানে ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে পাশে দাঁড়ানোর বার্তাও দিতে পারেন ।

আরও পড়ুন: আক্রান্ত বিজেপি নেতা সব্যসাচী দত্ত, দলীয় কর্মীর বাড়িতে ঢোকার মুখে ‘গো ব্যাক’ স্লোগান

কি প্রযুক্তিতে হবে এই জনসভা? রাজ্য বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, ‘ ওয়েবেক্স মিট’ অ্যাপের মাধ্যমে হবে এই জনসভা। দিল্লিতে কেন্দ্রীয় অফিসে থাকবে একটি মঞ্চ আর কলকাতায় রাজ্য সদর দফতরে থাকবে একটি মঞ্চ। দুই মঞ্চে থাকবেন দুই বক্তা অমিত শাহ ও দিলীপ ঘোষ। এই অ্যাপের মাধ্যমে ১০০০ মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়। রাজ্য বিজেপি ১০০০ কর্মী, নেতা বেছে নিয়েছে। মঙ্গলবার সভা শুরুর ১৫ মিনিট আগে লিঙ্ক পৌঁছে যাবে তাঁদের কাছে। সেই লিঙ্ক ব্যবহার করে সভায় যোগ দিতে পারবেন, প্রশ্ন করতে পারবেন তাঁরা। ফেসবুক, ইউটিউব, দেখা যাবে বিজেপির অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ‘bjp for bengal’এ। এছাড়া বিভিন্ন সংবাদ ঢ্যানেলেও সরাসরি সম্প্রচার হবে। ‘রাজনৈতিকও জনসংযোগে প্রযুক্তির ব্যবহার করে অন্য দলগুলোর তুলনায় কয়েক কদম এগিয়ে বিজেপি। যার সূচনা করেছিলেন প্রয়াত নেতা প্রমোদ মহাজন। আর পেশাদারিত্বের সেই নমুনা মঙ্গলবার দেখবে বাংলা।

Related Articles

Back to top button
Close