fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আসানসোলের বারাবনিতে রাস্তায় ধস, আতঙ্কিত এলাকাবাসী

শুভেন্দু বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল: ধস নামার ঘটনা ঘটলে আসানসোলের বারাবনিতে। গ্রামের পাকা রাস্তা সেই ধসের জেরে ফেটে যায়। মাটির নিচে বসে যায় রাস্তা সহ এলাকার বিস্তির্ণ ফাঁকা জমি। মঙ্গলবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে বারাবনি ব্লকের পানুরিয়া পঞ্চায়েতের দীঘল পাহাড়ি গ্রামে। এই ধসের ঘটনায় জেরে গ্রামে যাতায়াতের মূল রাস্তাটি বন্ধ হয়ে যায়। বুধবার সকালে ধসের কথা জানা যায়। এই ঘটনার জেরে স্থানীয় ভূঁইয়্যাপাড়া ও আদিবাসী পাড়ার বাসিন্দারা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন, দীঘল পাহাড়ি গ্রামের সামনে রয়েছে ইসিএলের পরিত্যক্ত খয়রাবাদ কোলিয়ারি।

বহু বছর আগে ইসিএল এই কোলিয়ারি বন্ধ করে দিয়েছে। সেখানে এখন কোন কয়লা উত্তোলনের কাজ হয়না। ভূগর্ভস্থ খনিতে আগুল লেগে থাকার কারণে বন্ধ রয়েছে এই কোলিয়ারিটি বলে জানা যায় । গ্রামবাসীদের তরফে অরূপ মণ্ডল, সুশান্ত রায়, পলাশ বাউরি বলেন, এইরকম ধস নামলে আমাদের গ্রামও কোনদিন মাটির তলায় চলে যেতে পারে । খনিগর্ভে এমনিতেই আগুন রয়েছে। ধস নামলে একেবারে সব জ্বলে পুড়ে শেষ হয়ে যাবে বলে তারা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন । ধসের কারণে ফাটল ধরে রাস্তাটির যা অবস্থা হয়েছে, তা দিয়ে এখন আর যাতায়াত করাও সম্ভব নয়।

পশ্চিম বর্ধমান জেলা পরিষদের সদস্য তথা বারাবনি তৃণমূল ব্লক সভাপতি অসিত সিং বলেন, ইসিএলের গাফিলতিতেই এলাকায় ধস নেমেছে। তাদেরই ধস কবলিত এলাকায় ডোজিং এর ব্যবস্থা করতে হবে। তিনি আরো বলেন, বাজার যাওয়া থেকে অসুস্থ ব্যক্তিকে নিয়ে যাওয়ার সহ অন্য কাজের জন্য গ্রামের এই একটাই রাস্তা রয়েছে। এই রাস্তাটি পঞ্চায়েত থেকে পাকা করে দেওয়া হয়েছিল। এখন ধসের কারণে তা ভেঙ্গে গেল।

তিনি আরো বলেন, আমরা ইসিএল কর্তৃপক্ষের কাছে দাবি জানাবো রাস্তাটি মেরামতির জন্য দাবি জানাবো। পাশাপাশি এলাকার বাসিন্দাদের অস্থায়ী পুনর্বাসনের কথাও বলবো। অন্যদিকে, ইসিএলের সালানপুর এরিয়া কর্তৃপক্ষের দাবি, ওই কোলিয়ারি এলাকায় ব্রিটিশ কোল কোম্পানি আমলে কয়লা খনন হয়েছিলো। অবৈজ্ঞানিকভাবে তা হওয়ায় খনিগর্ভে আগুন রয়েছে। ইসিএল সেখানে কয়লা তোলে না। তবু ধস কবলিত এলাকা ভরাট করে দেওয়া হবে।

Related Articles

Back to top button
Close