fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ব্যারাকপুরের বিখ্যাত বেসরকারি হাসপাতালে একসঙ্গে করোনায় আক্রান্ত ৮ চিকিৎসা কর্মী

অলোক কুমার ঘোষ, উত্তর ২৪ পরগনা: উত্তর ২৪ পরগনার ব্যারাকপুরে শিল্পাঞ্চলে করোনা আক্রান্ত রোগীদের সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরার সংখ্যা যেমন বেড়েছে তার পাশাপাশি ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলে ক্রমশ বাড়ছে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যাও। এবার উত্তর ২৪ পরগনার ব্যারাকপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হলেন ৮ জন চিকিৎসাকর্মী । শুক্রবার সকালে এই খবর প্রকাশ্যে আসতেই প্রশাসনের নির্দেশে বন্ধ করে দেওয়া হল ব্যারাকপুরের ওই বিখ্যাত ওই বেসরকারি হাসপাতাল ।

ব্যারাকপুরের বিখ্যাত ওই বেসরকারি হাসপাতালের এক সেবিকা সম্প্রতি করোনায় আক্রান্ত হন । তিনি ওই বেসরকারি হাসপাতালের ডায়ালেসিস বিভাগে কর্মরত ছিলেন। তার বাড়ি টিটাগড় পুরসভার ২০ নম্বর ওয়ার্ডে । জানা গেছে, পানিহাটির করোনা আক্রান্ত এক রোগীর কয়েকদিন আগে ডায়ালেসিস হয়েছিল ব্যারাকপুরের ওই বেসরকারি হাসপাতালে । ওই রোগীর ডায়ালেসিস করার সময় তার করোনা পরীক্ষা হয় নি ।

পরে তার করোনা পরীক্ষা হলে জানা যায় ওই রোগী করোনা আক্রান্ত ছিলেন । এরপর ওই বেসরকারি হাসপাতালের ডায়ালেসিস বিভাগের ৩২ জনকে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয় । তাদের প্রত্যেকের করোনা পরীক্ষা করা হয়, তাতে ৮ জনের করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে বৃহস্পতিবার রাতে ।

একসঙ্গে ওই বেসরকারি হাসপাতালের ৮ চিকিৎসা কর্মী করোনা পজিটিভ হওয়ায় ঘুম উড়েছে বিএনপির। শুক্রবার বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই প্রশাসনের পক্ষ ওই হাসপাতালের আই সি ইউ বিভাগ বাদ দিয়ে অন্য সব বিভাগ বন্ধ করে দেওয়া হয় । এই ঘটনায় ব্যপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে ব্যারাকপুর শহরে । যে আটজন নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন তাদের বাড়ি জানা গেছে কল্যাণী, ভাটপাড়া, খড়দহ, পানিহাটি, ব্যারাকপুর প্রভৃতি এলাকায়।
এই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে নিয়ে টিটাগড় পুরসভার পুরপ্রধান প্রশান্ত চৌধুরী বলেন, ” ওই হাসপাতালের উপর প্রথম থেকেই একটা সন্দেহ ছিল। প্রথম যে করোনা আক্রান্ত হয় পুরসভার ২০ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা ।
যারা আক্রান্ত হল তাদের করোনা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে । ওই বেসরকারি হাসপাতালটি অনির্দিষ্ট কালের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। পুরসভার পক্ষ থেকে ওই বেসরকারি হাসপাতালটি সম্পূর্ণ জীবাণুমুক্ত করা হবে । তারপর ফের চালু করার কথা ভাবা হবে । এদিকে এই ঘটনায় হাসপাতালের আই সি ইউ তে আটকে পড়া রোগীর আত্মীয়দের অনুরোধ করা হয়েছে যাতে তারা তাদের রোগীদের এই হাসপাতাল থেকে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যায়।

Related Articles

Back to top button
Close