fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

রণক্ষেত্র চোপড়া! বিজেপি নেতার ভাইঝিকে ধর্ষণ করে খুন! অভিযুক্ত তৃণমূল

দীপঙ্কর দে, ইসলামপুর: রাজনৈতিক আক্রোশে বিজেপির বুথ সভাপতির ভাইঝিকে গণধর্ষণ করে খুনের অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। এর জেরে রবিবার দফায় দফায় সংঘর্ষের চেহারা নিল উত্তর দিনাজপুরের চোপড়া এলাকা। জনরোষের মুখে পড়ে পুলিশও।
সূত্রের খবর, এদিন ভোররাতে চোপড়া থানার সোনাপুর গ্রাম পঞ্চায়তের চোতরাগঞ্জ এলাকার বাসিন্দা ওই মাধ্যমিক উত্তীর্ণ ছাত্রীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে গণধর্ষণের পর মুখে বিষ ঢেলে দুষ্কৃতীরা পালিয়ে যায় বলে অভিযোগ পরিবারের। ভোরে বাড়ির লোক মেয়েকে দেখতে না পেয়ে খোঁজ শুরু করেন এবং মাঠ তাকে উদ্ধার করেন। নির্যাতিতাকে চোপড়ার দলুয়া প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখান থেকে সংকটজনক অবস্থায় তাকে ইসলামপুর মহকুমা হাসপাতালে পাঠানো হয়। কিন্তু সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে অভিযুক্তের মোবাইল ফোন, সাইকেল ও ছাতা উদ্ধার হয়েছে বলে দাবি নাবালিকার পরিবারের।

এদিকে ঘটনার পর দুষ্কৃতীদের গ্রেফতারের দাবিতে ক্ষুব্ধ জনতা ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ বিক্ষোভ করেন। এই বিক্ষোভ চলে প্রায় ৬ ঘন্টা ধরে। খবর পেয়ে পরিস্থিতি সামাল দিতে ইসলামপুর পুলিশ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কার্তিকচন্দ্র মন্ডলের নেতৃত্বে বিশাল পুলিশ বাহিনী ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি সামগ্রিক অবনতি ও মেয়েদের নিরাপত্তাহীনতার অভিযোগে পুলিশের সঙ্গে জনতার বচসা বাধে। হাতাহাতি হয় বলেও অভিযোগ।

আরও পড়ুন:হাইকোর্টের দরজায় বসছে অটো স্যানিটাইজার গেট, অনুমতির অপেক্ষা 

পুলিশের অভিযোগ, বিক্ষোভকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট ছোড়ে। পাল্টা লাঠিচার্জের অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে।
এমনকী, বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ টিয়ার গ্যাস ও রাবার বুলেট ছোড়ে বলেও অভিযোগ। পুলিশ-জনতা খণ্ডযুদ্ধের মাঝেই জনরোষে পাঁচটি সরকারি বাস ও তিনটি পুলিশ ভ্যান পুড়েছে। ভাঙচুর চলেছে দুটি সরকারি বাস ও দুটি পুলিশ ভ্যানে। দুপুর তিনটে থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দফায় দফায় চলা এই খণ্ডযুদ্ধে পুলিশকে লক্ষ্য করে তির ছোড়ার অভিযোগও ওঠে। অন্যদিকে, পুলিশ রাস্তায় পড়ে থাকা বেশ কয়েকটি বাইকে ভাঙচুর করেছে এবং স্থানীয়দের দোকানপাঠ ও বাড়িতে ভাঙচুর চালিয়েছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

এদিকে এই ঘটনার জেরে উত্তর দিনাজপুর জেলা জুড়ে জাতীয় সড়ক ও রাজ্য সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেন জেলা বিজেপি সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ী। জেলাজুড়ে অবরোধ বিক্ষোভ কর্মসূচিতে শামিল হন রাজ্য বিজেপি নেতৃত্ব।

ইসলামপুরে বিজেপির জেলা সহ সভাপতি সুরজিৎ সেনের নেতৃত্বে অবরোধ বিক্ষোভে শামিল হন রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়।

নির্যাতিতার দাদা বলেন, ‘আমার বোনকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে গণধর্ষণ করে বিষ খাইয়ে মারা হয়েছে’।
বিজেপির জেলা সহ সভাপতি সুরজিৎ সেন বলেন, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ধর্ষণে ক্ষতিপূরণের ঘোষণার পর থেকেই রাজ্যজুড়ে বেছে বেছে বিজেপি পরিবারের মহিলা নাবালিকাকে ধর্ষণ করে খুন করছে তৃণমূল আশ্রিত গুন্ডারা।

বিজেপির রাজ্য সাধারণ সম্পাদক রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘উত্তরবঙ্গে রাজবংশী সম্প্রদায় ভোট দিয়ে বিজেপিকে জিতিয়েছে। তাই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজবংশী সম্প্রদায়ের উপর অত্যাচার করছে। আজকে উত্তর দিনাজপুরে প্রতিবাদ হয়েছে। আগামীতে রাজ্যজুড়ে প্রতিবাদ হবে’।

যদিও এই বিষয়ে তৃণমূলের জেলা সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল বলেন, দোষীরা অবশ্যই গ্রেফতার হবে। তবে এই ঘটনায় রাজনৈতিক রং চড়ানো ঠিক নয়।

আরও পড়ুন:পাইলটকে চাপে ফেলতে আস্থাভোটের রাস্তায় গেহলট

ইসলামপুরের পুলিশ সুপার শচীন মক্কর বলেন, ‘পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করা হচ্ছে। এর বেশি কিছু বলা সম্ভব নয়’।
অন্যদিকে, এই ঘটনায় রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে তীব্র ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন বঙ্গ বিজেপি নেতৃত্ব। রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘নিলর্জ্জ সরকার। রাজ্যে নিরাপত্তা বলে কিছু নেই। প্রতিদিনই কোথাও না কোথাও খুন-খারাপি চলছে। ক্ষমতায় থাকার নৈতিক অধিকার হারিয়েছন মুখ্যমন্ত্রী’।

বঙ্গ বিজেপির মহিলার মোর্চার সভানেত্রী অগ্নিমিত্রা পল বলেন, ‘অভিযুক্তদের ফাঁসি চাই। নইলে এর শেষ দেখে ছাড়ব’।
অন্যদিকে, বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা বলেন, ‘নারী নিগ্রহে পশ্চিমবঙ্গ একনজরে। দিদির রাজ্যে সুরক্ষা বলে কিছু নেই’.

Related Articles

Back to top button
Close