fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

রাখি পরানোর আগেই নিভে গেল ছোট্ট দীপান্বিতার দীপশিখা

সুভাষ চন্দ্র দাশ, ক্যানিং: জলে ডুবে মৃত্যু হল এক বছর চারেকের ছোট্ট ক্ষুঁদে শিশু কন্যার। মৃতের নাম দীপান্বিতা সরদার। ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার সকালে ক্যানিংয়ের নিকারীঘাটা গ্রাম পঞ্চায়েতের পরাণিখেকো গ্রামে। ঘটনায় রাখি পূর্ণিমার আনন্দ উৎসবের পরিবর্তে গ্রামে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

উল্লেখ্য, দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার ক্যানিংয়ের নিকারীঘাটা গ্রাম পঞ্চায়েতের পরাণিখেকো গ্রাম। সেখানেই দুই মেয়ে আর স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করেন দীনমজুর চাষি সাধন সরদার। বর্তমানে করোনা আর লকডাউনে কাজকর্ম হারিয়ে বাড়িতে রয়েছেন। সোমবার রাখি পুর্ণিমা কথা জানতে পেরে সাধন আর সাগরিকার দুই মেয়ে বায়না করেছিল রাখি পূর্ণিমার দিন একে অপর কে রাখি পরারে। নুন আনতে যাঁদের পান্তা ফুরায়, তারপর করোনা আর আমফানের দাপটে জর্জরিত। তাদের আবার বিলাসিতা! তবুও দুই মেয়ের জন্য রাখি তৈরি করবেন বলে সোমবার সকালে বাগান থেকে ফুল তুলে রেখে ছিলেন সাধনের স্ত্রী সাগরিকা।

মধুমিতা আর দীপান্বিতা সরদার দুই বোন।এদিন সকালে খেলাধূলা করে রাখি পরানোর আগেই দুইবোন পান্তাভাত খেয়ে নেয়। স্নান করে একে অপরের হাতে রাখি বাঁধবে। মধুমিতা পান্তাভাত খেতে থাকলেও দীপান্বিতা পান্তা খেয়ে হাত ধোওয়ার জন্য বাড়ির সকলের অগোচরে পুকুরে চলে যায়। পুকুরে হাত ধুতে গিয়ে জলে পড়ে গিয়ে তলিয়ে যায়। এদিকে দীর্ঘক্ষণ ছোট মেয়ে কে না পেয়ে বাড়ির আশেপাশে এবং পাড়ায় খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। অগত্যা শেষ পর্যন্ত ছোট্ট শিশুর ঠাকুর্দা পুকুরে নামেন। ভেসে ওঠে দীপান্বিতা।মুহূর্তে পুকুর থেকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা শিশুটিকে মৃত বলে জানিয়ে দেয়। মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হতে গ্রামে নেমে আসে শোকের ছায়া।

দীপান্বিতার মা সাগরিকা সরদার মেয়ে নিথর দেহের সামনে অঝোরে কেঁদে চলেছেন। অন্যদিকে পাড়া-প্রতিবেশীদের কথায়, “দীপান্বিতা ওর দিদিকে রাখি পরাবে বলেছিল রাখি না পরিয়ে অকালে নিভে গেল ছোট্ট দীপান্বিতার দীপশিখা এ এক মর্মান্তিক ঘটনা।

Related Articles

Back to top button
Close