fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বিধানসভা নির্বাচনের আগে জেলা মহিলা মোর্চার মহামিছিলের উদ্যোগ তমলুক শহরে

বাবলু বন্দোপাধ্যায়, কোলাঘাট:  বছর ঘুরলেই বিধানসভা ভোট।এক ইঞ্চি জপমি ছাড়তে নারাজ রাজনৈতিক দলগুলো। রাজনৈতিক তৎপরতা ইতিমধ্যে শুরু করে দিয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি। মূল দলের গণসংগঠন গুলিও এখন থেকেই কোমর বেঁধে নেমে পড়েছে ময়দানে। ২৪শে নভেম্বর তমলুক জেলা মহিলা মোর্চার উদ্যোগে মহামিছিলে রেকর্ড সংখ্যক জমায়েত করে জানান দিতে চাইছে মহিলারা এখনো নানা ক্ষেত্রে অবহেলিত, শোষিত, নির্যাতিত। এই মহামিছিলে রাজ্য সভানেত্রী অগ্নিমিত্রা পল সহ রাজ্য নেতৃত্বরা উপস্থিত থাকবেন বলে  জানা গেছে।

মহামিছিলকে সামনে রেখে এখন চলছে জোর প্রস্তুতি। একপ্রকার প্রস্তুতি শেষ বলে জানালেন তমলুক জেলা মহিলা মোর্চার সভানেত্রী শ্যামলী সিংহ।  মহামিছিলকে  সার্থক রূপ দেওয়ার জন্য  তমলুকে এক প্রস্তুতি সভার আয়োজন করা হয়েছিল। প্রস্তুতি বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে ওই দিনের কর্মসূচিতে জমায়েত করার ক্ষেত্রে কোন খামতি না থাকে। তমলুক সাংগঠনিক জেলার  মধ্যে  কোলাঘাট ,পাঁশকুড়া ,তমলুক, চন্ডিপুর, নন্দকুমার, মহিষাদল, নন্দীগ্রাম ,হলদিয়া ,ময়না বিধানসভা।  প্রতিটি বিধানসভা এলাকায়  ইতিমধ্যে মহিলারা প্রচারে নেমে পড়েছে। জমায়েতে স্থান নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে তমলুকের মানিকতলা মোড়ে। ওই স্থান থেকে মিছিল  পূর্ব মেদিনীপুর জেলার জেলাশাসক  বিভু গোয়েলের কাছে যাবে। প্রস্তুতি বৈঠকে তমলুক জেলা সংগঠনিক বিজেপির সভাপতি নবারুণ নায়েক,সাধারণ সম্পাদক নারায়ণ চন্দ্র মাইতি,সাহেব দাস,পুলক কান্তি গুড়িয়া, মহিলা মোর্চার সভানেত্রী শ্যামলী সিংহ সহ জেলা স্তরের নেতৃত্বরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন: সঞ্চিত অর্থ শেষ, পেটে ভাত নেই…ব্যবসা পুনরায় চালুর দাবিতে স্টেশনে বিক্ষোভ হকারদের

জেলা সভাপতি নবারুণ নায়েক ও মহিলা মোর্চার জেলা সভানেত্রী শ্যামলী সিংহ বলেন দিকে দিকে  মহিলারা নির্যাতিত। রাজ্যের প্রধান  মহিলা হলেও যা চেয়েছিল আজ তা ব্যর্থ। উল্টোদিক থেকে মহিলা কর্মী থেকে সাধারণ কর্মীদের নানাভাবে হেনস্থা করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন দুই নেতৃত্ব।  মহিলাদের সুরক্ষিত করার লক্ষ্য নিয়েই আজ প্রশাসনের দ্বারস্থ হতে হচ্ছে।  এর পরিপ্রেক্ষিতেই মহামিছিলের ডাক।  প্রশাসন বিষয়টি গুরুত্বসহকারে না দেখলে আগামী দিনে মহিলারা আবার পথে নামবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন।

Related Articles

Back to top button
Close