fbpx
কলকাতাহেডলাইন

মকপোল শুরুর আগেই অশান্ত ৩৬ নম্বর ওয়ার্ড, দফায় দফায় বিক্ষোভ

যুগশঙ্খ, ওয়েবডেস্কঃ পুরভোট শুরু হওয়ার আগেই শুরু হয়ে গেল তুমুল অশান্তি। উত্তপ্ত উঠল ৩৬ নম্বর ওয়ার্ড।  সংশ্লিষ্ট বুথে সিসি ক্যামেরা অচল রাখার অভিযোগ ওঠে। মকপোল শুরু হওয়ার আগেই কংগ্রেসের এজেন্ট বসানোকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল কলকাতা পুরসভার ৩৬ নম্বর ওয়ার্ড। টাকি বয়েজ স্কুল বুথ। এই বুথেই  দফায় দফায় চলে অশান্তি। এই ওয়ার্ডের কংগ্রেস প্রার্থী নন্দন ঘোষের দাবি, তাঁদের এজেন্টকে বসাতে গেলে দেয় তৃণমূল। তাদের এজেন্টকে মারধর করা হয়। পুলিশের সঙ্গে কংগ্রেস প্রার্থী নন্দন ঘোষের বচসার পরিস্থিতি তৈরি হয়। এই অভিযোগকে সামনে রেখেই বুথের সামনে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে কংগ্রেস প্রার্থী ও তাঁর পোলিং এজেন্টরা। ঘটনাস্থলে পৌঁছয় বিশাল পুলিশ বাহিনী। পুলিশ কংগ্রেসের পোলিং এজেন্টদের ভিতরে ঢোকার ব্যবস্থা করে দেন।

কংগ্রেস প্রার্থী নন্দন ঘোষের অভিযোগ,আমি আগের দিনই ওসিকে বলেছিলাম আমাদের টাকি স্কুল, খান্না স্কুলে কোনও এজেন্টকে ঢুকতে দেওয়া হবে না। ওসি বললেন চিন্তার কোনও কারণ নেই। সুস্থভাবে ভোট হবে।  সুস্থভাবে কোথায় ভোট হচ্ছে তা দেখা গেল। সংবাদমাধ্যম চলে আসায় এজেন্ট বসাতে পারলাম। ।” পুলিশের নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তুলেছে কংগ্রেস।

আজ কলকাতার ১৪৪টি ওয়ার্ডে ভোট গ্রহণ হবে। ভোট গ্রহণের জন্য মোট ৪৯৫৯টি বুথের ব্যবস্থা হয়েছে। এর মধ্যে ১১৩৯টি বুথকে ‘স্পর্শকাতর’ বলে চিহ্নিত করেছে রাজ্য নির্বাচন কমিশন। এর মধ্যে সব থেকে সংবেদনশীল বোরো ৭। স্পর্শকাতর বুথ সবথেকে কম ১৩ নম্বর বোরোয়। এখানে এরকম বুথের সংখ্যা ২২টি। কলকাতা পুরসভা এলাকার ১৬টি বরোতেই কমবেশি স্পর্শকাতর বুথ রয়েছে।

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close