fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

মাইক্রো প্লানিং এর সুফল, রাজাবাজার ও বেলগাছিয়া গ্রীন জোন: প্রশাসক

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: মাইক্রো প্লানিং এর ফলে রাজাবাজার ও বেলগাছিয়া বেশ কিছু এলাকা গ্রীন জোনে। শনিবার এমনটাই দাবি করেন পুরো কর্তৃপক্ষ। যদিও শুক্রবার পুরো প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম প্রথম রাজাবাজার ও বেলগাছিয়ার বেশ কিছু অঞ্চল গ্রীনজোনে আসার কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘পুরোটাই মাইক্রো প্লানিং এর সুফল মিলেছে। আমি এটুকুই বললাম। বাকি নবান্ন থেকে তালিকা প্রকাশ করে বলা হবে।’

তালিকা অনুযায়ী কলকাতা পুর এলাকায় কনটেইনমেন্ট জোনের সংখ্যা কমে ২৮৬। এর ফলে কলকাতায় কমপক্ষে 70 টি জায়গা বিপদ মুক্ত হল। এর মধ্যেই পুরসভায় এলাকাগুলিতে প্রতিদিন ৩০০ থেকে ৪০০ লোকের টেস্ট করানোর কাজ চলছে। টেস্টে নতুন করে বিপদজনক এলাকাগুলিতে কোন করো না রোগী আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি। তাই ওইসব এলাকাগুলোকে গ্রীন জনে নিয়ে আসার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বড়বাজার, পঞ্চানন তলা বস্তি, রাজাবাজার, গার্ডেনরিচ, বেলগাছিয়া শহরের অতি বিপদজনক এলাকাগুলিতে এই টেস্টের কাজ হয় মোবাইল ভ্যান এর মাধ্যমে। সেইসঙ্গে বাড়ি বাড়ি গিয়ে পুরো স্বাস্থ্যকর্মীরা প্রতিদিন এলাকার মানুষের স্বাস্থ্যের বিষয়ে খোঁজখবর নিচ্ছে। কারোর জ্বর সর্দি কাশি বা শ্বাসকষ্ট জনিত কোন সমস্যার কথা জানতে পারলে তা দ্রুত স্বাস্থ্য বিভাগের নোডাল অফিসার কে জানানো হচ্ছে।

আরও পড়ুন: অশান্ত হুগলি! অমিতের হস্তক্ষেপ চাইলেন দিলীপ

এদিকে করোনার ভাইরাসের সংক্রমণের পাশাপাশি পাল্লা দিয়ে শহরে বাড়ছে ডেঙ্গু মশার দাপট। একে করো না তার ওপর আবার ডেঙ্গু যদি একসঙ্গে কলকাতায় থাবা বসায় সেক্ষেত্রে সমস্যা অনেকটাই বেড়ে যেতে পারে। তাই কলকাতা পুরসভা করো না মোকাবিলার পাশাপাশি শনিবার থেকে ডেঙ্গু সচেতনতা প্রচারে আনুষ্ঠানিকভাবে নামবে বলেও জানা গিয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close