fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

বন্যায় বিপর্যস্ত বিহার, মৃত ১০, ক্ষতিগ্রস্ত ১৫ লক্ষ মানুষ

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: পৃথিবী এক কঠিন অসুখে আক্রান্ত। দিন দিন বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। এর মধ্যেই অতি ভারী বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত বিহার। টানা বৃষ্টিতে জলমগ্ন বিহারে বিভিন্ন অঞ্চল। ক্রমশই খারাপ হচ্ছে পরিস্থিতি। এই ভয়াবহ বন্যার ১০ জন প্রাণ হারিয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত ১১টি জেলা। ১৫ লক্ষ মানুষ বন্যার কবলে। সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দ্বারভাঙা জেলা। এখনও অবধি ৫.৩৬ লাখ মানুষ শুধুমাত্র এই জেলাতেই ক্ষতির মুখে পড়েছে। ইতিমধ্যেই বিপর্যস্ত এলাকাগুলিতে ত্রাণ দেওয়ার কাজ শুরু হয়েছে। শুখনো খাবার বিলি করা হচ্ছে।

টানা বৃষ্টির কারণে বাগমতি, বুরহি গন্ডক, কমলাবালান, লালবাকেয়া, আধওয়াড়া, খিরোই, মহানন্দা, ঘাগড়া নদীতে জল অনেক বেড়ে গিয়েছে। জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর প্রায় ২১টি দল উত্তর বিহারে রয়েছে।

আরও পড়ুন:অমিত শাহের পরামর্শেই বাজিমাৎ, রাজধানীতে সংক্রমণে লাগাম কেজরি সরকারের

ভরা বর্ষার মরশুমে এ ভাবে ভারী থেকে অতি ভারী টানা বর্ষণের জেরে বুড়িগঙ্গা, গন্ডক, কোশি-সহ একাধিক নদীতে লাগামছাড়া ভাবে বেড়েছে জলের মাত্রা। বিপদসীমার উপর দিয়ে বইছে বিহারের অধিকাংশ নদী। পূর্ব ও পশ্চিম চম্পারণ, সীতামারী, সেওহার, সুপাল, কৃষ্ণগঞ্জ, দ্বারভাঙা, মুজফফরপুর, খাগরিয়া এবং গোপালগঞ্জ, বন্যার ফলে এই সব জেলা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
আগামী কয়েকদিন বিহারেও ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস জারি করেছে মৌসম ভবন।
বায়ুসেনার হেলিকপ্টার থেকে শুকনো খাবার, বেবি ফুড দেওয়া হচ্ছে। একাধিক জেলায় মানুষকে সরিয়ে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।
নেপাল সরকার না জানিয়ে জল ছেড়েছে বলেও অভিযোগ করেছে বিহারের বিপর্যয় মোকাবিলা দফতর। গোপালগঞ্জ, পূর্ব চম্পারণ, কিষাণগঞ্জের মতো জেলাগুলিওরও বিস্তীর্ণ অংশ বন্যা কবলিত। বেশ কিছু জায়গায় কমিউনিটি কিচেন খোলা হয়েছে সরকার ও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার তরফে।

Related Articles

Back to top button
Close