fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ঘরের ছেলের ঘর ওয়াপসি, তৃণমূলে ফিরছেন বিপ্লব

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:   ঘরের ছেলের ঘর ওয়াপসি, তৃণমূলে ফিরছেন বিপ্লব। দক্ষিণ দিনাজপুরের দাপুটে তৃণমূল নেতা বিপ্লব মিত্র। তার যোগদানের জেরে দক্ষিন দিনাজপুর জেলায় রাজ্যের শাসক দল আগামী দিনে যেমন রাজনৈতিক ভাবে লাভবান হতে চলেছে ঠিক তেমনি ধাক্কা খেতে চলেছে বিজেপিও।বিপ্লববাবুর মতো নেতা যিনি একবছরও হয়নি বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন তিনি আবারও তৃণমূলে ফিরে আসায় তার প্রভাব গোটা উত্তরবঙ্গ জুড়েই পড়বে।বিপ্লববাবু যে তৃণমূলে ফিরতে পারেন সেটা কানাঘোঁষা শোনা যাচ্ছিল গত কয়েক মাস থেকেই। কিন্তু তার দলে ফেরার পথে কিছুটা হলেও অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন জেলা তৃণমূল সভানেত্রী তথা রাজ্যসভার সাংসদ অর্পিতা ঘোষ। কিন্তু সাম্প্রতিক কালে তিনি জেলা তৃণমূল সভানেত্রীর পদ হারিয়েছেন। আপাতত তিনি শুধুই সাংসদ। পরিবর্তে দলের নতুন জেলা সভাপতি হয়েছে বিপ্লববাবুর শিষ্যসম গৌতম দাস। তাই বিপ্লববাবুর দলে ফেরার ক্ষেত্রে আর কোনও বাধা রইল না।

বৃহস্পতিবার দুপুরেই কলকাতায় বিপ্লববাবুর হাতে পতাকা তুলে দেওয়ার কথা ছিল তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের। কিন্তু প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি মারা যাওয়ার কারনে এদিন সেই কর্মসূচি হচ্ছে না বলে তৃণমূল সূত্রে খবর। তবে দু’একদিনের মধ্যেই এই যোগদান পর্ব হবে বলে জানা গিয়েছে। গত বছর ২৫ জুন। নয়াদিল্লির বিজেপি সদর দফতরের ছবির স্মৃতি এখনও তাজা। শুধু বিপ্লববাবু নন। ১৮ সদস্যের উত্তর দিনাজপুর জেলা পরিষদের ১০ জন সদস্য তাঁর পিছু পিছু দিল্লি চলে গিয়েছিলেন। তাঁদের হাতে পতাকা ধরিয়ে মুকুল রায় বলেছিলেন, ‘বাংলার রাজনীতিতে ভূমিকম্প হয়ে গেল। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত থেকে জেলা পরিষদ ছিনিয়ে নিলাম আজ।’ তারপর বিজেপি অফিসের লবিতে দাঁড়িয়ে বিপ্লববাবুর সে কী বিপ্লব—’মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজত্বে গণতন্ত্র নেই, তোলাবাজি চলছে, দেশজোড়া বিকাশের অংশীদার হব’.ইত্যাদি প্রভৃতি। কিন্তু বছর ঘুরতে না ঘুরতেই ফের ঘুরে গেলেন তিনি।

আরও পড়ুন: শূন্য বিধানভবন, ফাঁকা পড়ে রইল ‘ছোড়দা’র চেয়ার…

যোগদানের পর সাংবাদিক সম্মেলনে হয়তো তার ব্যাখ্যা দেবেন আইনজীবী নেতা। কিন্তু জেলার রাজনৈতিক মহল মনে করছে, সাংসদ সুকান্ত সরকারের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে উঠতে পারছিলেন না বিপ্লব। বিজেপিতে এক কোণেই পড়ে থাকতে হচ্ছিল তাঁকে। তা ছাড়া বিজেপির কাছে নিরাপত্তা বলয় চেয়েও পাননি বলে জানা যাচ্ছে। সব মিলিয়ে এক বছরের মধ্যেই বিজেপির সংশ্রব ছাড়তে চলেছেন তিনি। একটি সূত্রের মতে, বিপ্লবকে দলে ফেরানোর জন্য গত কয়েক মাস ধরেই সক্রিয় তৃণমূল। সম্ভবত, তার শর্ত মেনেই জেলার সভাপতি পদ থেকে অর্পিতাকে সরিয়ে গৌতম দাসকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এই গৌতম দাস খাতায় কলমে গঙ্গারামপুরের কংগ্রেস বিধায়ক। ১৬-র ভোটে বাম-কংগ্রেস জোট প্রার্থী হিসেবে জিতেছিলেন তিনি। পরে তাঁকে তৃণমূলে নিয়ে আসেন বিপ্লববাবুই।

Related Articles

Back to top button
Close