fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

দেবেন্দ্রনাথ মৃত্যুকান্ডে উত্তাল শিলিগুড়ি, CBI হস্তক্ষেপ দাবী বিজেপির

কৃষ্ণা দাস, শিলিগুড়ি: বিজেপি বিধায়কের অস্বাভাবিক মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার রাজ্য রাজনীতি। হত্যা না আত্মহত্যার দোলাচলে যখন সিআইডি তদন্তের দিকে এগোচ্ছে রাজ্য, তখন কেন্দ্রীয় তদন্তকারি সংস্থা সিবিআই’কে নিযুক্ত করে নিরপেক্ষ ও সঠিক তদন্তের দাবীতে অনড় বিজেপি।  গোটা উত্তরবঙ্গ জুুড়ে ১২ঘন্টা বনধের ডাক দেয়। সেইসঙ্গে, বিধায়কের এই মৃত্যুকে কেন্দ্র করে উত্তরবঙ্গ সহ গোটা রাজ্য অচল করে দেবার জন্য পথে নামে রাজ্য বিজেপি। সেইমত বনধকে সফল করতে মঙ্গলবার সকাল থেকেই জায়গায় জায়গায় বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করে বিজেপি কর্মী সমর্থকেরা। আর এই কর্মসূচী পালন করতে গিয়ে গোটা শিলিগুড়িতে বিক্ষিপ্ত কিছু ঘটনায় গ্রেফতারও হয় বিজেপি’র নেতা, কর্মীরা।

উল্লেখ্য, গত সোমবার হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্র নাথ রায়ের অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। ঘটনার বিবরনে জানা যায়, রবিবার রাতে কেউ বা কারা দেবেন্দ্র বাবুকে রাত একটার সময় বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর পরদিন সকালে তাঁকে গলায় ও হাতে ফাঁস লাগানো অবস্থায় বাড়ি থেকে এক কিলোমিটার দূরে বালিয়ামোড় এলাকায় একটি বন্ধ দোকানের বারান্দা থেকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ। আর এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তাল হয়ে ওঠে রাজ্য রাজনীতি। রাজ্য প্রশাসন পুলিশের দাবী দেবেন্দ্র বাবু আত্মহত্যা করেছেন। অন্যদিকে এই ঘটনাকে শাসক দল তৃণমূলের ষড়োযন্ত্রের খুন বলে অভিযোগ তোলে বিজেপি। আর এই খুনের অভিযোগের প্রতিবাদে মঙ্গলবার গোটা উত্তরবঙ্গে ১২ঘন্টা বনধে্র ডাক দেয় বিজেপি। সেই বনধকে সমর্থন করে উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় বিজেপি’র কর্মী সমর্থকেরা পথে নামলে জায়গায় জায়গায় পুলিশ তাদের বাধা দেয়। তাতেই বেশ কিছু জায়গায় বিক্ষিপ্ত কিছু বিশৃঙ্খলার ঘটনা ঘটে। এদিন বনধের সমর্থনের মিছিল করতে গিয়ে পুলিশের বাধার মুখে আটক হয় দার্জিলিং জেলা সভাপতি সহ একাধিক বিজেপি কর্মী সমর্থকেরা।

এদিন জেলা সভাপতি প্রবীন আগারওয়ালের নেতৃত্বে শিলিগুড়ির দলীয় কর্যালয় থেকে বিজেপি কর্মীরা বন্ধের সমর্থনে মিছিল বের করতেই জেলা সভাপতি প্রবীণ আগারওয়াল সহ একাধিক কর্মী সমর্থকদের আটক করে শিলিগুড়ি থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। অন্যদিকে, শিলিগুড়ির বাগডোগরা মন্ডল ও জেলা নেতৃত্বরা বিধায়কের মৃত্যুর ঘটনার নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি জানিয়ে বনধে্র সমর্থনে পথে নামে। সামাজিক দূরত্ব ও আইন ভাঙার অপরাধে সেখানেও ২০-৩০জন বিজেপি নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে বাগডোগরা থানার পুলিশ। পাশাপাশি, আঠারোখাই মন্ডল বিজেপি নেতৃত্বরা বন্ধ সমর্থনে পথে নামলে বেশ কয়েকজনকে বিজেপি কর্মী সমর্থকদের আটক করে মাটিগাড়া থানার পুলিশ।

এদিন দুপুরে শিলিগুড়ির নৌকাঘাটের কাছে জাতীয় সড়কের ওপর টায়ার জ্বালিয়ে প্রতিবাদে সামিল হন বেশকয়েকজন বনধ সমর্থনকারি। যদিও পুলিশ আসার আগেই তারা সেখান থেকে চলে যান। গোটা রাজ্যের পাশাপাশি, উত্তরবঙ্গ তথা শিলিগুড়ি জুড়ে বনধের সমর্থনে বিজেপি কর্মীরা রাস্তায় নামলে, একাধিক সমর্থককে আটক করেছে পুলিশ। বিধায়কের অস্বাভাবিক মৃত্যু, অতপর বনধ্ সমর্থনে পথে নেমে বিজিপি’র জেলা সভাপতি প্রবীন আগরওয়ালের অভিযোগ, এই নিন্দনিয় ঘটনার প্রতিবাদে ও নিরপেক্ষ সিবিআই তদন্তের দাবী জানিয়ে এদিন পথে নামলে, পুলিশ তৃণমূলের চামচাগিরি করতে গিয়ে তাদের ওপর চড়াও হয়। তাদের গায়েও হাত তোলা হয় বলে তার অভিযোগ।

তিনি বলেন,”একটা শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ মিছিলে উদ্দেশ্য প্রনোদিত হয়ে পুলিশ তৃণমূলের প্ররোচনায় তাদের বাধা দেয়, এবং মারধোর করে অশান্তির সুষ্টি করে। কিন্তু তবুও এই আন্দোলন থামাতে পারবে না সরকার। সরকারের নিন্দায় সরব হয়ে খুনি তৃণমূল সরকারে পদত্যাগ দাবী করেন জেলা সভাপতি প্রবীন আগরওয়াল। অন্যদিকে, বনধের বিরোধিতায় শিলিগুড়িতে পালটা পথে নামে তৃণমূল কংগ্রেসও। করোনা পরিস্থিতিতে কোনভাবেই যাতে বন্ধের কারণে জনজীবন ব্যাহত না হয়। তার জন্য পথে নামল দার্জিলিং জেলার তৃণমূল কংগ্রেস।

তৃণমূলের জেলা সভাপতি রঞ্জন সরকার এদিন শিলিগুড়ি জংশনে এলাকায় জনসাধারণের কাছে আহ্বান জানান জনজীবন স্বাভাবিক রেখে বন্ধকে সমর্থন না করার জন্য। পাশাপশি তিনি বলেন, “করোনা পরিস্থিতিতে দাড়িয়ে সারা পৃথিবীর মানুষ যখন কষ্টে রয়েছে তখন বিজেপি একটা মৃত্যু নিয়ে রাজনীতি করছে। তারা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করছে। আমরা রাস্তায় নেমে শান্তিপূর্ণ ভাবে এর বিরোধিতা করছি। মানুষ যাতে শান্তিতে থাকতে পারে যাতে কোনো বিশৃঙ্খলা না করতে পারে পুলিশ প্রশাসন তার কাজ করছে।” তিনি দাবী করেন, “বিজেপিকে মানুষ প্রত্যাহার করেছে। এদিন বন্ধ কোনো জায়গায় সফল হয়নি কিছু জায়গায় জোড় করে বন্ধ করার চেষ্টা করছে তা পুলিশ দেখছে।”

Related Articles

Back to top button
Close