fbpx
কলকাতাহেডলাইন

সন্ত্রাসবাদীরা যে ভাষা বোঝে আমি সেই ভাষাতেই কথা বলছি: দিলীপ ঘোষ

শরণানন্দ দাস, কলকাতা: ‘সন্ত্রাসবাদীরা যে ভাষা বোঝে আমি সেই ভাষাতেই কথা বলেছি’ রবিবার এভাবেই তৃণমূলকে আক্রমণ করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ । সম্প্রতি দিলীপ ঘোষ নিজের ওয়েবসাইটে নিজের দলের কর্মীদের বার্তা দিয়েছেন, ‘ বদলাও হবে, বদলও হবে।’

 

এদিন সেই প্রসঙ্গে কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম মন্তব্য করেন,’ বিজেপি রাজ্য সভাপতি সন্ত্রাসবাদীদের মতো কথা বলছেন।’ রবিবার সল্টলেকের বাসভবনে এই বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, ‘ আমি আর সন্ত্রাসবাদীদের নিয়ে কি বলবো? সন্ত্রাসবাদীরা যে ভাষা বোঝে সেই ভাষাতেই কথা বলছি। যে দলের রাজ্যসভার সাংসদ সিমির সদস্য, কলেজের নেতা জেএমবির সদস্য, যাদের পার্টি অফিস বোমা, বন্দুক তৈরির কারখানা, যাঁরা পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে সিমি, আলকায়দা, জেএমবির ‘ শেল্টার’ বানায়, যে মেয়র কলকাতার মধ্যে মিনি পাকিস্তানের কথা বলেন তাঁকে কি বলবো? ওঁর কথায় ঘোড়াতেও হাসবে।’

 

 

এই প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, ‘ আমি কোন ক্যাম্পেন করিনি, আমার দলের কর্মীদের উদ্দেশ্যে একটা পোস্ট করেছিলাম। তার আগের দিন দাঁতনে আমাদের একজন তরুণ কর্মী খুন হয়েছেন। কিন্তু আমরা তৃণমূল নই, যে খুনের নদি বইয়ে দেবো। বিজেপি মৃত্যু মিছিল করে না। ‘ একইসঙ্গে তিনি বলেন,’ আমি সেইসব নেতা, পুলিশ, সরকারি অফিসারদের বলছি যাঁরা আমাদের সঙ্গে অন্যায় করেছেন তাঁদের কাউকে ছাড়া হবে না। যে দেবতা যে ফুলে সন্তুষ্ট তাঁকে সেইফুলে পুজো করা হবে। কাউকে ছাড়বো না আটকানো যাঁরা বন্দুকের পথে সমাধান চায় তাদের সেই পথেই উত্তর দিতে হবে।”

 

 

রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক এদিন দিলীপ ঘোষকে কটাক্ষ করে বলেন, ‘ওকে দিল্লির এইমসে নিয়ে গিয়ে চিকিৎসা করানো উচিত।’ বিজেপি রাজ্য সভাপতি পাল্টা বলেন ‘উনি ঠিকই বলেছেন রাজ্যের স্বাস্থ্যের যা হাল, তবে আমি ওঁকে সঙ্গে করে নিয়ে যাবো। আর ২১ সালের পর রাঁচিতে পাঠিয়ে দেব।’ রাজ্যে রেশন লুটের জন্য খাদ্যমন্ত্রীকে দায়ী করে বলেন, ‘ একবার নিজের নির্বাচনী এলাকায় যান না। মানুষ তৈরি হয়ে দাঁড়িয়ে আছে।’

 

 

তিনি তৃণমূলকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘ আমাদের বিরুদ্ধে পুলিশ লেলিয়ে, মামলা দিয়ে রোখা যাবে না। উল্টো গুণতি শুরু হয়ে গিয়েছে। মেয়রতো এক্সেপেয়ারি হয়ে গিয়েছে। ক’দিন পরে দিদিও এক্সপেয়ারি  সিএম হবেন।’ এদিন সকালে ইকোপার্কে বিশ্বযোগদিবসের অনুষ্ঠানে গিয়ে চিনের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন তিনি। মেদিনীপুরের সাংসদ বলেন, ‘হিংসার প্রতিরোধে যদি কেউ ভাবে মন্ত্র জপ করলে হয়ে যাবে, তাহলে লোকে তাকে নির্বোধ ও কাপুরুষ ভাববে। তাহলে ভগবান শ্রীকৃষ্ণ কি যুদ্ধ করে ভুল করেছিলেন? যারা কাপুরুষ, তারা ক্ষমার কথা বলে। হিংসা ছাড়া পৃথিবীতে কোনোদিন কোন সমাধান হয়নি।’

 

 

তিনি আরও বলেন, ‘ আজ যদি চিনকে হিন্দি চিনি ভাই ভাই বলি, তাহলে দেশের আরও কিছুটা ওরা নিয়ে নেবে। যে যে ভাষা বোঝে তাকে সেই ভাষায় জবাব দিতে হবে।’

Related Articles

Back to top button
Close