fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

জাতীয়তাবাদী ও হিন্দুত্ববাদী সংস্কৃতির প্রচার ও প্রসারের লক্ষ্যে ‘পাঞ্চজন্য’ সংগঠনের সূচনা করলেন বিজেপি নেতা

অভিষেক আচার্য, কল্যাণী: ম্যাকলের শিক্ষানীতি নির্ভর বিকৃত ইতিহাসের অপসারণ ঘটিয়ে ভারতবর্ষের জাতীয়তাবাদী ও হিন্দুত্ববাদী সংস্কৃতির প্রচার ও প্রসারের লক্ষ্যে কল্যাণীতে ‘পাঞ্চজন্য’ নামক বৌদ্ধিক, জাতীয়তাবাদী সংগঠনের সূচনা করেন বিজেপি নেতা পার্থ চ্যাটার্জ্জী।

 

 

 

‘পাঞ্চজন্য’র প্রথম আলোচনাসভাটি আয়োজিত হয়েছিল ১লা জানুয়ারি ২০২০, বিষয় ছিল ‘বিনায়ক দামোদর সাভারকর’, যেখানে প্রধান অতিথি ছিলেন রাজ্যসভার সাংসদ ডঃ স্বপন দাশগুপ্ত, রন্তিদেব সেনগুপ্ত, অধ্যাপক বিমলশংকর নন্দ প্রমুখ। করোনা দুর্যোগের কারণে ‘পাঞ্চজন্য’ দ্বারা আয়োজিত প্রথম ‘ওয়েবিনার’ এ বিষয় ছিল ‘ভারতীয় সংবিধানের ধারা ৩০’, যেখানে বক্তাদের মধ্যে ছিলেন ডঃ স্বপন দাশগুপ্ত, রন্তিদেব সেনগুপ্ত, বিজেপি নদীয়া দক্ষিণ সাংগঠনিক জেলার সভাপতি অশোক চক্রবর্ত্তী, অনিমিত্র চক্রবর্ত্তী। আগামী ২৫শে জুন ‘পাঞ্চজন্য’ আয়োজন করতে চলেছে তাদের দ্বিতীয় ওয়েবিনার যার বিষয় ‘পশ্চিমবঙ্গ দিবসের প্রেক্ষাপটে বাঙ্গালী হিন্দুর আগামী ভবিষ্যৎ’।

 

 

উক্ত কার্যক্রমে প্রধান অতিথি ভারতীয় জনতা যুব মোর্চার সদ্য প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি দেবজিত সরকার, রন্তিদেব সেনগুপ্ত, হিন্দু সংহতির সভাপতি দেবতনু ভট্টাচার্য্য, অনিমিত্র চক্রবর্ত্তী। ‘পাঞ্চজন্য’র আহ্বায়ক পার্থ(রাজীব) চ্যাটার্জ্জীকে এই সংগঠনের উদ্দেশ্য নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন – ‘আমরা দায়বদ্ধ রাষ্ট্রবাদ ও হিন্দুত্বের প্রতি। অখন্ড ভারত তথা পরম বৈভবশালী হিন্দু রাষ্ট্র গঠনই আমাদের সংকল্প।’ আগামীতে ‘পাঞ্চজন্য’ দুটি বিষয়ের ওপর আলোচনাসভা আয়োজন করতে চলেছে, যেগুলি হল – ‘আগামীর বঙ্গ সমাজ ও হিন্দু সংস্কৃতি’ এবং ‘আজাদ হিন্দ ফৌজের প্রতিষ্ঠাতা রাসবিহারী বোস’। ইতিমধ্যে এই ‘পাঞ্চজন্য’র আয়োজিত আলোচনাসভা গুলি যথেষ্ট জনপ্রিয়তা পেয়েছে। শ্রীকৃষ্ণের শঙ্খের মতো ‘পাঞ্চজন্য’-র জয়ধ্বনি বেজে উঠুক সর্বত্র, এই কামনা করেছেন বিজেপির উচ্চ নেতৃত্ব।

Related Articles

Back to top button
Close