দেশহেডলাইন

৪৮ আসন নিয়ে দিল্লির মসনদে বিজেপিই : মনোজ

ইন্দ্রাণী দাশগুপ্ত, নয়াদিল্লি: ‘সমস্ত এক্সিট পোলকে মিথ্যা প্রমাণ করে দিয়ে বিকেল তিনটের পর থেকে পড়া ৩০ শতাংশ ভোট ই নির্ধারণ করবে দিল্লির মসনদের ভবিষ্যৎ। আর এর ফলে ৪৮টির বেশি আসন পেয়ে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে দিল্লিতে বিধানসভা গঠন করবে বিজেপি।’ সোমবার এই দাবি করলেন দিল্লির রাজ্য বিজেপি সভাপতি মনোজ তিওয়ারি।

সাংসদ মনোজ তিওয়ারি ২০২০-র দিল্লি বিধানসভার ভোট যুদ্ধে নিজে লড়াই না করলেও সভাপতি হিসাবে সমস্ত নির্বাচন পরিচালনা করেছেন তিনিই। সোমবার সংসদে যুগশঙ্খকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘আমি যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী যে, আগামীকাল যে ফল বেরোবে তাতে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার করবে বিজেপি। কারণ আপনাদের ভুলে গেলে চলবে না সেই ১৯৯৯ থেকে আমরা কিন্তু একটু একটু করে নিজেদের ভোটব্যাঙ্ক বাড়িয়েছি। ২০১৪ সালে যে ভোট বিজেপির পক্ষে ছিল ৪২ শতাংশ ২০১৯ এ সেটা ১২ শতাংশ বেড়ে হয় ৫৪ শতাংশ। সুতরাং ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচন হয়েছিল সেখানে আমরা ৫৪ শতাংশ ভোট পেয়েছিলাম তারপর থেকে একটা বছর ও অতিক্রম হয়নি। দিল্লির দিলওয়ালে মানুষ কোন কিছুই ফ্রি নিতে চান না। তাঁরা লড়াই করে বাঁচেন এবং সরকারকে কর দিয়ে নিজেদের ন্যায্য পাওনাটুকু বুঝে নিতে চান। সুতরাং ভোটের আগে বিদ্যুৎ বা জলের মাশুলে ছাড় দিয়ে আম আদমি পার্টি যে ভোট লুট করে নিয়ে যাবে ভেবেছিল তাতে সহমত হয়নি দিল্লিবাসী।’

আরও পড়ুন: জামিয়ার পড়ুয়াদের মিছিলে ফের দিল্লি পুলিশের লাঠিচার্জ, ছাত্রীদের গোপনাঙ্গে আঘাতের অভিযোগ

কিন্তু এক্সিট পোল তো দিল্লিতে কেজরিওয়াল সরকারকে আবার পরবর্তী সরকার হিসাবে প্রায় ঘোষণা করেই দিয়েছে? উত্তরে সহাস্য সাংসদ গায়ক মনোজ তিওয়ারি বলেন, ‘সমস্ত এগজিট পোল বিকেল তিনটে পর্যন্ত যে ভোট পড়েছে তার নিরিখে করা হয়েছে। কিন্তু তিনটের পর থেকে যে ৩২ শতাংশ ভোট পড়েছে সেটার হিসাব কিন্তু কারোর কাছে নেই। সেই সময় পুরো ভোটটাই বিজেপিতে পোল হয়েছে। কারণ, আপনারা নিশ্চয়ই ভোটের দিন সারাদিন ঘুরে বেড়িয়েছেন। বিকেল তিনটের পর শুধুমাত্র আমাদের কর্মীরা ছাড়া বাকিরা টিভিতে এগজিট পোলের হিসাব দেখে ওনারাই সরকার করছেন এটা ভেবে বাড়ি চলে গেছিলেন। তার ফলে সাধারণ মানুষ আমাদের কর্মীদের সহায়তা পেয়েছেন এবং মোদিজীর উন্নয়নের সাথি হয়ে দিল্লিকে এক আন্তর্জাতিক মানের শহর তৈরি করার উদ্দেশ্যে আমাদেরকেই ভোট দিয়েছেন। এদিনের ফলাফল এগজিট পোলের এর সমস্ত হিসাব উল্টে দেবে বলেই আমার ধারণা।’

বিরোধীরা ইভিএম মেশিন নিয়েও সমালোচনা করছেন। এই প্রশ্নের উত্তরে দিল্লির বিজেপি সভাপতি জানান, ‘ভোটের দিন গণনার আগে থেকেই শুনে আসছি আপের সবাই নাকি বলাবলি করছে এবারও ৭০টা আসন পেয়ে ক্ষমতায় আসবেন নাকি কেজরিওয়াল। তারপর আবার এগজিট পোল। এখন যে তারা ইভিএম নিয়ে এত কথা বলছেন সাংবাদিকদের কাছে শুনছি, যদি কাল তাদের ফল ভালো হয় তখন তারা ইভিএমে নিজেরা কিছু করেছেন বলে মেনে নেবেন তো। আসলে উনারা বুঝতে পেরে গেছেন দিল্লির মানুষ উনাদের ভাওতাবাজি ধরে ফেলেছেন এবং এবার মোদীজীর উন্নয়নকে সাথী করে দিল্লিতে ক্ষমতায় আসতে চলেছে বিজেপি। সেই কারণে আগে থেকেই এইসব বলে জল ঘোলা করে দিতে চাইছেন আম আদমি পার্টির নেতারা।’

মনোজ তিওয়ারি বলেন, ‘এই যে দেখুন না, ভোটের দিন থেকে কত শতাংশ ভোট পড়েছে তাই নিয়ে একাধিক মন্তব্য করেছেন বিরোধী দলের নেতারা। কিন্তু সন্ধ্যেবেলা থেকেই নির্বাচন কমিশনের সাইটে প্রায় ৬৩ শতাংশ ভোটের সংখ্যা তথ্য দেওয়া ছিল। আমার খুব জিজ্ঞেস করতে ইচ্ছা করছে আম আদমি পার্টির লোকেরা কি পড়াশোনা জানেন না, নাকি নির্বাচন শেষ হয়ে যাওয়ার পরে প্রশান্ত কিশোর যখন নিজের টাকা টা বুঝে নিয়ে চলে গেছেন তারপর তিনি আর কেজরিওয়ালকে ভোটের পার্সেন্টেজ টাও বলার প্রয়োজন মনে করেননি। আসলে মানুষের সাথে সংযোগ না থাকার ফলে উপর উপর কিছু কাজ করার নিদর্শন দেখিয়ে আম আদমি পার্টির সরকার ভেবেছিল মানুষকে বোকা বানানো যাবে। কিন্তু আমি অত্যন্ত দৃঢ়তার সাথে বলছি তাদের মানুষকে বোকা বানানোর এই ধারণা ও প্রয়াস অবিলম্বে ভুল প্রমাণিত হবে এবং আগামীকালের ফল প্রকাশের পর দিল্লির মসনদে বসবে বিজেপি মুখ্যমন্ত্রীই।’

Related Articles

Back to top button
Close