fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

লকডাউনে দুঃস্থদের পাশে দাঁড়ালেন মহেশতলা বিজেপির পরিচিত মুখ পিন্টু ভট্ট

শংকর দত্ত : গোটা বিশ্বের সঙ্গে তাকে মিলিয়ে আমাদের দেশও সামিল করোনা ভাইরাস মোকাবিলার অসম লড়াইয়ে। কেন্দ্রের বিজেপি সরকার গোটা দেশের সমস্ত রাজ্যেই তীক্ষ্ণ নজর রেখেছে মানুষকে রক্ষা করতে। বাদ যাইনি পশ্চিমবঙ্গও ।

আর্থিক প্যাকেজ দেওয়ার পাশাপাশি এ রাজ্যের গরীব দিন দরিদ্র রুজিরুটি হীন মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে রেশনিং ব্যবস্থা করেছে তারা। রাজ্য সরকারও সাধ্যমত মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে। কিন্তু শুধুই সরকারি অনুদান বা সাহায়ের ওপর নির্ভির করে এত দিনের দীর্ঘ লকডাউনে মানুষ ক্রমশই হাঁপিয়ে উঠছেন। অনেকের বাড়িতেই ভাতের চালটুকু থাকলেও নেই তেল নুন বা সাবান কেনার মতো সুযোগ। সেই অবস্থায় নিয়ম মেনে সমস্ত সদস্যদের জন্য মাস্ক কেনা বা সানিটাইজার কেনাটা ইনেকের কাছেই বিলাসিতা। প্রয়োজনীয় হলেও আর্থিক কারণে অনেকের ক্ষেত্রেই উওয়াই নেই। বহু মানুষের দশা নুন আনতে পান্তা ফুরোয় গোছের। এই অবস্থায় গোটা রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিচ্ছে কোথাও রাজনৈতিক দল গুলি নিজের উদ্যোগে,কোথাও আবার স্বেচ্ছাসেবী একাধিক প্রতিষ্ঠান,ক্লাব সংগঠন গুলিও।

অনেকেই এগিয়ে এসেছেন ব্যক্তিগত উদ্যোগে নিয়েও। রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত থাকলেও দলের সাহায্য ছাড়াই নিজেদের ভাবনা থেকে এভাবেই মানুষের পাশে দাঁড়ালেন দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার মহেশতলার মন্ডলের (নম্বর ৫) বিজেপির তরুণ মুখ পিন্টু ভট্ট। ভিন্ন রাজনীতি করলেও এলাকার সব স্তরের সব রকম রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত মানুসের সঙ্গে তার সু সম্পর্ক। বরাবরের উপকারী পিন্টুও তাই থেমে থাকতে পারেনি সে তার বন্ধু বান্ধবদের সঙ্গে নিয়ে মাঝে মাঝেই বেরিয়ে পড়েন এলাকার গরীব দুস্থ মানুষদের খোঁজ খবর নিতে। কখনও কাউকে মাস্ক সানিটাইজার বিলি করছেন তো কখনো নানান খাদ্য দ্রব্য। পদাধিকার বলে তিনি মহেশতলা(৫) মন্ডলের সহ সভাপতি। তার সম্পাদক রাজ বোস। দুজনেই নিজ উদ্যোগে কয়েকজন কর্মী সহ সম্প্রতি এলাকার প্রায় ২২০ টি দুস্থ পরিবারে চাল,আলু ,সোয়াবিন ,ডিম প্রভিটি তুলে দিলেন। এইটুকু কাজেই তাঁরা দুজন বেজায় খুশি।

 

পিন্টু ও রাজের কথায়, ‘দেখুন আমাদের ক্ষমতা সীমিত। এইরকম মুহূর্তে আমাদের পার্টি ও খুব কষ্ট করে চলছে। শাসক দলের নেতাদের মতো আমাদের আর্থিক সঙ্গতি নেই। তাই নিজেরাই যতটা পারছি মানুষের সঙ্গে থাকার চেষ্টা করছি। এতে যদি একদিন ও কোনো মানুষের উপকার হয়,আমরা তাতেই খুশি। ‘ অবশ্য পিন্টু ই রাজের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন অনেকেই। সুধু বিজেপি নেই শাসক তৃণমূলের স্থানীয় কেউ কেউ তাদের এই উদ্যোগকে কুর্নিশ জানিয়েছেন।

Related Articles

Back to top button
Close