fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

করোনা জয় করে ফিরলেন বিজেপি নেতা, তৃণমূলকে বিঁধলেন রাজু বিস্ত

সঞ্জিত সেনগুপ্ত, শিলিগুড়ি: করোনা জয় করে বাড়ি ফিরলেন বিজেপি-র শিলিগুড়ির সাংগঠনিক জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রাজু সাহা। সোমবার রাতে জলপাইগুড়ি কোভিড হাসপাতাল থেকে ছুটি পেয়ে তিনি বাড়িতে ফেরেন। এরাকার মানুষ তাকে ফুল দিয়ে স্বাহত জানান।

 

 

তিনি করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর তৃণমূল সহ বিভিন্ন মহল থেকে তার বিরুদ্ধে দায়িত্বজ্ঞানহীনতার অভিযোগ তোলা হয়েছিল। করোনা পরীক্ষার জন্য লালারসের নমুনা দেওয়ার পর রিপোর্ট পাওয়ার আগেই তিনি কেন প্রকাশ্যে ঘুরে বেরিয়েছেন?  এই প্রশ্নে তাঁকে এবং বিজেপিকে বিরোধীরা বিঁধেছে। বিজেপির সাংগঠনিক জেলা সভাপতি প্রবীণ আগরওয়ালা এবং দার্জিলিংয়ের সাংসদ রাজু বিস্ত তৃণমূলকে পাল্টা আক্রমণ করেছেন। তাঁদের বক্তব্য, লালারাসের নমুনা দেওয়ার ৮ দিন পর রাজু সাহার রিপোর্ট এসেছিল। নিয়মমতো সাতদিন  হোম আইসোলেশনে থাকার পর  রাজু সাহা বেরিয়েছিলেন। এই পরিস্থিতির জন্য রাজু সাহার কোনও ভুল বা ত্রুটি নেই। এর যাবতীয় দায় রাজ্যের তৃণমূল সরকারের।

 

 

এক ভিডিও বার্তায়  রাজু বিস্ত বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের চিকিৎসা ব্যবস্থা যে বেহাল হয়ে পড়েছে এই ঘটনার মধ্য দিয়ে তা আবার প্রমাণ হলো। একজন করোনা আক্রান্ত ব্যক্তি সে তার রিপোর্ট আটদিন পর পাচ্ছেন। এটা কেন হবে?  অন্য রাজ্যে একদিনের মধ্যেই রিপোর্ট পেয়ে যাচ্ছেন সকলে। রিপোর্ট যত তাড়াতাড়ি পাওয়া যাবে চিকিৎসা তাড়াতাড়ি শুরু করা হবে। এক্ষেত্রে রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলার ক্ষেত্রে রাজ্য সরকার কোনও ব্যবস্থা নেয়নি। যার জন্যই আজ সাধারণ মানুষকে এভাবে আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটাতে হচ্ছে।’ প্রবীণ আগরওয়ালা বলেন, ‘ রাজু সাহার করোনা আক্রান্তের খবর আসার পর থেকেই শাসকদলের নেতারা তাঁর অসুস্থতা নিয়ে মিডিয়ার সামনে নানা ধরনের মন্তব্য করেছেন। কিন্তু যেখানে লালা রস পরীক্ষার রিপোর্ট অন্যান্য রাজ্যে  ৮থেকে ১২ ঘন্টার মধ্যেই চলে আসছে সেখানে রাজু সাহার নমুনা সংগ্রহের ৮ দিন পর রিপোর্ট আসে। নমুনা সংগ্রহের রিপোর্ট যাতে সঠিক সময় আসে তার প্রচেষ্টা না করে শাসকদলের নেতাদের আক্রান্ত রোগীকে নিয়ে রাজনীতি করতে ব্যস্ত হয়ে  হওয়াটা শিলিগুড়ি বাসির জন্য যথেষ্টই উদ্বেগের। তারা কেউই রাজু সাহার দ্রুত আরোগ্য কামনা করে তার পরিবারের প্রতি বিন্দুমাত্র সহমর্মিতা না জানিয়ে উল্টে বিভ্রান্তিকর মন্তব্য করে চুড়ান্ত অসৌজন্যতার নজির স্থাপন করলেন।’

Related Articles

Back to top button
Close