fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মুখ্যমন্ত্রীকে ফের তির্যক ভাষায় আক্রমণ বিজেপি নেতা সৌমিত্র খাঁ-এর

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: ফের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে উদ্দেশ্য করে অশালীন মন্তব্য করলেন বিজেপির যুব মোর্চার সভাপতি সৌমিত্র খাঁ। মঙ্গলবার বর্ধমানে দলের সেবা সপ্তাহ কর্মসূচির সভায় যোগ দিয়ে সৌমিত্র খাঁ মুখ্যমন্ত্রী ও তাঁর ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে তির্যক ভাষায় আক্রমণ করেন। যা নিয়ে বেজায় ক্ষুব্ধ শাসক দলের নেতৃত্ব।

সৌমিত্র খাঁ এদিনের সভায় বক্তব্য রাখতে উঠে বলেন, রাক্ষসী মমতা আর বাটপার ভাইপো কি দশ কোটি মানুষের কন্ঠরোধ করবেন? আমি তৃণমূল করে অনেক পাপ করেছি। তাই বুথে বুথে ঘুরে এখন তার প্রায়শ্চিত্ত করছি। শাসক দলের মদতে ব্যাপক তোলাবাজি আর বালির টাকা কামানো চলছে। পুলিশকে হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, জেলার প্রোমোটি এস পি কান খুলে শুনে নিন সময় এলেই বোঝা যাবে। আমরা ক্ষমতায় আসছিই। পুলিশকে দিয়ে ঘিরে রেখে বিজেপিকে আটকানো যাবেনা। জেলায় শিল্প নেই কাজ নেই। চাষির হাতে পয়সা নেই। কেন্দ্র চাষিদের জন্য নানা যোজনা চালু করেছে। ৫ লাখ টাকা অব্দি আয়ূস্মান ভারত প্রকল্প এনেছে। কিন্তু মানুষকে এসব সুযোগ থেকে বঞ্চিত করেছে তৃণমূল। বাটপার ভাইপো এখন সব চালাচ্ছেন। তাকে টাকা দিলেই এস এস সি তে নাম ওঠে। ভাইপো সিনিয়রদের সম্মান দেননা। রাজ্যে যেখানে তিন লাখ পুরোহিত রয়েছে সেখানে মাত্র ৮০০০ পুরোহিতকে ভাতা কি ভিক্ষে দেওয়া? এতো মরার মুখে রাম নাম। সাইকেল দিলেও মেয়েদের সম্মান দেয়নি। ধর্ষণ হলেও বিচার মেলেনা। রাজ্যে বিজেপি কর্মীদের মারধর খুন করা হচ্ছে। দুর্গাপূজা আটকে কি ওরা বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গা আনবেন। ফের বিজেপি কর্মীদের উপর হামলা হলে তৃণমূলের নেতাদের চ্যালাকাঠ দিয়েঠ্যাঙানি দেওয়া হবে সভায় দাড়িয়ে ঘোষনা করেন সৌমিত্র খাঁ ।

বিজেপি নেতার এই বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করে তৃণমূলের রাজ্যের মুখপাত্র দেবু টুডু বলেন ,বিজেপি অসভ্য বর্বরের দল। যেমন দল তেমনই ওদের নেতাদের মুখের ভাষা। কালচারও তেমনই। এদিন দেবু টুডু পাল্টা হুঁশিয়ারী দিয়ে বলেন, কেন্দ্র রাজ্যের বকেয়া পাওনা ৫৪ হাজার কোটি টাকা এখনও দেয়নি । তারপরেও মুখ্যমন্ত্রীকে উদ্দেশ্যকে বিজেপি নেতারা কটু কথা বলে চলেছে। এরপর থেকে বিজেপির সোমিত্র খাঁ ও রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় বর্ধমানে এসে তৃণমূলের বিরুদ্ধে কুৎসা ছড়ালে ওদের কার্জনগেট চত্ত্বরে ল্যাম্পপোষ্টে বেঁধে রেখে কৈফিত চাওয়া হবে।

Related Articles

Back to top button
Close