fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বিজেপি বিধায়ককে খুন করা হয়েছে, সিবিআই তদন্তে প্রকৃত ঘটনা সামনে আসবে: দিলীপ ঘোষ

শান্তনু চট্টোপাধ্যায়, মৃন্ময় বসাক, রায়গঞ্জ ও হেমতাবাদ: হেমতাবাদের বিধায়ক দেবেন্দ্র নাথ রায়কে হত্যা করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। পুরো পরিকল্পনা করে খুন করা হয়েছে। এতে দুষ্কৃতী, পুলিশ এবং তৃণমূল যুক্ত রয়েছে। সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করা হয়েছে, আশা করছি সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেবে সুপ্রিমকোর্ট।”  হেমতাবাদের প্রয়াত বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্র নাথ রায়ের পরিবারকে সমবেদনা জানাতে এসে এই মন্তব্য করলেন  বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

এদিন তাঁর সঙ্গে ছিলেন দলের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু,  বালুরঘাটের বিজেপি সাংসদ সুকান্ত মজুমদার, দলের জেলা সভাপতি বিশ্বজিত লাহিড়ী সহ অন্যান্যরা। উল্লেখ্য সোমবার দুপুরে দেবেন রায়ের বালিয়া এলাকার বাড়িতে যান দিলিপ ঘোষ সহ বিজেপির রাজ্য ও জেলা নেতৃত্ব। এদিন দুপুরে হেমতাবাদের প্রয়াত বিজেপি বিজেপি বিধায়কের গ্রামে ঢুকতেই এলাকার মহিলারা উলুধ্বনি দিয়ে, শঙ্খ বাজিয়ে দিলীপ ঘোষকে স্বাগত জানান। দিলীপবাবু প্রয়াত বিধায়কের স্ত্রী চাদিমা রায় ও তার পরিবারের লোকেদের সাথে কথা বলেন। এরপর বিন্দোল এলাকায় দেবেন রায়ের স্মরণ সভায় যোগ দেন তিনি। অংশ নেন প্রয়াত বিধায়কের মূর্তির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানেও।

আরও পড়ুন: আমার পরিবার বিজেপি পরিবার… সূচনা বিজেপির

এদিন দিলীপ ঘোষ বলেন, দেবেন রায়ের সন্দেহজনক মৃত্যুর পরে আজ দেবেন বাবুর বাড়িতে এসে পরিবারের সঙ্গে কথা বললাম। আমরা দেবেন দার পরিবারের সঙ্গে রয়েছি। দেবেন্দ্র নাথ রায়কে হত্যা করে ঝুলিয়ে দেওয়ার পর তার পকেটে সুইসাইড নোট রাখা হয়েছিল। এটা সম্পূর্নই প্ল্যানিং ছিল। পুলিশ ও  তৃণমূল দলের লোকেরা এর সঙ্গে যুক্ত রয়েছে।স্থানীয় প্রশাসন সব জানে, তবুও ইচ্ছাকৃতভাবে সত্যিটাকে চাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে। আমরা সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছি। সিবিআই তদন্ত হলেই এই সত্যা সামনে চলে আসবে।

উল্লেখ্য, গত ১৩ জুলাই বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে বালিয়ামোড় বাজার এলাকায় একটি বন্ধ মোবাইলের দোকানের সামনের বারান্দায় ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার হয় হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়ক দেবেন্দ্র নাথ রায়ের।  পুলিশ এটিকে আত্মহত্যার ঘটনা বললেও প্রয়াত বিধায়কের পরিবার ও বিজেপি দল খুনের অভিযোগ তুলে সরব হয়। দলীয় বিধায়ক খুনের ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে রাজ্যজুড়ে বনধ সহ ব্যাপক আন্দোলনে নামে বিজেপি।  গোটা ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ মৃত বিধায়কের পকেট থেকে একটি সুসাইডাল নোট উদ্ধার করে। তাতে নিলয় সিংহ ও মাবুদ আলি এই দুজনকে তাঁর মৃত্যুর জন্য দায়ী করা হয়।

 

এদের সঙ্গে প্রয়াত বিধায়কের ব্যাবসায়িক লেনদেন ছিল বলে জানা গিয়েছে।  ঘটনার তদন্তের ভার হাতে নেয় সিআইডি। অভিযুক্ত দুজনকেই গ্রেফতার করেছে সিআইডি। এই ঘটনার প্রায় একমাস বাদে সোমবার  প্রয়াত বিধায়ক দেবেন্দ্র নাথ রায়ের বাড়িতে আসেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

 

এরপর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, শুধু হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়ককে খুনই নয়, সারা রাজ্যজুড়ে একই কায়দায় বিজেপি কার্যকর্তাদের খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হচ্ছে। পুলিশ ও তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত। তবে এসব করে বিজেপিকে ঠেকানো যাবে না। বিজেপি শক্তিশালী হওয়াতে শাসক দল এই পথ বেছে নিয়েছে।

 

দিলীপবাবু এদিন আরও বলেন,” উত্তরবঙ্গে লোকসভা নির্বাচনে আমরা ভালো ফল করেছি। বিধানসভা নির্বাচনেও বেশীরভাগ আসনে বিজেপি প্রার্থীরা জয়ী হবেন। “এদিন হেমতাবাদে একটি কর্মীসভাতেও যোগ দেন দিলীপবাবু।

Related Articles

Back to top button
Close