fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

সত্যজিৎ খুনের মামলায় জামিন পেলেন বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকার

অভিষেক আচার্য, কল্যাণী: কৃষ্ণগঞ্জের তৃণমূল বিধায়ক সত্যজিৎ বিশ্বাসকে খুনের ঘটনায় সাপ্লিমেন্টারি চার্জশিট পেশ করেছিল সিআইডি। আর তাতে নাম রয়েছে নদিয়া জেলার রানাঘাটের বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকারের। সোমবার জামিন নিশ্চিত করার জন্য রানাঘাট আদালতে পৌঁছান সাংসদ। আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন তিনি। রানাঘাট এসিজিএম আদালতের বিচারক প্রত্যয় চৌধুরী বিধায়কের জামিন মঞ্জুর করেন। এ বিষয়ে সরকারি আইনজীবী প্রদীপ কুমার প্রামানিক বলেন, ” হাইকোর্টে আগেই জামিনের আবেদন জানিয়েছিলেন জগন্নাথ সরকার। সেই আবেদন মঞ্জুর হয়। এদিন রানাঘাট আদালতে তিনি আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন জানান। তাঁর আবেদন মঞ্জুর করা হয়েছে।” সূত্রের খবর, রানাঘাট আদালতে পেশ করা সিআইডি–র প্রথম চার্জশিটে তাঁর নাম ছিল না বলে জানা গিয়েছে।

প্রসঙ্গত, বিধায়ক  মার্ডার কেসের তদন্তভার সিআইডির হাতে থাকাতে তৎকালীন নদীয়া জেলা দক্ষিণের বিজেপি সভাপতি তথা বর্তমান বিজেপি সংসদ জগন্নাথ সরকারকে সিআইডি হেফাজতে নেওয়ার আর্জি জানালেও সংসদ জগন্নাথ সরকারের আইনজীবী হাইকোর্টে আগাম জামিনের আবেদন করেন। এর পরে হাইকোর্টে আগাম জামিনের আবেদন মঞ্জুর করে চারদিন সিআইডি ভবনে জিজ্ঞাসাবাদ যাওয়ার কথা জানান, আদালতের সেই আবেদনে সাড়া দিয়ে চারদিন সিআইডি ভবনে যান সাংসদ জগন্নাথ সরকার। গত কয়েকদিন আগে রানাঘাট কোর্টে বিধায়ক মার্ডার কেসের চার্জশিট জমা পড়ে। সেখানে সাপ্লিমেন্টারি ভাবে জগন্নাথ সরকার এর নাম থাকে। এরপরে আজ জগন্নাথ সরকার নিজের আইনজীবী কে নিয়ে রানাঘাট চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে আত্মসমর্পণ করে জামিন নামা দাখিল করে এবং আগাম হাইকোর্টে জামিনের হয়ে থাকাতে জামিন মঞ্জুর করেন ম্যাজিস্ট্রেট।

২০১১ সালে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ক্ষমতায় আসার পর রাজ্যে প্রথম বিধায়ক হিসেবে খুন হয়েছিলেন কৃষ্ণগঞ্জের সত্যজিৎ বিশ্বাস। এই ঘটনায় হাঁসখালি থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। গত বছরই আততায়ীদের গ্রেফতার করা হয়েছিল। সিআইডি–র দাবি, সত্যজিৎ বিশ্বাসকে খুনের আগে এবং পরে এই ঘটনায় অভিযুক্ত অভিজিৎ কুন্ডারি ও নির্মল ঘোষকে বেশ কয়েকবার ফোন করেন রানাঘাটের বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকার। তাঁদের কথাও হয়। সেই তথ্যপ্রমাণ ও কল ডিটেইলস সিআইডি–র হাতে এসেছে বলে তাদের দাবি।

আরও পড়ুন: ‘গণতন্ত্রকে অশ্রদ্ধা, স্বৈরাচারী মনোভাব’, ক্ষুব্ধ মমতা

এই বিষয়ে সাংসদ জগন্নাথ সরকার বলেন, ‘‌জামিন পেয়ে খুশি। এর থেকেই প্রমাণিত হয় এটা রাজনৈতিক প্রতিহিংসা ছাড়া আর কিছুই নয়। কারণ, এই মুহূর্তে নদিয়ায় তৃণমূলের অবস্থান ভয়াবহ। আমাকে ফাঁসানো হচ্ছে। এর আগে সিআইডি আমাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। প্রথম চার্জশিটে কিন্তু আমার নামও ছিল না। বিচার ব্যবস্থার ওপর আমার পূর্ণ আস্থা রয়েছে।’

Related Articles

Back to top button
Close