fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মুখ্যমন্ত্রী-সরকারের সঙ্গে বেসরকারি স্কুলের যোগসাজশ থাকায় বেতন নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়: লকেট

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: বেসরকারি স্কুলের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর সরকারের যোগ সাজস আছে তাই বেতন নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না।’ বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন বিজেপি সাংসদ তথা রাজ্য সম্পাদক লকেট চট্টোপাধ্যায়। সোমবার বিধান নগরের বিকাশ ভবনে বিজেপি শিক্ষা ছেলের আহবানে এ কর্মসূচিতে যোগ দিয়ে তিনি একথা বলেন।

লকডাউনের সময়ে বেসরকারি স্কুলগুলিতে অযথা বাড়তি ফি নেওয়া হচ্ছে। এই দাবিতে গত কয়েকদিন ধরে শহর কলকাতা বেসরকারি স্কুল গুলির সামনে ধর্নায় বসেছে অভিভাবকরা। এদিনও তার অন্যথা হয়নি। সকাল থেকেই সরগরম ছিল বাঁশদ্রোনীর ডি’পল স্কুল। স্কুলের সামনেই অভিভাবকরা পরিষেবা না দিয়ে বেতন নেওয়ার প্রতিবাদে সরব হন স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে।
মঙ্গলবারও একই ইস্যুতে সকাল দশটায় সেন্ট্রাল জেলের উল্টোদিকে সেন্ট স্টিফেন্স স্কুলের চারটি গেট আটকে শান্তিপূর্ণ অবস্থানে বসবেন অভিভাবকরা। এবার তাকে ইস্যুতেই সাধারণ মানুষের পাশে দাড়ালো বঙ্গ বিজেপি।
এদিন দুপুরে সল্টলেকে বিকাশ ভবনের সামনে বিজেপি শিক্ষক সেলের বিক্ষোভ কর্মসূচিতে যোগ দিলেন সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়, রাজ্য সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু। সোশ্যাল ডিসট্যান্স মেনে চলে অবস্থান বিক্ষোভ। এই সংক্রান্ত পাঁচ দফা দাবি নিয়ে শিক্ষাদপ্তরে একটি ডেপুটেশন পেশ করে বিজেপির এক প্রতিনিধি দল।
বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় আরও বলেন, ‘অভিভাবকরা নিজেরাই রোজগার করতে পারছেন না। তাঁরা স্কুলের বেতন দেবেন কী করে? যে সকল পরিষেবা পড়ুয়া দের দেওয়া হচ্চে না তার ফিজ কেন নেওয়া হচ্ছে স্কুল বন্ধ থাকা সত্ত্বেও? ফিজ বৃদ্ধির কথা বলে মুখ্যমন্ত্রী কথা ঘুরিয়ে দিচ্ছে। বর্তমানে যা ফিজ আছে, সেটা মকুব করা হোক শীঘ্রই। বেসরকারি স্কুলগুলো থেকে কি মমতা ও তার ভাইপোর কিছু স্বার্থ আছে, তাই জন্যেই কি পিসি-ভাইপো স্কুলের ফিজ মকুব করছে না? পার্থ চট্টোপাধ্যায় এতদিন ধরে নিজের বাড়ির মধ্যে প্রেস কনফারেন্স করেছে, মুখ্যমন্ত্রীর কথা বলছেন, কিন্তু অভিভাবকদের বক্তব্য শোনার সময় নেই। সরকার যদি ফিজ মুকুব না করে, তাহলে জেলায়-জেলায় এই আন্দোলন করা হবে।’
পূর্বঘোষিত কর্মসূচি হলেও, এদিন কোনওরকম অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে বিকাশ ভবনের সামনে প্রচুর পুলিশ মোতায়েন করেছিল বিধাননগর কমিশনারেট। বৃষ্টি উপেক্ষা করে পূর্বঘোষিত কর্মসূচিতে যোগ দিলেন সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়, সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু, বিজেপি জেলা সভাপতি কিশোর কর এবং শিক্ষক সেলের অন্যান্য নেতানেত্রীরা। তবে বেলা ১২টা থেকে শুরু হওয়া বিক্ষোভে তেমন অশান্তি হয়নি। বিজেপি নেতৃত্ব অবস্থান থেকেই নিজেদের বক্তব্য রেখেছে। নেতাদের হুঁশিয়ারি, অবিলম্বে রাজ্যের স্কুলগুলি এই বাড়তি ফি মকুব না করলে আন্দোলন জারি থাকবে। এ ব্যাপারে রাজ্য সরকারকে আরও দায়িত্বশীল হওয়ার দাবিও তুলেছেন লকেট চট্টোপাধ্যায়, সায়ন্তন বসুরা।

Related Articles

Back to top button
Close