fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

নিশীথ প্রামানিক সাংসদ কার্যালয় উদ্বোধনের আগেই ভাঙচুরের অভিযোগ, চাঞ্চল্য দিনহাটায়

নিজস্ব সংবাদদাতা দিনহাটা: সাংসদ নিশীথ প্রামানিক দিনহাটায় সাংসদ কার্যালয় উদ্বোধনের আগেই ভাংচুরের অভিযোগ কে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ল । বুধবার দিনহাটা শহরের ১ নম্বর ওয়ার্ডে এই ঘটনা ঘটে । এই ঘটনায় অভিযোগ উঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। এলাকারই এক ব্যক্তির বাড়িতে এই সাংসদ কার্যালয়ের কাজ শুরুর কথা ।

বিজেপির অভিযোগ, এলাকার প্রাক্তন কাউন্সিলর বিধায়ক উদয়ন গুহ ঘনিষ্ঠ জয়দীপ ঘোষের নেতৃত্বে সংসদ কার্যালয় এদিন উদ্বোধনের আগেই ভাঙচুর চালানো হয়।বুধবার সন্ধ্যায় দিনহাটা শহরের মদনমোহন পাড়া এলাকায় সাংসদ অফিস উদ্বোধন হওয়ার কথা। তার আগেই এই ভাঙচুরের ঘটনায় দিনহাটার রাজনৈতিক মহলে শোরগোল পড়ে গিয়েছে।তৃণমূল নেতা বিধায়ক উদয়ন গুহ বলেন,”জনবসতি এলাকায় দলীয় কার্যালয় নিয়ে পুরসভার কোন অনুমতি নেই। এলাকার লোকেরা এর প্রতিবাদ করেছে। তবে ভাঙচুরের কোনো ঘটনা ঘটেনি।”

বিজেপির দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সাংসদের কাছে বিভিন্ন সময়ে সাধারণ মানুষ নানা কাজ নিয়ে যান। অন্যান্য এলাকাতেও সাংসদ কার্যালয় হয়েছে। দিনহাটা তে ও সাংসদ কার্যালয়ের জন্য একজনের বাড়ি নেওয়া হয়েছে। সেখানে সেই কার্যালয় উদ্বোধনের আগেই এদিন তৃণমূলের স্থানীয় প্রাক্তন কাউন্সিলার জয়দীপ ঘোষের নেতৃত্বে দুষ্কৃতীরা ভাঙচুর চালায়। এবং ঘরের ভিতরে মদের বোতল রেখে দিয়ে বিজেপি দল ও সাংসদকে কালিমালিপ্ত করার চেষ্টা করা হচ্ছে।
এদিকে এদিন ঘটনার খবর পেয়ে দিনহাটা থানার পুলিশ সেখানে ছুটে যায়। গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেন। এরপর সেই ঘরে তালা ঝুলিয়ে দেয় পুলিশ।

পুরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের প্রাক্তন কাউন্সিলর কো-অর্ডিনেটর জয়দীপ ঘোষ বলেন,”গত কয়েকদিন ধরে বাসিন্দারা তার কাছে অভিযোগ জানান এলাকার এক বাড়ি বিজেপি দলের পক্ষ থেকে দখল করে দলীয় কার্যালয় করার চেষ্টা করা হচ্ছে। এই খবর পেয়ে এদিন তিনি এসে দেখেন ঘরের ভিতরে বেশ কয়েকজন মহিলা ও পুরুষ মদের আসর বসিয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করতেই পালিয়ে যায়।সঙ্গে সঙ্গে তারা পুলিশকে খবর দেন। খবর পেয়ে পুলিশ এসে গোটা ঘটনা দেখে ওই ঘরে তালা ঝুলিয়ে দেয়। যদি বিজেপি দলের কার্যালয় হয়ে থাকে তাহলে সেখানে কেন মদের বোতল ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখা হয়েছে তা নিয়েও তিনি প্রশ্ন তোলেন। স্থানীয় কাউন্সিলর হিসেবে তার ওয়ার্ডে এক ব্যক্তির বাড়ি দখল করে দলীয় কার্যালয় হচ্ছে জানতে পেরেই তিনি সেখানে আসেন। ভাংচুরের কোনো ঘটনাই ঘটেনি। বিজেপি রাজনীতি করার চেষ্টা করছে।”

বিষয়টি নিয়ে তৃণমূলের কোচবিহার জেলা সভাপতি পার্থ প্রতিম রায় বলেন,”এধরণের কোন ঘটনা কথা জানা নেই। ভোট আসছে তাই সাংসদ দেড় বছর পরে এলাকায় কার্যালয় খুলে মানুষকে মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে।”
সাংসদ নিশীথ প্রামানিক বলেন,”ওটা কোনো দলীয় কার্যালয় হচ্ছে না। সাংসদ কার্যালয় হচ্ছে। যেখান থেকে মানুষ তাদের বিভিন্ন রকম পরিষেবা যেমন পাবে তেমনি তাদের নানা সমস্যার কথা জানাতে পারবে। তৃণমূলের দিনহাটার বিধায়ক ভয় পেয়ে যাচ্ছে। তাই কার্যালয় চালুর আগেই ভাঙচুর করে নিকৃষ্ট রাজনীতির পরিচয় দিয়েছে। মানুষ এর উপযুক্ত জবাব দেবে।”

দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দত্ত বলেন,”গন্ডগোলের খবর পেয়ে পুলিশ গেলে সেখানে কেউ ছিল না। পুলিশ সেখানে থাকা তালা ওই ঘরে লাগিয়ে দেয়।”

Related Articles

Back to top button
Close