fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বিজেপিকে দমানোর জন্য বিহার ঝাড়খন্ড থেকে গুন্ডা ভাড়া করে আনছে তৃণমূল: রাজু 

জয়দেব লাহা, দুর্গাপুর: ‘তৃণমূলকে সমর্থন করলে খুনি, ডাকাত, মাফিয়া হন, সবকিছুই মাফ। তৃণমূলে ভাল মানুষ নেই। বিহার, ঝাড়খন্ড থেকে গুন্ডা ভাড়া করে নিয়ে আসছে বিজেপিকে দমানোর জন্য।’ বৃহঃস্পতিবার দুর্গাপুরে দলীয় কর্মসুচীতে এসে এমনই বিষ্ফোরক অভিযোগ তুললেন বিজেপির রাজ্য সহ সভাপতি রাজু ব্যানার্জী। পাশাপাশি তিনি দৃঢ়তার সঙ্গে বলেন,’ মমতা ব্যানার্জী মাফিয়া, পুলিশ রুখতে পারবে না। মানুষ নির্নয় নিয়েছে, ২০২১ বিজেপি ক্ষমতায় আসছে।’

প্রসঙ্গত, ২০২১ রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করেছে গেরুয়া শিবির।
দুর্গাপুজো শেষ হতে বাংলা দখলে মরিয়া বিজেপি পুরোদমে ময়দানে নেমেছে। আগামী ৬ নভেম্বর রাজ্যে বেশ কয়েকটি জেলায় দলীয় কার্যালয় উদ্বোধন ও সাংবাদিক সম্মেলন করবেন বিজেপির সর্ব ভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। ইতিমধ্যে তার প্রস্তুতি শুরু করেছে রাজ্য বিজেপি। রাজ্যের কয়েকটি জোন প্রস্তুতি বৈঠক শুরু করেছে। বৃহঃস্পতিবার ছিল দুর্গাপুরে রঢ়বঙ্গ জোনের বৈঠক।

এদিন বিজেপির সাংগঠনিক আসানসোল, কাটোয়া, বর্ধমান সদর, বিষ্ণুপুর, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, বীরভুম সাত জেলার সভাপতি, সম্পাদক, পর্যবেক্ষকদের নিয়ে বৈঠক ছিল। উপস্থিত ছিলেন বিজেপির সর্ব ভারতীয় সাধারন সম্পাদক শিবপ্রকাজী, বাঁকুড়ার সাংসদ সুভাষ সরকার, বিজেপির রাজ্য সহ সভাপতি রাজু ব্যানার্জি প্রমুখ। এদিন রাজু ব্যানার্জীর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন,” তৃণমূলে মানুষ নেই। একশ্রেনীর পুলিশ, মাফিয়া, গুন্ডা, হার্মাদ রয়েছে। বিজেপিকর্মীদের কেস দিয়ে, খুন করে, ভয় দেখিয়ে ঘরে ঢোকানোর প্রচেষ্টা চলছে। তবে মমতা ব্যানার্জি পুলিশ, মাফিয়া দিয়ে রুখতে পারবে না। মানুষ নির্নয় নিয়ে নিয়েছে। ২০২১ বাংলায় বিজেপি ক্ষমতায় আসছে।” এদিন বিমল গুরুঙের তৃণমূলকে সমর্থন করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন,” লোকসভায় জঙ্গলমহলে হেরেছে। তাই ছত্রধর মাহতোর মত মাওবাদী মামলার অভিযুক্তকে তৃণমূল এনেছে। উত্তরবঙ্গে হেরেছে, তাই বিমলগুরুঙের মতো, যার বিরুদ্ধে দেশ বিরোধী মামলা, পুলিশ অফিসার খুনের মামলা রয়েছে। তাকে এনেছে।”

তিনি বলেন,” তৃণমূলে ভাল মানুষ নেই। পুলিশ খুন করবে, তারা তৃণমূল নেতা। মা-বোনেদের ইজ্জত লুট করবে, তারা তৃণমূল নেতা। কাটমানি খাবে, তারা তৃণমূল নেতা। তৃণমূলকে সমর্থন করলে খুনি, ডাকাত, মাফিয়া হন, সবকিছুই মাফ। আমরা এই ব্যাবস্থার অবসান ঘটাবো।” এদিন বিমলগুরুঙের গোর্খাল্যান্ড দাবী প্রসঙ্গে রাজু ব্যানার্জী বলেন,” আমরা স্পষ্ট বলেছিলাম, বাংলা বিভাজন চাই না। আমরা পাহাড়বাসীর পক্ষে কথা বলেছিলাম। পাহাড়ে উন্নয়ন হয়নি। তাই আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা হবে।” রাজ্যে বিগত পুরসভা ও পঞ্চায়েত ভোটে বহিরাগতদের দাপাদাপি রিগিং, সন্ত্রাসের প্রসঙ্গ টেনে তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিষ্ফোরক অভিযোগ তুলে তিনি বলেন,” বিহার, ঝাড়খন্ড থেকে গুন্ডা ভাড়া করে নিয়ে আসছে বিজেপিকে দমানোর জন্য। তবে আমরা বুলেটের মাধ্যমে নয়, ব্যালটের মাধ্যমে ভোটে জিতব।” এদিকে রাজু ব্যানার্জীর পাল্টা প্রতিক্রিয়ায় অভিযোগ অস্বীকার করে বিজেপিকে খোঁচা দিয়ে তৃণমূলের পশ্চিম বর্ধমান জেলা সভাপতি জিতেন্দ্র তেওয়ারী বলেন,” বিহারে বিজেপির এনডিএ সরকার। ঝাড়খন্ডেও এনডিএ সরকার ছিল। তাহলে তাদের সরকার বিহারে সমাজবিরোধীদের পুষে রেখেছে।” তিনি আরও বলেন,'” রাজনৈতিক প্রচারে তৃণমূল নেতৃত্ব থাকেন। আর বিজেপির মুম্বই, দীল্লি থেকে বহিরাগতরা প্রচারে আসেন।”

Related Articles

Back to top button
Close