fbpx
কলকাতাপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বিধানসভা নির্বাচনের আগে দলে ভাঙন বিজেপির

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের আগে বড়োসড়ো ভাঙন রাজ্য বিজেপিতে। বুধবার দিলীপ ঘোষের সংসদীয় এলাকা ঘর পুর থেকে চারজন বিজেপি নেতা এসে যোগ দিলেন ঘাসফুল শিবিরে। অন্যদিকে এদিন ৫০ জন বিজেপি কর্মী তৃণমূল ভবনে এসে যোগ দেন শাসকদলে। এদিন তৃণমূল ভবনে তাদের হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন তৃণমূল নেত্রী তথা রাজ্যের স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য।

এদিন খড়্গপুরের সংসদ প্রতিনিধি কমিটির সদস্য রাজদীপ গুহ, বিজেপির খড়্গপুরের উত্তর মন্ডল প্রাক্তন সভাপতি অজয় চট্টোপাধ্যায়, খড়্গপুরের বিজেপির শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি শৈলেন্দ্র সিং এবং খড়্গপুরের বিজেপি নেতা সজল রায় সংশ্লিষ্ট তৃণমূলের জেলা সদর দফতরে গিয়ে দলবদল করেন। এদিন দিলীপ ঘোষ কে কটাক্ষ করে চন্দ্রিমা বলেন, “দিলীপ ঘোষের শুধু মুখ রয়েছে সেই মুখ তিনি কীভাবে ব্যবহার করবেন তা ওনার ব্যাপার। দিলীপ ঘোষের তাসের ঘর এখন ভেঙে পড়ছে”। একই সঙ্গে তিনি এদিন কৃষি বিল সহ আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্প নিয়ে সরব হয়েছেন। ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি জানিয়েছেন, “বিজেপির হঠকারী সিদ্ধান্ত নিয়ে দেশ চালানো যায় না”। পাশাপাশি আয়ুষ্মান ভারত যোজনার টাকার মতো রাজ্য স্বাস্থ্য সাথীর টাকাও যে গ্রাহকরা সরাসরি পাচ্ছেন হিসেবে দাবি করেছেন চন্দ্রিমা।

আরও পড়ুন: তৃণমূল কংগ্রেস পুর নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত, আত্মবিশ্বাসী ফিরহাদ

এদিকে বিধানসভা নির্বাচনের আগেই বিজেপিতে ভান্দরি এইভাবে তৃণমূলে যোগদান পর্ব যে গেরুয়া শিবিরের জন্য খুব একটা সুখের বার্তা বয়ে আনেনি তা বলাই বাহুল্য। এদিকে একের পর এক নেতার তৃণমূলে যোগ দেওয়ায় ঘাসফুল শিবির যে পালে হাওয়া পাচ্ছে তা অচিরেই বুঝতে পারছে রাজনৈতিক দলগুলি। যদিও এই দলবদল প্রসঙ্গে বিজেপির রাজ্য সভাপতি তথা সাংসদ দিলীপ ঘোষ জানান, “দু চারজন লোভী মানুষ দলে থাকে। তাদের চাকরি দেওয়ার লোভ করে হয়তো নিয়ে গেছে। এরা দল ছেড়ে চলে গেলে বিজেপির খুব একটা ক্ষতি হবে না”।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close