fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বিজেপি সারা বছরই মানুষের পাশে থাকে: দিলীপ ঘোষ

মনোজ চক্রবর্তী, হাওড়া: রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস, একাধিকবার অভিযোগ তুলেছে বিজেপি মানুষের পাশে থাকে না। এবার সেই অভিযোগ ফুৎকারে উড়িয়ে দিলেন বি জে পির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। মঙ্গলবার হাওড়ায় কেন্দ্রে বিজেপির সরকারের প্রথম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে জনসাধারণকে লেখা প্রধানমন্ত্রীর চিঠি নিয়ে জনসংযোগ যাত্রা শুরু করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এদিন দুপুর বেলায় মধ্য হাওড়ার ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের ৭৫ নম্বর বুথ থেকে তিনি ওই সম্পর্ক যাত্রা শুরু করেন। বৃষ্টির মধ্যেই দলের অন্যান্য কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ওই চিঠি বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেন।

এদিন তিনি বলেন,”তৃণমূল বলছে বিজেপি মানুষের সঙ্গে থাকে না।কিন্তু রাজনৈতিক দল হিসেবে সারা বছরই আমরা জন সম্পর্ক চালিয়ে যাই।” বিজেপি সরকারের দ্বিতীয় দফার বর্ষপূর্তি উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য তুলে ধরার এই কর্মসূচিতে মানুষের উল্লেখযোগ্য সাড়া পাওয়া যাচ্ছে বলে জানান তিনি। এদিন সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে মুকুল রায়ের রাজ্য সরকারের করোনা মোকাবিলা নিয়ে প্রশংসা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “কে কার প্রশংসা করেছেন সেটা তার জানা নেই। তবে এ রাজ্যে সামাজিক দূরত্ব থেকে শুরু করে ন্যূনতম সাবধানতা কোনটাই মানা হচ্ছে না। ঠিকঠাক মানা হয়নি লকডাউনও। সেইজন্য সংক্রমণ বেশি হচ্ছে এ রাজ্যের। এছাড়া তিনি আরও জানান, “তার দলের সমস্ত কর্মীরই গুরুত্ব রয়েছে। মুকুল রায়কে কাজ করার যথেষ্ট সুযোগ দেওয়া হয়েছে। মুকুল রায়ের সঙ্গে বিজেপির দূরত্বের কথা সরাসরি অস্বীকার করেছেন দিলীপবাবু।

অন্যদিকে আন্তর্জাতিক বাজারে ক্রমশ নিম্নমুখী পেট্রোল-ডিজেলের দাম। তবু এই দেশে দাম আপাতত কমেনি।- এ প্রসঙ্গে দীলিপবাবু জানান, “আমাদের দেশে তেলের দাম আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দামের ওপর নির্ভরশীল। এর আগে যখন আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কমে ছিল তখন দেশেও দাম কমানো হয়েছিল। এখন আন্তর্জাতিক বাজারে বেড়েছে তাই দেশে তেলের দাম ঊর্ধ্বমুখী। তবে এ বিষয়ে তেল কোম্পানিগুলো নিজেদের মতো করে দাম ঠিক করেন বলেও মন্তব্য করেন তিনি। পাশাপাশি রাজ্যে ক্রমাগত বাড়তে থাকা করোনা সংক্রমণ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে লকডাউন বাড়ানোর পক্ষে মত দেন তিনি।

 তবে এদিন হাওড়া পুর এলাকার  পাঁচটি  ওয়ার্ডে  আইসিএমআরের গাইডলাইন  মেনে অ্যান্টিবডি অ্যালাইজা টেস্ট শুরুর প্রশংসা করেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। মঙ্গলবার তিনি বলেন, এই উদ্যোগ ভালো। এ যা অসুখ বেড়িয়েছে তার ওষুধ  নেই। তাই নতুন পরীক্ষামূলক প্রয়োগ হওয়া উচিত । যাতে মানুষ সতর্ক হবেন। পরবর্তীকালে এর জন্য  আমরা ভালো কিছু অপেক্ষা করব।

তিনি বলেন, করোনা ও আমফানের জন্য অনেকে রেশন পাচ্ছেন না। অথচ প্রধানমন্ত্রী তিন মাসের রেশনের ব্যবস্থা করেছেন। ঝড়ে যাদের বাড়ি ভেঙে গিয়েছে তারা টাকা ও ত্রিপল পাচ্ছেন না। যাদের আছে  তারা এই সুবিধা পাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে বাংলা বাদ কারণ এক তৃণমূল নেতার মতে এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী আমফানের জন্য টাকা চাইবেন বলে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে কিনা, এই প্রশ্নের উত্তরে দিলীপবাবু  জানান, এর আগে ছ’বার ভিডিও কনফারেন্সে মুখ্যমন্ত্রী অনুপস্থিত ছিলেন। আসলে উনি এসব করেন ‘নিউজ হবে বলে”।

প্রসঙ্গত এদিন বৃষ্টিকে উপেক্ষা করে মানুষের কাছে গিয়েছিলেন দিলীপ ঘোষ। যেভাবে মানুষ দিলীপবাবুর কথা শুনেছেন তাতে পুরভোটে বিজেপি বেশ ভালো ফল করতে চলেছে বলেই মনে করছে রাজনৈতিক ওয়াকিবহাল মহল।

 

Related Articles

Back to top button
Close