fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কালনায় গণ প্রহারে মৃত্যু বিজেপি কর্মীর, অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে

নিজস্ব সংবাদদাতা, কালনা: এক বিজেপি কর্মীকে পিটিয়ে মারার অভিযোগ উঠলো পূর্ব বর্ধমানের কালনায়। আর এই অভিযোগের তির উঠেছে তৃণমূলের কর্মী সমর্থকদের বিরুদ্ধে।একশো দিনের কাজে নিজেদের জায়গার উপর থাকা একটি গাছ কাটার ঘটনার প্রতিবাদ করায় তাকে পিটিয়ে মারা হয়েছে বলে অভিযোগ বিজেপি নেতৃত্বের। শনিবার এইরকমই এক ঘটনায় ব্যাপক চান্চল্য ছড়ালো পূর্ব বর্ধমানের কালনা থানার পাথরঘাটা এলাকায়।মৃত ব্যক্তির নাম রবীন পাল (৪১)।তার বাড়ি ওই এলাকাতেই।খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্তে নামে কালনা থানার পুলিশ।আর এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাপানউতোর তৈরী হয় বিজেপি ও তৃণমূলের  বিরুদ্ধে।এলাকায় রয়েছে চাপা উত্তেজনা।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায় যে, কালনার পিন্ডিরা পন্চায়েতের পাথরঘাটা এলাকায় শণিবার সকালের দিকে একশো দিনের কাজে নিকাশী নালা পরিষ্কার ও গাছ কাটার কাজ চলছিলো।সেইসময় রবীন পাল নামে ওই ব্যক্তির জায়গার উপর থাকা একটি গাছ কাটছিলো বাদল পাত্র নামে একশো দিনের কাজের এক কর্মী।সেইসময় রবীনবাবু তার প্রতিবাদ করে ও বাঁধা দেয়।এরপরেই তার হাতে থাকা এক ধারালো অস্ত্র দিয়ে বাদল পাত্রকে কোপ দেয় বলে অভিযোগ।এরপরেই এই ঘটনার জেরে রবীন পালকে গণধোলাই দেয়।গুরুতর জখম অবস্থায় তাকে কালনা মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি করা হলে দুপুর সাড়ে বারোটা নাগাদ তার মৃত্যু হয়।এই বিষয়ে মৃতের ভাই দানু পাল বলেন,‘দাদা বিজেপি করতো।শণিবার সকালে একশো দিনের কাজ চলছিলো।আমিও কাজ করছিলাম।আমাদের জায়গার উপর থাকা একটি গাছ সেইসময় কাটছিলো বাদল পাত্র।দাদা তার প্রতিবাদ করে। বচসা ও ধ্বস্তাধ্বস্তি হয়।সেইসময় দাদার হাতে থাকা একটি কাটারিতে জখম হয় বাদল পাত্র।তা দেখেই বেশ কয়েকজন দাদাকে বাঁশ দিয়ে পেটায়।এরপরেই কালনা হাসপাতালে ভর্তি করা হলে দাদার মৃত্যু হয়। এইভাবে পিটিয়ে মারার ঘটনায় দোষীদের উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানাই।’
মৃত ব্যক্তি দলের সক্রিয় কর্মী ছিলেন বলে জানান বিজেপির ২০ নং জেড পির সভাপতি সুভাষ পাল ও জেলা সহ সভাপতি সুশান্ত পান্ডে।এই বিষয়ে তাদের অভিযোগ, ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে আমাদের বিজেপি কর্মীকে পিটিয়ে মেরে ফেলা হয়েছে।পিটিয়ে মারার মতো এই ন্যক্করজনক ঘটনার প্রতিবাদ জানাই।বিজেপি করার অপরাধেই এই ঘটনা ঘটিয়েছে তৃণমূল আশ্রিত লোকজনেরা।দোষীদের উপযুক্ত শাস্তির দাবি জানাই।’যদিও এই ঘটনায় তৃণমূলের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই বলে জানান তৃণমূলের ব্লক সভাপতি প্রণব রায়।এই বিষয়ে তিনি বলেন,‘এই ঘটনার সঙ্গে রাজনৈতিক কোনো সম্পর্ক নেই।আর যিনি মারা গেছেন ওই ব্যক্তি কোনো দলের সঙ্গেই যুক্ত নয়।বিজেপি এই ঘটনায় রাজনৈতিক রং লাগানোর চেষ্টা করছে।মিথ্যা অভিযোগ তুলছে।কারণ ওই ব্যক্তির অসংলগ্ন আচরণে এলাকার মানুষজন বেশ ক্ষিপ্ত ছিলো।তার মধ্যেই একটা ঘটনা ঘটেছে।কোনো মৃত্যুই কাঙ্খিত নয়।’এই বিষয়ে জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(গ্রামীণ) ধ্রুব দাস বলেন,‘একটা ঘটনা ঘটেছে।তদন্ত শুরু হয়েছে।উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

Related Articles

Back to top button
Close