fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

লাউদোহায় বিজেপিকর্মীদের ওপর হামলার অভিযোগ, গাড়ি ভাঙচুর, আহত ৯

জয়দেব লাহা, দুর্গাপুর:- আক্রান্তকর্মীর খোঁজ নিতে গিয়ে বাধার মুখে বিজেপি নেতৃত্ব। থানায় নালিশ জানিয়ে ফেরার পথে বিজেপিকর্মীদের ওপর হামলার অভিযোগ উঠল তৃণমূলের বিরুদ্ধে। গাড়ি ভাঙচুর, কর্মীদের মারধর। বৃহস্পতিবার ঘটনাকে ঘিরে চরম উত্তেজনা ছড়াল দুর্গাপুরের লাউদোহা থানা সংলগ্ন এলাকায়। ঘটনায় আহত হয়েছে ৯ জন। আহতরা দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। খবর পেয়ে পরিস্থিতি সামাল দেয় পুলিশ। অভিযোগ অস্বীকার করেছে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব।

ঘটনায় জানা গেছে, লাউদোহার পানশিউলি গ্রামে আক্রান্ত এক বিজেপিকর্মীর বাড়িতে যাচ্ছিলেন বিজেপির আসানসোল জেলা নেতৃত্ব। প্রতিনিধি দলে ছিলেন বিজেপির আসানসোল জেলার সভাপতি লক্ষ্ণণ ঘোড়ুই, বিজেপির টিচার্স সেলের জেলা আহ্বায়ক বিকাশ বিশ্বাস সহ অন্যান্য জেলার কার্যকর্তারা।

জেলা সভাপতি লক্ষ্ণণ ঘোড়ুই জানান,” দুদিন আগে পানশিউলি গ্রামের দলের সক্রিয় কর্মী সরোজ বাউড়িকে অপহরণ করে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা তাকে নির্মমভাবে মারধর করা হয়। কমিশনারকে জানানোর পর পুলিশ তাকে উদ্ধার করে লক-আপে রেখেছিল।

সেখানে চিকিৎসা না করিয়ে উল্টে নানারকম হুমকি, ভয় দেখিয়ে মুচলেকা লিখিয়ে ছাড়া হয়। আতঙ্কিত ওই কর্মীর বাড়িতে যাচ্ছিলাম। কিন্তু গ্রামে ঢোকার পথে পুলিশ আটকে দেয়।”

তার প্রতিবাদে গ্রামে ঢোকার মুখে বসে পড়ে বিজেপিকর্মীরা। পরে থানা যায় অভিযোগ জানানোর জন্য। থানায় অভিযোগ জানিয়ে ফেরার পথে বিজেপির ওই প্রতিনিধি দলের ওপর হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ। বিজেপির আসনসোল জেলা সভাপতি লক্ষ্মণ ঘোড়ুই জানান,” থানার বাইরে বেরিয়ে আসার পরই তৃণমূলের লোকজন লাঠি, রড নিয়ে আমাদের ওপর অতর্কিতে হামলা চালায়। আমাদের ৪ টা গাড়ীতে ভাঙচুর করে। আমাকে ও কর্মীদের এলোপাথাড়ি মারধর করে। ৯ জন আহত হয়েছে।

বিকাশ বিশ্বাস নামে শিক্ষক সংগঠনের জেলা আহ্বায়কের মাথায় গুরুতর জখম হয়।” অভিযোগে লক্ষ্ণণ ঘোড়ুই বলেন, ” লকডাউনে পুলিশ প্রশাসন দ্বিচারিতা করছে। বিজেপিকর্মীদের সেবাকাজে বাধা দেওয়া হচ্ছে। গত কয়েকদিন ধরে অন্ডাল,কাঁকসা ও লাউদোহায় বিজেপিকর্মীদের ওপর আক্রমণ হয়েছে। তার প্রতিবাদে মহকুমাশাসককে ডেপুটেশন দিয়েছি।” তিনি আরও বলেন, ” এদিনের ঘটনায় অভিযুক্তরা গ্রেফতার না হলে শুক্রবার মহকুমাশাসকের দফতরের সামনে ধরনায় বসা হবে।

” যদিও এদিনের ঘটনার অভিযোগ অস্বীকার করে লাউদোহা ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি সুজিত মুখোপাধ্যায় জানান, ” ঘটনায় দলের কেউ জড়িত নয়। ভিত্তিহীন অভিযোগ। লকডাউনের মধ্যেও বিজেপি নেতৃত্ব এলাকায় এসে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করে। গ্রামবাসীরা সম্মিলিতভাবে তার প্রতিবাদ করেছে।” পুলিশ জানিয়েছে,” লিখিত কোনও অভিযোগ আসেনি। এলাকায় পরিস্থিতি স্বাভাবিক।”

 

 

Related Articles

Back to top button
Close