fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

লাউদোহায় বিজেপিকর্মী খুনে ধৃত মা ও দাদা সহ ৩ জন

জয়দেব লাহা, দুর্গাপুর: দুর্গাপুরে বিজেপি কর্মীকে খুনের অভিযোগে গ্রেফতার হল মা ও দাদা সহ ৩ জন। পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, ধৃতদের নাম সুলোচনা শোঁ মৃত স্বরূপ শোঁ য়ের মা, অরূপ শোঁ দাদা। এছাড়াও শেখ ইব্রাহিম নামে আর একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার তাদের আদালতে তোলা হলে বিচারক তাদের জামিন খারিজ করে দেন।
 উল্লেখ্য, গত ৯ নভেম্বর লাউদোহার প্রতাপপুরে স্বরূপ শোঁ নামে এক বিজেপিকর্মীর মৃতদেহ উদ্ধার হয়। তার আগের দিন থেকে নিখোঁজ ছিল ওই যুবক। স্বরূপ শোঁ দুর্গাপুর ১ নম্বর ওয়ার্ডের পারুলিয়া এলাকার বাসিন্দা। মৃতদেহ উদ্ধারকে ঘিরে শুরু হয় রাজনৈতিক চাপানউতোর। এরপর প্রতিবাদের সরব হয় বিজেপি। তৃণমূল আশ্রিত দুস্কৃতিদের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ তোলে। দোষীদের কঠোর শাস্তির দাবি তোলা হয়।পাশাপাশি সিবিআই তদন্তের দাবী তোলে বিজেপি।
ঘটনার অপরাধীদের শাস্তির দাবীতে ঘেরাও হয় দুর্গাপুর এডিপিসি অফিস। উপস্থিত ছিলেন বিজেপি’র রাজ্য সহ সভাপতি রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়। যদিও শুরু থেকে রাজনীতির রং লাগানোর অভিযোগ তোলে তৃণমূল।
স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রায় ১০ বছর আগে স্বরূপবাবুর বাবার মৃত্যুু হয়। তাদের জমি জায়গা রয়েছে। কয়েক বছর আগে জমি বিক্রি করে মোটা অঙ্কের টাকা পায় স্বরূপের মা ও ভাই। কিন্তু স্বরূপ ব্যবসা করার জন্য টাকা চাইতেই শুরু হয় সম্পত্তি নিয়ে বিবাদ। সম্পত্তি নিয়ে অশান্তি চলতেই থাকে সংসারে। এর পরেই হঠাৎই স্বরুপবাবুর রহস্যজনক মৃত্যু নিয়ে শুরু হয় রাজনৈতিক চাপানউতোর।
পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ১৬ নভেম্বর পুলিস তদন্তে নেমে এলাকার সুদয় মোহন্ত নামে একজনকে গ্রেপ্তার করে। আদালত তাকে ১০ দিনের নিজ হেপাজতে নেয় পুলিশ।  শুরু হয় রহস্য উদঘাটনের কাজ। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে মৃতের মা ও দাদা সহ ওই থানা এলাকার এক যুবক সেখ ইব্রাহিমের নাম জানতে পারে। জানা যায় সুলোচনাদেবী এক লক্ষ টাকার চেক দিয়েছিল সুদয় মহন্তকে। কেন দিয়েছিলো সে বিষয়টি এখনও প্রশ্ন রয়েছে। পুলিস সুদয়ের মোবাইল ফোন থেকে তথ্য সংগ্রহ করে। ওই চেকটি সহ ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট বাজেয়াপ্ত করে পুলিশ
। তাকে গ্রেফতার করে স্বরুপবাবুর মা ও দাদা সহ অন্যান্যদের নাম পায়। অভিযোগ উঠেছে, স্বরূপকে খুনের জন্য সুপারিকিলার ব্যবহার করা হয়েছিল। তারপরই মঙ্গলবার তাদের গ্রেফতার করে পুলিশ। ধৃতদের এদিন দুর্গাপুর মহকুমা আদালতে তোলা হলে বিচারক খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত মৃতের মা ও দাদা’কে  ১৪ দিনের জেল হেপাজতের নির্দেশ দেন এবং খুনে অভিযুক্ত অপর এক যুবক সেখ ইব্রাহিম’কে তিন দিনের পুলিসি হেপাজতের নির্দেশ দেন।
ঘটনায় পশ্চিম বর্ধমান জেলার তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি জিতেন্দ্র তিওয়ারী বলেন, বিজেপি বারে বারে মুত্যু ঘিরে নোংরা রাজনীতি করে। তার প্রমান পাচ্ছে। দেখছে সাধারণ মানুষ। বিজেপি শাসিত রাজ্যগুলিতে যে খুন ও ধর্ষণ সহ দুষ্কৃতিমূলক কাজকর্ম বেড়ে গিয়েছে সেগুলি তাদের নজরে পড়ে না।”
যদিও বিজেপির রাজ্য সহ সভাপতি রাজু বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “নৃশংসভাবে আমাদের দলের সদস্যকে খুন করা হয়েছে। এর আগে চোপড়ায় একটি মেয়েকে ধর্ষন করে খুন করা হয়েছিল। ঘটনায় তৃণমূল যুক্ত ছিল। কিন্তু তার পরিবারের লোককে গ্রেফতার করা হয়েছে।” তিনি বলেন,” তৃণমূল খুন করবে আর পরিবারের লোককে মিথ্যা মামলা দেবে। পারুলিয়ার ঘটনায় রাজনৈতিক চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র করে করা হয়েছে। আমরা সিবিআই তদন্তের দাবি করেছি।”
আসানসোল-দুর্গাপুর পুলিস কমিশনারেটের ডিসি (পূর্ব) অভিষেক গুপ্তা বলেন, ঘটনায় মৃতের মা ও দাদা সহ মোট চারজন’কে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে অনুমান করা হচ্ছে শ্বাসরোধ করে খুন করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত করা হচ্ছে।”

Related Articles

Back to top button
Close