fbpx
কলকাতাহেডলাইন

বিজেপির ঘোষিত রাজ্য কমিটিতে চমক, রয়েছেন শোভন, শঙ্কুদেব পণ্ডা, প্রথম বৈঠকে ভাষণ জেপি নাড্ডার

শরণানন্দ দাস, কলকাতা: একুশের মহারণের খুব বেশি দেরি নেই। সাংগঠনিক ও কৌশলগত রণনীতি চূড়ান্ত করতে তৎপরতা সব শিবিরেই‌। সেই লক্ষ্যেই মঙ্গলবার ঘোষিত হলো বিজেপির রাজ্য কমিটি। কমিটিতে উল্লেখযোগ্য মুখ শোভন চট্টোপাধ্যায় ও শঙ্কুদেব পণ্ডা। স্থায়ী আমন্ত্রিত সদস্যের তালিকায় শোভন চট্টোপাধ্যায় ও শঙ্কুদেব পণ্ডার নাম রয়েছে। মহিলাদের মধ্যে নতুন মুখ জ্যোতির্ময়ী শিকদার, অর্চনা মজুমদার, অধ্যাপিকা বীথিকা মণ্ডল প্রমুখ। বিশেষ আমন্ত্রিতদের তালিকায় উল্লেখযোগ্য মুখ রন্তিদেব সেনগুপ্ত, রূপা গঙ্গোপাধ্যায়, স্বপন দাশগুপ্ত।

প্রসঙ্গত কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে সম্প্রতি বিজেপি ও তৃণমূলের দড়ি টানাটানি শুরু হয়। বিজেপির এ রাজ্যের সহ কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক অরবিন্দ মেনন গভীর রাতে শোভনের বাড়িতে গিয়ে বৈঠকও করেন। রাজ্য বিজেপি শোভন চট্টোপাধ্যায়কে স্থায়ী আমন্ত্রিত সদস্যের তালিকায় রেখে বার্তা দিল। তালিকায় অবশ্য বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম নেই। এখন দেখার শোভন আগামী ১০ তারিখের বৈঠকে যোগ দেন কি না? শঙ্কুদেব পণ্ডা বিজেপির যুবমোর্চায় কোন পদ না পাওয়ায় গুঞ্জন তৈরি হয়েছিল। স্থায়ী আমন্ত্রিত সদস্যের তালিকায় শঙ্কুদেবের অন্তর্ভূক্তি সব জল্পনার অবসান ঘটালো বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

মঙ্গলবার বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু বিজেপি রাজ্য দফতরে জানান’, নতুন রাজ্য কমিটির প্রথম বৈঠক হবে আগামী ১০ সেপ্টেম্বর মাহেশ্বরী ভবনে। এই বৈঠকের ভার্চুয়াল মাধ্যমে উদ্বোধন করবেন সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা। কলকাতায় থাকা দলের সাধারণ সম্পাদক, শীর্ষ রাজ্য নেতৃত্ব উপস্থিত থাকবেন। বাকি পদাধিকারীরা ভার্চুয়াল মাধ্যমে বৈঠকে যোগ দেবেন।’

আরও পড়ুন: দুর্গাপুজো নিয়ে ভুয়ো খবর যারা ছড়াছে তাদের ১০০ বার কান ধরে ওঠবোস করান’, নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রীর

তিনি বলেন, ” বিশেষ আমন্ত্রিত সদস্য, পার্টির সদস্যদের নিয়ে ১৬০ জনের রাজ্য কমিটির গড়ার সংস্থান রয়েছে।এর মধ্যে ৩৫ টি আসন নবীনাদের জন্য সংরক্ষিত, তপশিলি জাতি ও উপজাতির জন্যও সংরক্ষিত রয়েছে কিছু আসন। রাজ্য কমিটির বৈঠকে রাজ্য সভাপতিকে পরামর্শ দেওয়ার জন্য একটি কমিটি গড়া হবে। স্থায়ী আমন্ত্রিত সদস্য ও ৪২ জন জাতীয় পরিষদের সদস্য নিজেদের অধিকার বলে রাজ্য কমিটির বৈঠকে থাকতে পারেন। এই বৈঠকে রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক প্রস্তাব গ্রহণ করা হবে। রাজ্য সভাপতিকে কিছু সাব কমিটি গড়ার অধিকার দেওয়া হবে।’

তিনি এদিন আরও বলেন, ‘ আমরা ১১ সেপ্টেম্বর স্বামী বিবেকানন্দের শিকাগো বক্তৃতার ১২৭ বছর উদযাপন করবো। দুর্ভাগ্যজনকভাবে ওইদিন রাজ্যে লকডাউন রয়েছে। রাজ্য সরকার হয়তো এই দিনটার কথা ভুলে গিয়েছে। ওইদিন মণ্ডলস্তর থেকে শুরু করে বিজেপি কর্মীরা লকডাউন ভেঙে প্রকাশ্যে স্বামীজির প্রতিকৃতিতে মাল্যদান সহ বিভিন্ন কর্মসূচি করবে।’  সূত্রের খবর, একুশের বিধানসভা নির্বাচনের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে এই বৈঠকে। যেমন প্রচার কর্মসূচি, বিধানসভা ভিত্তিক পরিকল্পনা ঠিক হতে পারে। বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে কিছু কর্মসূচি ঠিক করে দিতে পারেন কেন্দ্রীয় নেতারা। একইসঙ্গে আগামী কয়েকমাস আন্দোলনের রূপরেখা কী হবে তা নিয়েও আলোচনা হতে পারে। তবে রাজ্য নেতাদের কৌতুহল থাকবে জেপি নাড্ডা কী বার্তা দেন তার উপর।

Related Articles

Back to top button
Close