fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

চোপড়াকাণ্ডে ধৃতদের জামিন না হওয়ায় স্বাধীনতা দিবসের দিনে বিজেপির জেল ভরো আন্দোলনের ডাক

দীপঙ্কর দে, ইসলামপুর: আগামী ১৫ আগস্ট ৭৪তম স্বাধীনতা দিবসের দিনে উত্তর দিনাজপুর জেলায় জেল ভরো আন্দোলনের ডাক দিল বিজেপি। চোপড়াকাণ্ডে বৃহস্পতিবারও ধৃত ২৬ জনের কারোরই ইসলামপুর আদালতে জামিন হয়নি। চোপড়াকাণ্ডে ধৃতদের পক্ষের আইনজীবী তপন কুমার মন্ডল বলেন, “এদিন ২৬ জন ধৃতের জামিনের জন্য ইসলামপুর এসিজেএম আদালতে আবেদন জানানো হয়েছিল। তবে আদালতের বিচারক জেএম ওয়ান অমন সিংঘল ধৃতদের জামিন খারিজ করে দেন এবং আগামী ২৫ আগষ্ট পরবর্তী শুনানীর দিন ধার্য্য করেছেন।”

এদিকে এদিন আদালত চত্বরে বিজেপির জেলা সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ী ও জেলা সহ সভাপতি সুরজিৎ সেন সহ প্রচুর বিজেপি নেতা কর্মীরা হাজির ছিলেন। জামিন খারিজ হওয়ার আদালতের নির্দেশ ছড়িয়ে পড়তেই বিজেপি শিবিরে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। চোপড়ার বিধায়ক হামিদুল রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ দিয়ে জোর করে বিজেপি কার্যকর্তাদের তৃণমূলে যোগদান করানো হচ্ছে বলে বিজেপি জেলা সভাপতির অভিযোগ। সবমিলিয়ে ধৃতদের জামিন না হওয়ার পাশাপাশি বিজেপির জেল ভরো আন্দোলনের ডাক চোপড়াকাণ্ডে ফের এলাকা উত্তপ্ত হয়ে ওঠার আশঙ্কা করছেন ওয়াকিবহাল মহল।

বিজেপি জেলা সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ী জানিয়েছেন, “ইসলামপুর পুলিশ জেলার এসপি ও চোপড়া আইসি চক্রান্ত করে বিজেপির কার্যকর্তাদের মিথ্যা মামলায় গ্ৰেফতার করছে। আমাদের কাছে খবর আছে চোপড়া থানায় বসে ৭০/৮০ হাজার টাকায় ডিল হচ্ছে। টাকা নেওয়ার পর একটা কাগজে সই করিয়ে তৃণমূলে যোগদান করানো হচ্ছে। তৃণমূলে যোগদান করলে মামলা থেকে মুক্তি দেওয়া হচ্ছে। যাদের মামলায় নাম আছে এরকম অনেক বিজেপি কার্যকর্তাদের গ্রেপ্তার করা হয়নি কারন তাঁরা তৃণমূলে যুক্ত হয়ে গিয়েছে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে বিষয়টি জানানো হলে তিনি বলেন তাঁদের কাছে খবর রয়েছে। তাহলে খবর থাকলে কেন চোপড়া আইসির বিরুদ্ধে পুলিশ পদক্ষেপ নিচ্ছে না। যেদিনই হিয়ারিংয়ের তারিখ পড়ছে সেদিনই পুলিশ নতুন একজনকে গ্ৰেফতার করে আদালতে পাঠাচ্ছে যাতে আমাদের কার্যকর্তাদের জামিন না হয় এই চক্রান্ত করছে পুলিশ। হামিদুল রহমানের নেতৃত্বে পুলিশকে দিয়ে চক্রান্ত করে চোপড়া সহ উত্তর দিনাজপুর জেলায় বিজেপির স্বাধীনতা খর্ব করা হচ্ছে, গণতন্ত্রের হত্যা করা হচ্ছে। জোরপূর্বক বিজেপি কার্যকর্তাদের পুলিশ দিয়ে তৃনমুলে যোগদানের চক্রান্ত করা হচ্ছে। আমাদের যখন স্বাধীনতাই হরণ করা হয়েছে। তাই আগামী ১৫ আগষ্ট স্বাধীনতা দিবসের দিনে উত্তর দিনাজপুর জেলার সমস্ত বিধানসভায় জেল ভরো আন্দোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”

Related Articles

Back to top button
Close