fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আমফান দুর্নীতি বিরোধিতা সহ একাধিক দাবিতে ক্যানিং এসডিও অফিসের সামনে বিজেপির অবস্থান বিক্ষোভ

বাবলু প্রামানিক, দক্ষিণ ২৪ পরগনা: শুক্রবার দক্ষিণ ২৪ পরগনার সকাল ১১ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত মাতলা বৃক্ষ বন্দনা গার্ডেন সংলগ্ন ক্যানিং মহকুমা শাসক কার্য্যলয়ের সামনে কয়েকশো বিজেপি কর্মী সমর্থক বিজেপির রাজ্য ও জেলা স্তরের নেতৃত্বে বিভিন্ন দাবিতে অবস্থান বিক্ষোভ দেখায় এবং ধর্নায় রাস্তায় বসে পড়ে। এদিন অবস্থান বিক্ষোভে উপস্থিত ছিলেন রাজ্য বিজেপির সেক্রেটারি অরুন হালদার, রাজ্য কমিটির সদস্য মৌসুমী বিশ্বাস, বিজেপির জেলা মহিলা মোর্চার সম্পাদিকা মামনি দাস, জেলা বিজেপির সম্পাদক সঞ্জয় নায়েক প্রমুখ।

এদিন বিজেপির পক্ষ থেকে বলেন, আমফানে ব্যাপকভাবে দুনীর্তি হয়েছে। আমফানে প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্তরা এখনও ক্ষতিপূরণ পায়নি। এই দুনীর্তির সাথে যারা জড়িত তাদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে আইনী ব্যবস্থা নিতে হবে। এমনকি মহত্মা গান্ধী জাতীয় গ্রামীণ কর্মনিশ্চয়তা প্রকল্পের ১০০ দিনের কাজে জব কার্ডের বেনিফিসিয়ারিদের কাছ থেকে কাটমানি নেওয়া হচ্ছে। প্রকৃত গরীব মানুষরা ১০০ দিনের কাজ পাচ্ছে না। আর যারা কাজ করছে না তাদের মাষ্টার রোল করে অ্যাকাউন্টে টাকা ঢুকিয়ে কাটমানি নেওয়া হচ্ছে। যারা কাটমানি নিচ্ছে তাদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে আইনী ব্যবস্থা নিতে হবে।

এমনকি প্রধানমন্ত্রী আবার যোজনা,সড়ক যোজনা সহ বিভিন্ন প্রকল্প অবাধে চলছে কাটমানির রমরমা। পুলিশ দলদাস হয়ে কাজ করছে। শাসক দল বিভিন্ন স্থানে মিছিল কর্মীসভা করছে মুখে মাক্স না পড়ে এবং সামাজিক দূরত্ব না মেনে।তখন পুলিশ চুপ।

বিজেপির জেলা সম্পাদক সঞ্জয় নায়েক বলেন, ক্যানিং মহকুমা শাসক কার্য্যলয় থেকে ঢিল ছোঁড়া দূরত্বে ক্যানিং মাতলা নদীতে অবাধে ফেলা হচ্ছে প্লাস্টিক, থার্মোকল, ময়লা আর্বজনা। অথচ বিভাগীয় দফতর গুলি নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে।তাই অবলম্বে এই সব বন্ধ করে নির্দিষ্ট স্থানে স্থায়ী ভ্যাট তৈরি করতে হবে এই সব ময়লা আর্বজনা ফেলার জন্য। ক্যানিং এসডিও রোড সুন্দরবন মেলা মাঠ সংলগ্ন মাতলা বৃক্ষ বন্দনা এস এইচ জি স্বনির্ভর গোষ্ঠী মহিলাদের উদ্যোগে তৈরি নব নির্মিত বনসৃজনের গার্ডেনটি ক্যানিং মহকুমা শাসকের অধীনস্থ করে সংরক্ষণ করতে হবে প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষার্থে এবং সুন্দরবনের পযটকদের আকর্ষণীয় করে তুলতে। পাশাপাশি এই গার্ডেনটিতে যাতে অসাধু লোকজন জবরদখল করে দোকান পাট না বসায় তার জন্য যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, মাতলা-১ ও ২, দিঘীরপাড় গ্রাম পঞ্চায়েতের অধীনস্থ নব নির্মিত পাখিদ্বীপ ম্যানগ্রোভ জঙ্গল ধ্বংস করে অবৈধ ভাবে জবরদখল করে বসানো হচ্ছে ঘরবাড়ি, দোকানপাট আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে। অবলম্বে এ বিষয়ে তদন্ত করে যথাযথ আইনী ব্যবস্থা নেওয়া এবং দোষীদের গ্রেফতারের দাবি জানানো হচ্ছে। ক্যানিং এসডিও রোডের পাশ্বর্থ সুন্দরবন মেলা মাঠে নদীর বাঁধ কেটে মাঠে নোনা জল ঢুকিয়ে তৈরি হয়েছে অবৈধ মাছের ঘেরী।

নদীর গতিপথ বজায় রাখতে এবং পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার্থে অবিলম্বে বন্ধ করতে হবে এই মাছের ঘেরী সহ আরও অবৈধ মাছের ঘেরী। ম্যানগ্রোভ গাছ ধ্বংস করে অবৈধ ভাবে চলছে ক্যানিং ২ নম্বর লঞ্চঘাট থেকে রেল ব্রীজ পর্যন্ত অবৈধ সাদা বালির খাদান। এই খাদান গুলি চলার জন্য ক্ষতি হচ্ছে রাস্তাঘাট, গাছপালা, পরিবেশ। এমনকি সাদা বালির ধূলিকনায় ক্ষতি হচ্ছে মানবজাতির স্বাস্থ্য পরিষেবায়। অবিলম্বে সাদা বালির খাদান গুলি বন্ধ করে যথাযথ আইনী ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।

Related Articles

Back to top button
Close