fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বিবেকানন্দ হিন্দু মহাসঙ্ঘের উদ্যোগে রক্তদান শিবির হুগলীতে

পার্থ সামন্ত, তারকেশ্বর: করোনা পরিস্থিতির মধ্যে স্বাস্থ্য বিধি মেনে স্বেচ্ছায় রক্তদান শিবির হল। ২৮ শে জুন রবিবার হুগলী জেলার চন্ডিতলা ১ নম্বর ব্লকের জঙ্গলপাড়ার কালিতলায় এই রক্তদান শিবির হয়। রক্তদান শিবিরের আয়োজক বিবেকানন্দ হিন্দু মহাসঙ্ঘ। প্রয়াত স্বাধীনতা সংগ্রামী অমরেন্দ্রনাথ আদকের স্মৃতিতে এই রক্তদান। করোনার স্বাস্থ্য বিধি মেনেই হয় এই রক্তদান শিবির।

 

 

রক্তদান শিবিরে জীবনে প্রথম বার রক্ত দিতে আসা মশাট বাজারের এক তেলে ভাজা দোকানদার ঝুম্পা কোলে বলেন খবরে দেখেছিলাম করোনার জন্য অনেক থ্যালাসেমিয়া আক্রান্ত বাচ্চা রক্ত পাচ্ছে না। এক জন মা হয়ে তাদের কথা ভেবে থাকতে পারিনি। তারা যাতে রক্ত পায় তাদের জন্যই আমার এই রক্তদান। প্ৰথম বার রক্ত দিয়ে এলাকার ব্যবসায়ী সাগর ঘোষ বলেন, কোভিড-১৯ এ যেভাবে রক্ত সংকট দেখা দিয়েছে তাতে করে সকলেরই উচিত এই মুহুর্তে রক্তদান করা। ভবিষ্যতে নিয়মিত রক্তদান করবেন বলে জানান সাগরবাবু।

 

 

রক্তদান শিবিরে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সমাজসেবী তনুশ্রী পাল, সোমনাথ দাস, আশীষ বেলেল, অরিন্দম ঘোষ, ডাঃ অনন্ত দেব সামন্ত, কৃষ্ণরামপুর গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্যা ঝুমা সাঁতরা, লিপিকা গড়াঙ্গ, মশাট গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্যা ববিতা দাস সহ এলাকার বিশিষ্ট মানুষ জন।

 

 

 

রক্তদান শিবিরে উপস্থিত বিশিষ্ট সমাজসেবী তনুশ্রী পাল বলেন করোনা ভাইরাসের প্রকোপের কারনে রক্তদান শিবির বাতিল করছেন অনেক উদ্যোক্তাই। তিনি বলেন কয়েকটি রক্তদান শিবির হলেও রক্তদাতাদের সংখ্যা সেখানে খুবই কম। তনুশ্রী দেবী বলেন ব্লাড ব্যাংক গুলিতে রক্তের জোগান কমেছে, মুমূর্ষু রোগীদের রক্তের অভাবে চিকিৎসা হচ্ছে না। থ্যালাসেমিয়া রোগীর আত্মীয়রা রক্তের জন্য এক ব্লাড ব্যাংক থেকে অন্য ব্লাড ব্যাংকে ছুটছেন বলে জানান তনুশ্রী দেবী। তিনি বলেন স্বামী বিবেকানন্দের বাণী “বহুরূপে সম্মুখে তোমার ছাড়ি কোথা খুঁজিছ ঈশ্বর? জীবে প্রেম করে যেই জন, সেই জন সেবিছে ঈশ্বর” এই আদর্শ কে সামনে রেখেই আমাদের কর্মসূচি।

 

 

রক্তদান কর্মসূচি উপলক্ষে বিবেকানন্দ হিন্দু মহাসঙ্ঘের সাধারণ সম্পাদক অসিত কুমার ঘোষ বলেন করোনা পরিস্থিতিতে দেশ জুড়ে রক্ত সংকট দেখা দিয়েছে। ব্লাড ব্যাঙ্ক গুলোতে সব গ্রূপের রক্ত পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি বলেন স্বামী বিবেকানন্দের অনুপ্রেরণায় আমরা এই রক্তদান শিবিরের আয়োজন করেছি। তিনি বলেন মোট ৫৩ জন রক্তদাতা রক্ত দিয়েছেন। তিনি প্রত্যেক রক্তদাতাকে ধন্যবাদ জানান। অসিত বাবু বলেন সকলে মিলে ভবিষ্যতে এই রকম আরও রক্তদান শিবির ব্লকের সব কটি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় করার কথা ভাবা হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close