fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মেদিনীপুর কুইজ কেন্দ্রের “ইন হাউস” স্বেচ্ছা রক্তদান

ভাস্করব্রত পতি, তমলুক : এবার জামাইষষ্ঠীতে না গিয়ে হাসপাতালে গিয়ে স্বেচ্ছায় রক্তদান করলেন মেদিনীপুর কুইজ কেন্দ্র সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির সদস্যরা। সংগঠনের উদ্যোগে মেদিনীপুর মেডিকেল কলেজ এবং তমলুক জেলা হাসপাতালের ব্লাড ব্যাংকের মধ্যেই সরকারি বিধি মেনে একটি ছোট আকারের রক্তদান শিবির হয়। সেখানেই সংগঠনের সদস্যরা রক্তদান করেন জামাইষষ্ঠীর দিনেই।

 

 

মেদিনীপুর কুইজ কেন্দ্র সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির সম্পাদক সুজন বেরা জানান, তাঁরা যেখানে যেখানে সম্ভব, সেখানে এই ধরনের ক্যাম্প করবেন। পাশাপাশি তাঁরা এই সংকটময় পরিস্থিতিতে অন্যান্য ইচ্ছুক সংগঠনগুলিকেও ব্লাড ব্যাংক থেকে প্রয়োজনীয় লিখিত অনুমতি নিয়ে, এই ধরনের “ইন হাউস ভল্যান্টারি ব্লাড ডোনেশন ক্যাম্প” এবং ‘প্রচলিত রক্তদান শিবির’ আয়োজনের আহ্বান জানান। এদিন দুটি হাসপাতালে রক্তদান করেন কুইজ কেন্দ্রের সদস্য-সদস্যা ও শুভানুধ্যায়ী ১ জন মহিলা সহ মোট ১৪ জন।

 

 

কুইজ কেন্দ্রের কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদক সুজন বেরা ও সভাপতি রিংকু চক্রবর্তী সমস্ত রক্তদাতাদের অভিনন্দন জানিয়েছেন। উল্লেখ্য এর আগে লকডাউনের মাঝেই কুইজ কেন্দ্রের আহ্বানে সাড়া দিয়ে রোগীর প্রয়োজনে ব্লাড ব্যাংকে গিয়ে এবং বিভিন্ন শিবিরে গিয়ে ২১ জন সদস্য সদস্যা মেদিনীপুর, মেছেদা, তমলুক, হলদিয়া এবং কলকাতায় রক্তদান করেছেন।

 

 

এদিন শিবিরে রক্ত দিতে এসে কুইজ কেন্দ্রের শুভাকাঙ্ক্ষী শিক্ষা বিভাগের আধিকারিক কৌস্তুভ বন্দ্যোপাধ্যায়, সরকারি আধিকারিক ও বাচিক শিল্পী অংশুমান দাশগুপ্ত, শিক্ষক ও সঙ্গীত শিল্পী মাতুয়ার মল্লিক, নৃত্য শিক্ষক রুদ্রবীণা দাসরা কুইজ কেন্দ্রের এই উদ্যোগের প্রশংসা করেন। বিশেষ উল্লেখ্য, এদিন ব্লাড ব্যাংকে নিজের দিদিমার ডায়ালিসিসের প্রয়োজনে ব্লাড ব্যাংক থেকে রক্ত নিতে আসা খড়্গপুরের যুবক তারকেশ্বর স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এই রক্তদান শিবিরে রক্তদান করেন।

 

 

শিবিরে রক্তদাতাদের উৎসাহিত করতে উপস্থিত ছিলেন কুইজ কেন্দ্রের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার সভাপতি গৌতম বোস, সম্পাদক সুভাষ জানা, স্নেহাশীষ চৌধুরী, আল্পনা দেবনাথ বোস, ড. প্রসূন কুমার পড়িয়া, অরিন্দম দাস, সুতপা বসু, সৌনক সাহু, মণিকাঞ্চন রায়, সুদীপ কুমার খাঁড়া, ভার্গব সরকার প্রমুখ।

Related Articles

Back to top button
Close