fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

করোনার কারণে বন্ধ ব্লাড ডোনেশন ক্যাম্প, ব্লাড ব্যাঙ্কগুলোতে রক্তের অভাব

প্রদীপ্ত দত্ত, সিউড়ি: করোনা মহামারীর কারণে বন্ধ ব্লাড ডোনেশন ক্যাম্প। ফলে জেলার ব্লাড- ব্যাঙ্কগুলোয় প্রয়োজনীয় রক্ত সরবরাহে ঘাটতি দেখা দিচ্ছে। সময়মতো রোগীরা পাচ্ছেন না রক্ত। চূড়ান্ত হয়রানির স্বীকার হতে হচ্ছে জেলার মানুষকে। সেইসঙ্গে অভিযোগ উঠছে সিউড়ি , বোলপুর , রামপুরহাটের মতো ব্লাড ব্যাঙ্কের কর্মীরা রক্ত সংগ্ৰহের সময় করোনা আতঙ্কে ভুগছেন। ফলে কাজে গাফিলতি দেখা যাচ্ছে। জেলার বেশকিছু স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের অভিযোগ, একদিকে করোনার কারণে মানুষ বাইরে বেরিয়ে এসে যেমন রক্তদান করতে ভয় পাচ্ছে। অন্যদিকে যারা রক্ত দিতে ইচ্ছুক ব্লাড ক্যাম্পগুলোতে অনেকসময় রক্ত দিতে পারছেন না। জেলার তিনটি ব্লাড ব্যাঙ্কে সবসময় প্রয়োজনীয় গ্ৰুপের রক্ত ব্লাড ব্যাঙ্কে মিলছেনা। রক্ত না মেলায় বিপদের মধ্যে পড়ছেন জেলার মানুষেরা।

বীরভূম ভলান্টিয়ার ব্লাড ডোনার্স অ্যাসোসিয়েশন সদস্য প্রিয়নীল পাল জানান , ” জেলায় ব্লাড ব্যাঙ্কগুলোতে রক্তের সঙ্কট দেখা দিচ্ছে। অসুস্থ ব্যাক্তিরা হন্যে হয়ে রক্ত খুঁজে বেড়াচ্ছে। ৫ ই আগস্ট আশি বছরের বৃদ্ধ সন্তোষ বিশ্বাস সিউড়ি সদর হাসপাতালে ভর্তি হন। রক্তের প্রয়োজন ছিল কিন্তু রক্তের যোগান ছিল না। আমরা রাতের বেলায় সিউড়ি শহর থেকে দূরে পাহাড়ি গ্ৰাম থেকে ওই গ্ৰুপের রক্তদাতা সুমন নামক এক তরুণকে পায়। তাঁর সহযোগিতায় ওই বৃদ্ধের প্রাণ বাঁচে । রক্ত সঙ্কটের এই চেহারা জেলায় কমবেশি একই রকম । ”

সিউড়ি সদর হাসপাতালের ব্লাড ব্যাঙ্কের মেডিকেল টেকনোলজিস্ট অনির্বাণ বন্দ্যোপাধ্যায় এই বিষয়ে জানান। ” আমরা অনবরত ক্যাম্প করে রক্তের জোগান বাড়াচ্ছি এই কঠিন সময়েও। সামনের দিনেও আমরা বেশকিছু ব্লাড ক্যাম্প করছি। কিছু কিছু গ্ৰুপের রক্তের অমিল হলেও আমাদের এখানে পর্যাপ্ত বিভিন্ন গ্ৰুপের রক্ত আছে । তবে বোলপুর বা রামপুরহাট ব্ল্যাড ব্যাঙ্কের অবস্থা কেমন সেটা বলতে পারবো না। ”
সেইসঙ্গে জানান সিউড়ি সদর হাসপাতালের ব্লাড ব্যাঙ্কের কর্মীরা বিপদের ঝুঁকি নিয়েও কাজ করে চলেছেন সাধ্যমত।

Related Articles

Back to top button
Close