fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

উদ্ধার বিজেপি কর্মীর রক্তাক্ত মৃতদেহ, পরিকল্পনামাফিক খুনের অভিযোগ বিজেপির

এই মৃত্যু একটি দুর্ঘটনা, মন্তব্য তৃণমূলের

জেলা প্রতিনিধি, দিনহাটা: ফের খুন বিজেপি কর্মী। মৃতের নাম সম্বারু বর্মণ। এই ঘটনাকে ঘিরে উত্তপ্ত দিনহাটার বুড়িরহাটের কুকুর কচুয়া এলাকা। বেধড়ক মারধর করার পর সম্বারু বর্মণকে খুন করা হয় বলে অভিযোগ। সম্প্রতি দলীয় কার্যালয় ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে।  এরপর  বিজেপি দলের বুথ কমিটির এক সদস্য সম্বারু বর্মণ বেধড়ক মারধর করে খুনের ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ল। গোটা ঘটনায় অভিযোগ উঠল তৃণমূল কংগ্রেসের  বিরুদ্ধে।  সোমবার ভোরে  দিনহাটা  ২  ব্লকের বুড়িরহাট  ১  গ্রাম পঞ্চায়েতের কুকুর কচুয়া এলাকায় বিজেপি দলের ওই কর্মী সম্বারু বর্মণকে খুন করে রাস্তায় ফেলে দিয়ে যায়  রাজ্যের শাসক দলের  কর্মী সমর্থকরা  বলে অভিযোগ। তৃণমূলের পক্ষ থেকে অবশ্য এই ঘটনার সঙ্গে রাজনীতির কোনও সম্পর্ক নেই বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত কিছুদিন ধরেই দিনহাটা দুই ব্লকের বুড়িরহাট সহ বিভিন্ন এলাকায় কেন্দ্র ও রাজ্যের শাসক দলের মধ্যে প্রায় সংঘর্ষের ঘটনা করছে।বিধানসভা ভোটের সময় যত এগিয়ে আসছে ততই সংঘর্ষের ঘটনা বেড়ে চলছে।

বিজেপির স্থানীয় অঞ্চল নেতা প্রদীপ বর্মণ বলেন, ভোররাতে তাদের দলের সক্রিয় কর্মী বুথ কমিটির সদস্য সম্বারু বর্মণকে তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে এসে মারধর করে রাস্তায় ফেলে রেখে যায়। খবর পেয়ে দমকল কর্মীরা সেখানে ছুটে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। এদিন বিজেপি দলের কর্মীকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে খবর পেয়েই সেখানে ছুটে আসেন দলের কোচবিহার জেলা সহ-সভাপতি প্রাক্তন বিধায়ক অশোক মন্ডল, দলের জেড পি  ২৫ এর মন্ডল সভাপতি বিনয় রায় সরকার সহ অনেকেই।

আরও পড়ুন:হাসপাতাল থেকে থানা! খড়গপুরের অসহায় রোগীর পরিবার সঠিক রিপোর্টের আশায় বিভ্রান্ত

তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা নানাভাবে সন্ত্রাস চালানোর পাশাপাশি বিজেপি কর্মীদের খুন করার খেলায় মেতে উঠেছে।
বিজেপির ২৫ জেড পি মন্ডল সভাপতি বিনয় রায় সরকার বলেন, বিজেপির যত শক্তি বাড়ছে ততই তৃণমূল হিংস্র হয়ে উঠছে। এদিন দলের বুথ কমিটির সদস্য  সম্বারু বর্মণকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে গিয়ে প্ল্যান মাফিক খুন করা হয় বলেও তার অভিযোগ। তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা তাকে মারধর করে রাস্তার পাশে ফেলে রেখে যায়। পরে দমকল কর্মীরা তাকে গিয়ে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে পেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে। তার শরীরে একাধিক আঘাত রয়েছে বলেও তিনি জানান।

বিজেপি কর্মী খুনের ঘটনা প্রসঙ্গে তৃণমূলের বুড়িরহাট এক অঞ্চল যুগ্ম কনভেনার খগেশ্বর বর্মন বলেন, ওই কর্মী সর্বক্ষণই মদ্যপ অবস্থায় থাকে। মারধর এর কোনও ঘটনাই ঘটেনি। কোনও দুর্ঘটনা হতে পারে বলেও তার অভিমত। বিজেপি পথ দুর্ঘটনায় মৃত্যু কর্মীকে নিয়ে রাজনীতি করার চেষ্টা করছে।

বিজেপির কোচবিহার জেলা সহ-সভাপতি প্রাক্তন বিধায়ক অশোক মন্ডল বলেন বিধানসভা ভোটের সময় যত এগিয়ে আসছে তৃণমূল ততই সন্ত্রাসের মাত্রা বাড়িয়ে চলছে। গত বেশ কিছুদিন ধরে এলাকায় বিজেপির পার্টি অফিস ভাঙচুর থেকে শুরু করে দলের কর্মীদের উপর আক্রমণ এমনকী বাইক ভাঙচুরের ঘটনা প্রায়ই ঘটছে তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা।

আরও পড়ুন:‘ভরসা করতে না পারলে প্রয়োজনে আমি প্রথমে করোনা ভ্যাকসিন নেব’, দেশবাসীর উদ্দেশে বার্তা কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

পুলিশকে একাধিকবার অভিযোগ জানানো সত্ত্বেও পুলিশের ভূমিকা নিয়েও তারা প্রশ্ন তোলেন।অবিলম্বে দোষীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা না হলে বিজেপি দলের পক্ষ থেকে দুর্বার আন্দোলনে নামার হুমকি দেন তিনি।
সাহেবগঞ্জ পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এক ব্যক্তির মৃতদেহ হাসপাতাল থেকে উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠান হয়েছে। এখনও কোনও অভিযোগ জমা পড়েনি। ময়নাতদন্তের রিপোর্টে সব পরিষ্কার হয়ে যাবে। পাশাপাশি  ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে

 

Related Articles

Back to top button
Close