fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বকখালির সমুদ্রে স্নান করতে গিয়ে তলিয়ে যাওয়া যুবকের দেহ উদ্ধার

বিশ্বজিত হালদার, বকখালি:‌ বকখালির সমুদ্রে স্নান করতে গিয়ে তলিয়ে যাওয়া এক যুবকের দেহ উদ্ধার হল। সোমবার সকালে নামখানার পাতিবুনিয়ায় মৎস্যজীবীদের জালে দেহটি আটকে ছিল। মৃত আতিয়ার মিস্ত্রি (২৯)। বাড়ি উস্তির খেলারামপুরে। দেহটিকে শনাক্তকরণের জন্য কাকদ্বীপ মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

সূত্রের খবর, উস্থির খেলারামপুর থেকে ২১ জনের একটি দল বকখালিতে বেড়াতে আসে। ভাটাতে সমুদ্রে স্নান করার বিষয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে বারবার মাইকিং করে সর্তক করে দেওয়া হয়েছিল। তা সত্ত্বেও এদিন দুপুরে ভাটাতে স্নান করতে নামে ১৬ জন। এদের মধ্যে তিনজন ভাটার টানে সমুদ্রের গভীরে চলে যেতে থাকে। বাকিরা  সাহায্যের জন্য চিৎকার করতে শুরু করে। কাছাকাছি থাকা পুলিশ ফাঁড়ির কর্মীরা তৎপরতার সঙ্গে সমুদ্রে নেমে পড়ে। সমুদ্রের গভীরে চলে যাওয়া তিনজনের মধ্যে দুইজনকে তারা উদ্ধার করতে সক্ষম হন। কিন্তু তারা আতিয়ারের কোন খোঁজ পান নি।

আরও পড়ুন: বিজেপির সঙ্গ দেওয়ার থেকে ভাল রাজনীতি থেকে সন্ন্যাস গ্রহণ করা, মন্তব্য মায়াবতীর

সোমবার সকাল থেকে আবার সমুদ্রে ফ্রেজারগঞ্জ কোস্টাল থানার পুলিশ ও কোস্টগার্ডের কর্মীরা সমুদ্রে তল্লাশি অভিযান শুরু করে। এরমধ্যে পুলিশ খবর পায় পাতিবুনিয়ায় এক মৎস্যজীবীর জালে একটি দেহ আটকে আছে। এরপর ঘটনাস্থলে পৌঁছয় ফ্রেজারগঞ্জ কোস্টাল থানার পুলিশ। সেখান থেকে তারা দেহটি উদ্ধার করে শনাক্তকরণের জন্য কাকদ্বীপ মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যায়। দেহটিকে শনাক্তকরণের জন্য খবর পাঠানো হয় আতিয়ারের পরিবারকে। আতিয়ারের পরিবারের লোকজন হাসপাতালে এসে দেহটিকে শনাক্ত করেন।

উল্লেখ্য, প্রাকৃতিক দুর্যোগের পর বকখালি সমুদ্র দুই কিলোমিটার জুড়ে চর জেগে উঠেছে। উপকূল থেকে সমুদ্রতট চর হয়ে যাবার ফলে বারংবার জোয়ার এবং ভাটার সময়ে সমস্যায় পড়তে হয় পর্যটকদের। তবে পুলিশের জোরদার নিরাপত্তা, বারংবার মাইকিং প্রচার জোরদার থাকা সত্বেও কেন বারবার পর্যটকদের এই রকম বিপদের মুখে পড়তে হচ্ছে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে সাধারণ মানুষের মধ্যে।‌

Related Articles

Back to top button
Close