fbpx
কলকাতাপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ভূমিপুজোর প্রস্তুতিতে বাঁধা বোমা-গুলিতে উত্তপ্ত রাজারহাট-নিউটাউন

ফিরোজ আহমেদ, নিউটাউন: ভুমিপূজোর প্রস্তুতি বাধা দিতে রাজারহাট-নিউটাউনে বোমাগুলি, চালানোর অভিযোগ উঠল তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। ঘটনায় উত্তপ্ত নারায়নপুরের রামনগর এবং নিউটাউনের যোধভীম এলাকা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার রাতে রাজারহাটের নারায়ণপুরে একটি মন্দিরে ভূমিপূজন উদযাপনের জন্য সাজসজ্জা চলছিল। স্থানীয়দের অভিযোগ, তাতে বাধা দিতেই তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা গুলি, বোমা নিয়ে অতর্কিত আক্রমণ চালায়। বিধাননগরের ডেপুটি মেয়র তাপস চট্টোপাধ্যায়ের মদতেই এই হামলা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন বিজেপি নেতা তথা নিউটাউনের বিধায়ক সব‍্যসাচী দত্ত।

ওই ঘটনার পর ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। কয়েকশ লোক নেমে আসেন রাস্তায়। উত্তেজনা চরমে পৌঁছাতেই রাতেই সেখানে উপস্থিত হন তৃণমূল নেতা তথা বিধাননগরের ডেপুটি মেয়র তাপস চট্টোপাধ্যায়। তাঁকে ঘিরে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন স্থানীয়রা।বুধবার সকাল থেকেই নতুন করে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা।পরিস্থিতি সামাল দিতে নারায়নপুর থানার পুলিশ সহ বিধান নগরের উচ্চপদস্থ পুলিশ আধিকারিকরা ঘটনাস্থলে আসে।

পুলিশের পক্ষ থেকে টিআর গ্যাস ছোঁড়া হয়। এর পর এলাকাবাসীরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে।চলে দফায় দফায় বিক্ষোভ।ধবার দুপুরে যাতে নতুন করে উত্তেজনা না ছড়ায় তার জন্য নারায়ণপুরের ঐ এলাকায় মোতায়েন করা হয় বিরাট পুলিশবাহিনী।

স্থানীয় এক যুবক বলেন, “পুলিশ এবং তৃণমূলের মদতে এই হামলা চলেছে। ওরা যখন গুলি ছুড়তে ছুড়তে আসছিল তখন অনেক মহিলা ভয়ে ছুটতে থাকেন। তাঁদেরও আঘাত লেগেছে।” তাঁর অভিযোগ, ভয় দেখিয়ে রামপুজো বন্ধ করতে এসেছিল তৃণমূলের বাহিনী।এই ঘটনা নিয়ে অবশ্য তৃণমূলের যোগ বা তাঁর মদত সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছেন তাপসবাবু। তাঁর কথায়, “উত্তেজনার খবর পেয়েই আমি সেখানে যাই। সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলি। তাঁরাও আমাকে তাঁদের ক্ষোভের কথা জানান। কী ঘটনা ঘটেছে পুলিশ তদন্ত করে দেখেছে।”

যদিও পাল্টা সব‍্যসাচী দত্ত বলেন,”তাপস চ্যাটার্জি কিছু সমাজ বিরোধী দের নিয়ে সমাজটি কে কলুষিত করছে। তিনি ড্রাগের ব‍্যাবসা সহ আগ্নেয়াস্ত্রর ব‍্যাবসার সঙ্গে যুক্ত। তিনি সমাজের কলঙ্ক। তিনি রামপুজোয় হামলা চালিয়েছে। এর বিচার নিউটাউন সহ বাংলার মানুষ করবে।”

এর পাশাপাশি যোধভীমে বিজেপির রাজ‍্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বাড়ির আশপাশের গ্রামে রাম পুজো উপলক্ষে রামের ছবি দিয়ে কাটআউট সহ বিজেপির ব্যানার পোস্টারে সেজে উঠেছিল। গভীর রাতে সেই সমস্ত ব্যানার পোস্টার ছিঁড়ে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের বিরুদ্ধে। ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষোভে ফেটে পড়েন বিজেপি কর্মীরা।

Related Articles

Back to top button
Close