fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ভাইয়ের সঙ্গে বোনের প্রেমের সম্পর্ক! পরিবারের তাচ্ছিল্যের কারণে অপমানে আত্মঘাতী যুবক

মিল্টন পাল, মালদা: যুবকের সঙ্গে বোনের প্রেমের সম্পর্ক। আর দুই পরিবারের সদস্যরা তা মেনে না নেওয়ায় দুই পরিবারকে জরিমানা করে গ্রামের মাতব্বরেরা। এমনকি সেই সালিশি সভায় হাজির হয়েছিলেন স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েতের সদস্যও। সালিশি সভায় জরিমানা  এবং  বোনকে অপমান, এসব সহ্য করতে না পেরে ফাঁস দিয়ে আত্মঘাতী হল দাদা। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার রাতে রতুয়া থানার রতুয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের ফরিদপুর গ্রামে। ঘটনায় মৃতের পরিবার গ্রামের একাংশ মাতব্বর এবং অভিযুক্ত প্রতিবেশী যুবকের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। মৃতদেহ ময়না তদন্তের পাঠিয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

 

 

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত যুবকের নাম মোবারক হোসেন (৩০)।  পেশায় ভিন রাজ্যের দিনমজুর। মৃতের বোনের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে প্রতিবেশী যুবকের সঙ্গে। এই সম্পর্কের বিষয়টি  গোটা গ্রামে জানাজানি হয় । এমনকি মৃত মোবারক হোসেনের বোনও বিবাহিত। কিন্তু তারপরেও কেন পর পুরুষের সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে উঠলো এই নিয়ে দুদিন আগেই গ্রামে সালিশি সভা হয়। আর সেই সালিশি সভায় দুই পক্ষকেই জরিমানা করে গ্রামেরই কিছু মাতব্বরেরা। যেখানে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য নুরুল ইসলাম। এরপরই এই আত্মহত্যার ঘটনাটি ঘটে।

 

মৃতের ভাই মুকলেশুর রহমান বলেন, পরকীয়া সম্পর্কের জেরে তাদের বোনকে সালিশি সভায় এক হাজার টাকা জরিমানা করা হয় । পাশাপাশি অভিযুক্ত প্রতিবেশী যুবক মুরশেদ রহমানকে ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করে গ্রামের মাতব্বরেরা। গরিব পরিবার হওয়ার জন্য দাদা মোবারক হোসেনের পক্ষে এক হাজার টাকা দেওয়া মুশকিল ছিল । যদিও সেই টাকা শোধ করে দেওয়ার পরেও বোনের এই আচরণের জন্য নানান কথা শুনতে হয় মোবারক হোসেনকে। আর তারপরই শুক্রবার রাতে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন মোবারক।

 

ঘটনায় সালিশি সভায় জরিমানার কথা স্বীকার করেছেন স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য নুজরুল ইসলাম । তিনি বলেন, দুজনেই বিবাহিত । তবুও তাদের পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল। তারই জেরে দু’দিন আগেই গ্রামের কিছু মানুষেরা সালিশি সভা বাসায়। সেখানে দুইপক্ষকে জরিমানা করা হয়। আর তারপরে এই আত্মহত্যার ঘটনাটি ঘটে। পুলিশ সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, বিবাহিত বোনের পরকীয়া সম্পর্কের সামাজিক লজ্জার কথা সহ্য করতে না পেরেই অপমানে আত্মঘাতী হয়েছে মোবারক হোসেন। মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

Related Articles

Back to top button
Close