fbpx
কলকাতাহেডলাইন

সঙ্কট কাটেনি, চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন বুদ্ধবাবু, নিয়ন্ত্রণে কার্বন-ডাই-অক্সাইডের মাত্রা

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের শারীরিক অবস্থার সামান্য উন্নতি হয়েছে। তবে তাঁর সঙ্কট কাটেনি।তবে তাঁর শরীরে কার্বন-ডাই-অক্সাইডের মাত্রা কমেছে। ফলে ধীরে ধীরে ভেন্টিলেটর সাপোর্ট কমানো হচ্ছে বলে দলীয় সূত্রে খবর। মাঝরাতেই জ্ঞান ফিরেছিল তাঁর। আপাতত ওষুধ দিয়ে ঘুম পাড়িয়ে রাখে হয়েছে তাঁকে।

বুধবার দুপুরে তীব্র শ্বাসকষ্ট নিয়ে কলকাতার এক বেসরকারি হাসপাতালে ভরতি হন বুদ্ধবাবু । ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে রাখা হয় তাঁকে। প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর শ্বাসকষ্টের সঙ্গে সঙ্গে তীব্র জ্বরও ছিল। তবে স্বস্তি দিয়ে তাঁর কোভিড পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। চালু করা হয় অ্যান্টিবায়োটিক। ফুসফুস বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক কৌশিক চক্রবর্তীর নেতৃত্বে মেডিক্যাল টিমও গঠিত হয়। বৃহস্পতিবার ১০ সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়।।

হাসপাতাল সূত্রে বলা হয়েছে, এখন বুদ্ধদেববাবুর শরীরে কার্বন-ডাই অক্সাইডের পরিমাণ কমেছে একই সঙ্গে অক্সিজেন স্যাচুরেশন আগের থেকে বেড়েছে। এখন অক্সিজেন স্যাচুরেশন ৯২-৯৫ এর মধ্যে ঘোরাফেরা করছে। ২৪ ঘণ্টাই পর্যবেক্ষণে রাখা হবে তাঁকে। প্রয়োজন হলে পরে ভেন্টিলেশন সাপোর্ট থেকে বের করে আনা হবে। বুধবার বুদ্ধদেববাবুকে যখন উডল্যান্ডস হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তখন তাঁর শরীরে অক্সিজেন স্যাচুরেশন ছিল মাত্র ৮৮। অর্থাত্‍ স্বাভাবিকের তুলনায় কম। তাই প্রথমে তাঁকে বাইপ্যাপ সাপোর্ট দেওয়া হয়। কিন্তু তা অপর্যাপ্ত হচ্ছিল, তাই মেকানিকাল ভেন্টিলেশন সাপোর্ট দিতে হয়।

আরও পড়ুন: ক্ষমতাশীল নারীর তালিকায় নির্মলা

ডাক্তাররা বলেছেন, এখন অক্সিজেন স্যাচুরেশন লেভেল অনেকটাই স্থিতিশীল। পালস রেটও স্বাভাবিক। অন্য কোনও সমস্যা আর দেখা যায়নি। হার্টের অবস্থাও ভাল বুদ্ধবাবুর। গতকাল দুপুরে আচমকা হাসপাতালে ভর্তি করতে হয় রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যকে। চিকিত্‍সকরা তাঁর সিটি স্ক্যান করে বিকেলে জানিয়ে দেন, তাঁর করোনা হয়নি। তবে বুকে পুরনো নিউমোনিয়ার প্যাচ রয়েছে। তাঁর ব্রেনের সিটি স্ক্যানও করা হয়। তাতে পুরনো ল্যাকুনার ইনফ্র্যাক্টস রয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানান, বুদ্ধদেববাবুকে অ্যান্টিবায়োটিক ও স্টেরয়েড দেওয়া হয়েছে।

এদিকে তাঁর অসুস্থতার খবরে উদ্বেগ প্রকাশ করে মুখ্যমন্ত্রী দ্রুত তাঁর সুস্থতা কামনা করেন। পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমকে নির্দেশ দেন হাসপাতালে গিয়ে খবর নিতে। পরে খোদ মুখ্যমন্ত্রীই হাসপাতালে পৌঁছে গিয়েছিলেন। কথা বলেন বুদ্ধবাবুর মেয়ের সঙ্গে। জানান, “উনি দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠুক, এই কামনাই করি।” উদ্বেগ প্রকাশ করেন কংগ্রেস সংসদীয় দলের নেতা অধীর চৌধুরি। তিনি বলেন, “শুনলাম প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধবাবু অসুস্থ। বিষণ্ণ হলাম, দ্রুত ওনার আরোগ্য কামনা করি।”

Related Articles

Back to top button
Close