fbpx
আন্তর্জাতিকগুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

করাচিতে মন্দির বানাব!

পাকজঙ্গিকে পালটা অযোধ্যার সন্তদের

রক্তিম দাশ, কলকাতা: ‘অযোধ্যায় মসজিদ বানাতে এলে অযোধ্যার সাধু-সন্তরা করাচিতে গিয়ে রামমন্দির বানিয়ে আসবেন’। আন্তর্জাতিক পাক জঙ্গি মাসুদ আজহারের রামমন্দিরকে মসজিদে পরিণত করার হুমকির পালটা মঙ্গলবার এই হুঁশিয়ারি দিলেন অযোধ্যার রামমন্দিরের প্রধান পুরোহিত আচার্য সত্যেন্দ্র দাস।

মাসুদের হুমকি সামনে আসতেই মঙ্গলবার তীব্র উত্তেজনা ছড়িয়েছে অযোধ্যার সাধু-সন্তদের মধ্যে। তাঁরা মনে করছেন, রামমন্দির নির্মাণকাজ শুরু হওয়ার মুখে ভারতের নির্মীয়মাণ রামমন্দিরের পক্ষে যে দেশজুড়ে আবেগ তৈরি হয়েছে, এধরনের হুমকি তাকে আহত তৈরি হয়েছে, এধরনের হুমকি তাকে আহত করার চক্রান্ত। ফলে নড়ে-চড়ে বসেছেন হিন্দুত্ববাদীরা।
এদিন যুগশঙ্খ আচার্য সত্যেন্দ্র দাস বলেন, ‘সুপ্রিমকোর্ট আদেশ দিয়েছে, ভারতের হিন্দু-মুসলমানরা মেনে নিয়েছেন। রামমন্দির তৈরি হওয়া শুরু হচ্ছে। আর এসময় অলীক কল্পনায় ভাসছে পাক জঙ্গি মাসুদ আজহার। ওকে বলব, এসব অলীক কল্পনা ছাড়ো। ওখানে কোনওদিনই মসজিদ ছিল না’।

আরও পড়ুন:রাজধানীতে গুলিবিদ্ধ সাংবাদিকে মৃত্যু, ঘটনার গ্রেফতার মোট ৯

ক্ষুব্ধ রামমন্দিরের প্রধান পুরোহিত বলেন, ‘অযোধ্যার রামমন্দির নিয়ে কথা বলার পাকিস্তান কে? ওরা যদি মনে করে, এসব বলে নতুন উত্তেজনা ছড়িয়ে রামমন্দির নির্মাণ বন্ধ করার ষড়যন্ত্র করবে, তাহলে ভুল।

আমি অযোধ্যার সাধুসন্তদের পক্ষ থেকে মাসুদ আজহারকে হুঁশিয়ারি দিচ্ছি, আমাদের আবেগ নিয়ে বাড়াবাড়ি করো না। পাকিস্তানকে আমরা মুখের ওপর জবাব দিতে জানি।

আচার্য সত্যেন্দ্র আরও বলেন, ‘অযোধ্যায় যে মসজিদ ছিল না, তা আদালতে প্রমাণ হয়েছে। এখানে চিরকাল রামলালা বিরাজমান রয়েছেন। তাঁকে সরানোর চেষ্টা করলে ভয়ঙ্কর ঘটনা ঘটবে। তার জন্য যেন প্রস্তুত থাকে মাসুদ আজহারের মতো জঙ্গিরা’।
মাসুদের হুমকি নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন, বিশ্ব হিন্দু পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক সুরেন্দ্র জৈন’।

আরও পড়ুন:বিশ্বে মারণ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দেড় কোটির গণ্ডি পার করল

তিনি বলেন, ‘কার হিম্মত আছে অযোধ্যায় এসে রামমন্দির নিমার্ণের পরে মসজিদ বানানোর? এসব পাগলের প্রলাপ। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে মন্দির নিমার্ণ শুরু হতে চলেছে। এখন কথা আমরা বিশ্ব হিন্দু পরিষদের পক্ষ থেকে গুরুত্ব দিতে নারাজ। অতীতে ভারতের অনেক মন্দির ভেঙে মদজিদ হয়েছে জেহাদিদের হাত ধরে। সেই যুগ আজ আর নেই। ইতিহাসের সেই কলঙ্কিত অধ্যায়ের পুনরাবৃত্তি আর হতে দেব না। জেহাদিরা চাইলেও তা পারবে না’।

Related Articles

Back to top button
Close