fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ডাম্পিং গ্রাউন্ডের অভাবে বাজারে জমিয়ে রাখা আবর্জনার পচা দুর্গন্ধে অতিষ্ঠ ক্রেতা বিক্রেতারা

সুকুমার রঞ্জন সরকার, কুমারগ্রাম: ডাম্পিং গ্রাউন্ড না থাকায় আলিপুরদুয়ার জেলার কুমারগ্রাম ব্লকের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কামাক্ষ্যাগুড়ি বাজারের ভেতরেই জমিয়ে রাখা হচ্ছে আবর্জনা। সেগুলো পচে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে, সমস্যায় পড়েছেন ক্রেতা বিক্রেতারা। বাজারের এই অসাস্থ্যকর পরিবেশ থেকে বিভিন্ন অসুখ বিসুখ ছড়ানোর আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী।   করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে সমস্ত হাট বাজারগুলোকে যখন জীবাণু মুক্ত করার কাজে জোর দেওয়া হচ্ছে তখন কামাক্ষ্যাগুড়ি বাজারের এই বেহাল দশায় ক্ষুব্ধ বাসিন্দারা।

তাদের দাবি অবিলম্বে বাজারের আবর্জনা পরিষ্কার করে বাজারের স্বাস্থ্যকর পরিবেশ বজায় রাখুক প্রশাসন। কামাক্ষ্যাগুড়ি বাজারটি আলিপুরদুয়ার জেলা পরিষদের  নিয়ন্ত্রনাধীন। আলিপুরদুয়ার জেলা পরিষদের সভাধিপতি শীলা দাস সরকার জানান, এই বাজারটি তাদের নিয়ন্ত্রনাধীন থাকলেও বর্তমানে এটির দেখভাল করার দায়িত্ব কামাক্ষ্যাগুড়ি  ব্যবসায়ী সমিতির উপর ন্যস্ত করা হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দা তথা বিজেপির আলিপুরদুয়ার জেলা কমিটির সহ সভাপতি বিপ্লব সরকার বলেন, বাজারটির যথাযথ দেখভাল জেলা পরিষদ বা ব্যবসায়ী সমিতি কেউ করছেনা। লকডাউনের পর থেকেই বাজারের ভেতরেই আবর্জনা জমিয়ে রাখা হচ্ছে, নিয়মিত সাফাই এর কোন উদ্যোগ নেই।

কামাক্ষ্যাগুড়ি ব্যবসায়ী সমিতির সম্পাদক প্রাণকৃষ্ণ সাহা বলেন, বাজারের আবর্জনা সংগ্রহ করে বাজারের ভেতরেই এক জায়গায় জমিয়ে রাখা হয়েছে। আবর্জনা ফেলার জন্য ডাম্পিং গ্রাউন্ড না থাকায় সেগুলো অপসারন করা যাচ্ছে না।

বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় প্রশাসনের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। প্রশাসন আস্বস্ত করেছে দ্রুত এই সমস্যা সমাধানে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। স্থানীয় প্রশাসন তথা কামাক্ষ্যাগুড়ি দুই নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান নিয়তি বর্মন বলেন, গ্রাম পঞ্চায়েতের যে আবর্জনা ফেলার জায়গা রয়েছে সেখানে স্থানীয়রা আবর্জনা ফেলতে বাধা দেওয়ায় এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। সেখানকার লোকজনের সাথে আলোচনা চলছে, আশা করা যাচ্ছে খুব দ্রুত সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে। ক্রেতা বিক্রেতারা জানান মাস্কের উপর দিয়ে রুমাল চাপা দিয়ে তাদের বেচা কেনা করতে হচ্ছে। তারা চাইছেন এই অবস্থা থেকে মুক্তি।

Related Articles

Back to top button
Close