fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আন্তঃরাজ্য চোরাচালান চক্রের হদিশ আসানসোলে জামুড়িয়ায়, উদ্ধার ১৫ টি মোটরবাইক

শুভেন্দু বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল: পশ্চিম বর্ধমান জেলার আসানসোল বা শিল্পাঞ্চলে কোন মোটরবাইক বা গাড়ি চুরির পর তা পাচার হয়ে যায় পাশের রাজ্য বিহার বা ঝাড়খণ্ডে। কিন্তু এবার একবারে উল্টো! ঝাড়খণ্ড থেকে চুরি হওয়া চুরি হওয়া মোটরবাইকের বিক্রির চোরা চালানের হদিশ মিলল আসানসোলে। আন্তঃরাজ্য মোটরবাইক চুরির বড়োসড়ো চোরাই চক্রের হদিশ পেল জামুড়িয়া থানার পুলিশ। সেই চক্রের ১ জনকে গ্রেফতার করার পাশাপাশি উদ্ধার করা হয়েছে ১৫ টি চোরাই মোটরবাইক।

শুক্রবার আসানসোল দুর্গাপুর পুলিশের এসিপি (সেন্ট্রাল) তথাগত পাণ্ডে বলেন, জামুড়িয়া থানার নণ্ডি গ্রামের পিন্টু বন্দ্যোপাধ্যায়কে গ্রেফতার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে মোটর বাইকের চোরাচালানের অভিযোগ ছিল। ধৃত পিন্টু ভিন রাজ্য থেকে বাইক চুরি করে এখানে নিয়ে আসত। এরপর সে ভুয়ো নম্বর প্লেট বানিয়ে খুব কম দামে সেইগুলোকে জেলার পাশাপাশি রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করত বলে পুলিশ জানতে পারে। পিন্টুকে পুলিশ হেপাজতে নিয়ে এক এক করে ১৫ টি চোরাই বাইক উদ্ধার হয়েছে ।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আসানসোলের জামুড়িয়া থানার এএসআই সঞ্জয় হাজরা গোপন সূত্রে খবর পান যে, জামুড়িয়ায় মোটরবাইক চোরাচালানের এক পান্ডা রয়েছে। সেই খবর মতো পুলিশ আসানসোল পুরনিগমের জামুড়িয়ার ১ নং ওয়ার্ডের নণ্ডি গ্রাম থেকে দুটি চোরাই মোটর বাইক সহ পিন্টু বন্দ্যোপাধ্যায় নামে ওই যুবককে গ্রেফতার করে। ১৭ আগষ্ট আসানসোল আদালতে তাকে তোলা হলে বিচারক তার জামিন নাকচ করে চারদিনের পুলিশ রিমান্ডের নির্দেশ দেয়। এরপর পুলিশ রিমান্ডে পিন্টুকে জিজ্ঞাসাবাদ করে আরও ১৩ টি চোরাই মোটরবাইকের হদিশ পায়।

জানা গেছে ধৃতের কাছ থেকে একটি অল্টো মারুতি গাড়িরও নম্বর প্লেট পাওয়া গেছে। সেই নম্বর প্লেটটি ভুয়ো কিনা তাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ।  এসিপি আরও বলেন , শুধু মোটর বাইকের চোরাচালান চক্র নয়, পিন্টুকে জিজ্ঞাসাবাদ করে চারচাকা গাড়ি চোরাচালানের হদিশ মিলতে পারে। পুলিশ জানতে পেরেছে, এইসব মোটর বাইকগুলি অজয় নদীর অস্থায়ী সেতু পারপার করে ঝাড়খণ্ড থেকে আনা হয়েছিল

Related Articles

Back to top button
Close