fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

স্থানীয় পুলিশের সাহায্য ছাড়া গরু পাচার সম্ভব নয়: কৈলাস বিজয়বর্গীয়

পাপ্পা গুহ, উলুবেড়িয়া: স্থানীয় পুলিশের সাহায্য ছাড়া কখনোই গরু পাচার করা সম্ভব নয়, সুতরাং গরু পাচার চক্রে যে সমস্ত পুলিশ আধিকারিকরা জড়িত আছে সিবিআই তাদেরও ধরা পড়া দরকার। গরু পাচার চক্রের বিএসএফ আধিকারিক গ্রেফতার হওয়া প্রসঙ্গে এই কথা বলেন বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়। বুধবার উলুবেড়িয়ার বীরশিবপুরে একটি বেসরকারি রিসর্টে পশ্চিম মেদিনীপুর ঝাড়গ্রাম হাওড়া সদর কাঁথি ও তমলুক এই পাঁচটি সাংগঠনিক জেলার কার্যকতাদের নিয়ে বৈঠক করতে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এই কথা বলেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়।

এদিন কৈলাস বিজয়বর্গীয় জানান, তৃণমূলের দুর্নীতি চিটফান্ড সহ একাধিক সমস্যা সামনে রেখেই জোরদার নির্বাচনী প্রচার চালাবে বিজেপি। সংগঠনকে মজবুত করার লক্ষ্যে জেলা মন্ডল শক্তি কেন্দ্র বুথ সহ সর্বত্র একটি পিরামিড করে একটি শক্তিশালী সংগঠন তৈরি করা হবে। আর সেই কারণেই এই বৈঠক বলে জানান বিজেপি নেতা। তিনি অভিযোগ করেন রাজ্যে বিজেপির এই বৈঠক দেখে তৃণমূল ভয় পেয়ে খুনের রাজনীতি করছে। কৈলাস বিজয়বর্গীয় অভিযোগ করেন তৃণমূলের গুন্ডা খুন করে অবাধে ঘুরে বেড়াচ্ছে আর পুলিশ তাদের বাঁচানোর জন্য দুর্ঘটনা এবং আত্মহত্যার তথ্য খাড়া করছে। প্রশান্ত কিশোরের বিষয়টিকে নিয়ে এ দিন তৃণমূলকে খোটা দিয়েছেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়।

তিনি বলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলটাকে একটি কর্পোরেট সংস্থার কাছে বন্ধক রেখেছেন যেটা দলের অনেক নেতা ভালো ভাবে মেনে নিতে পারছেন না। যারা মানুষের সঙ্গে মিশে কাজ করেন তারা এটা কে মানতে পারছেন না। আগামী দিনে তৃণমূলকে এর ভালো মাশুল দিতে হবে বলেও দাবি করেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়। এদিন তিনি দাবি করেন বিধানসভা নির্বাচনে এই রাজ্য থেকে বিজেপি ২০০ টির বেশি আসনে জয়লাভ করে রাজ্যে ক্ষমতায় আসবে এবং বাংলাকে সোনার বাংলা বানাবে।

আরও পড়ুন: গরু পাচার কাণ্ড: ধৃত বিএসএফ কমান্ড্যান্ট সতীশ কুমারের ১৪ দিন সিবিআই হেফাজতের নির্দেশ

প্রসঙ্গত, বুধবার উলুবেড়িয়ার বিরশিবপুর হাওড়া হুগলি ও মেদিনীপুর জেলার সাংগঠনিক জেলা প্রতিনিধিদের নিয়ে বৈঠক করেন বিজেপির বিশেষ পর্যবেক্ষক সুনিল দেওধর। এদিনের এই বৈঠকে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়, সাংসদ জ্যোতির্ময় মাহাতো, কোনার হেমব্রম সহ অন্যান্যরা। সূত্রের খবর এদিনের এই বৈঠকে সুনিল দেওধর প্রতিটি জেলার সভাপতি সম্পাদক প্রাক্তন সভাপতি সহ দলের নেতৃত্বের সঙ্গে আলাদা আলাদা করে বৈঠক করেন। মূলত এদিনের এই বৈঠকে আগামী বিধানসভা নির্বাচনের পরিকল্পনা দলের দুর্বলতা কিভাবে কাটানো যায় মূল সমস্যার সমাধান এইসব নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে সূত্রের খবর। বৃহস্পতিবার বিজেপি নেতৃত্ব হুগলি শ্রীরামপুর ঘাটাল আরামবাগ ও হাওড়া গ্রামীণ জেলা বিজেপির কার্যকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন

Related Articles

Back to top button
Close