fbpx
কলকাতাহেডলাইন

হাইকোর্টের রায়ে খুশি হলেও মদন ঘড়াইয়ের মৃত্যুর সিবিআই তদন্তের দাবিতে অনড় লকেট

শরণানন্দ দাস, কলকাতা: জেলবন্দি থাকাকালীন অসুস্থ হয়ে বিজেপি কর্মী ঘড়াইয়ের মৃত্যুর ঘটনার জল গড়াল হাইকোর্ট পর্যন্ত। শুধু তাই নয় এই ঘটনায় দ্বিতীয়বার মদন ঘড়াইয়ের দেহের ময়নাতদন্তের নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। বিজেপি  এই রায়ে খুশি হলেও ঘটনার সিবিআই তদন্তের দাবিতে অনড়। দলের সাধারণ সম্পাদিকা তথা হুগলির সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় শুক্রবার বলেন, ‘ আমাদের দলের আইন সেল  পটাশপুরের কর্মী মদন ঘড়াইয়ের মৃতদেহের দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তের জন্য কলকাতা হাইকোর্টে আবেদন করেছিল। সেই আবেদনে সাড়া দিয়ে কলকাতা হাইকোর্ট দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তের নির্দেশ দেওয়ায় আমরা খুশি। কিন্ত আমরা এই খুনের সিবিআই তদন্তের দাবি জানাচ্ছি।’

কেন তিনি এই দাবি করছেন? লকেটের ব্যাখ্যা, ‘একজন নিরপরাধ মানুষকে শুধুমাত্র বিজেপি করার অপরাধে যে পুলিশ বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে লকআপে পিটিয়ে মেরে ফেলতে পারে তাদের উপর কীভাবে আস্থা রাখবো? পরিবারকে অন্ধকারে রেখে মদনকে কলকাতার হাসপাতালে আনা হয়। মঙ্গলবার পুলিশ খবর দেয় মদন ঘড়াই মারা গিয়েছেন। তড়িঘড়ি ময়না তদন্ত করে শবদেহ দাহ করার চেষ্টা করেছিল, আমাদের বাধায় পারে নি। এই পুলিশ তৃণমূলের দলদাস। এই পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা করা উচিত, এফআইআর করা উচিত।’

এদিন মদন ঘড়াইয়ের মরদেহ রাজ্য বিজেপি দফতরে আনা হয়। সেখানে শ্রদ্ধা ঞ্জাপনের পরে  লকেট চট্টোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে মরদেহ নিয়ে শোকমিছিল বেরোয়। সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউয়ে পুলিশ মিছিল আটকায়। তখন হুগলির সাংসদের নেতৃত্বে রাস্তার উপরেই বিজেপি কর্মীরা বসে পড়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। পুলিশ তখন লকেটকে অনুরোধ করেন অবস্থান তুলে নেওয়ার জন্য। তা নাহলে হাইকোর্টের নির্দেশ মোতাবেক মরদেহ দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তের জন্য আর জি কর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া যাবে না। শেষপর্যন্ত বিজেপি অবরোধ তুলে নেয়। তবে আপাতত এই পর্বের ইতি হলো কী না সময় বলবে।

Related Articles

Back to top button
Close