fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

সিবিআই-এনআইএ-ইডির জিজ্ঞাসাবাদ কক্ষে সিসিটিভি বাধ্যতামূলক: সুপ্রিম কোর্টের

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: সিসিটিভির সামনেই জেরা করতে হবে সিবিআই, এনআইএ, ইডি-র মতো তদন্তকারী সংস্থাকে। জিজ্ঞাসাবাদের গোটা প্রক্রিয়া ক্যামেরাবন্দী রাখতে হবে। সমস্ত জেল-হাজত, জেরা রুমে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানোর নির্দেশ দিল শীর্ষ আদালত। এই সিসিটিভিতে থাকতে হবে নাইট ভিশনের প্রযুক্তি। পাশাপাশি, অডিও রেকর্ডিংসেও সুবিধাও থাকতে হবে।জেল শুধু নয়, কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা (সিবিআই), জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (এনআইএ), এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি), নারকোটিক্স কন্ট্রোল বুরো (এনসিবি)-সহ দেশের সমস্ত তদন্তকারী সংস্থার ক্ষেত্রেও এই রায় প্রযোজ্য হবে বলে জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

দেশের সমস্ত থানার হাজত ও জেরা করার জন্য নির্দিষ্ট ঘরে থাকতে হবে সিসিটিভি যাতে নাইট ভিশন ও অডিও রেকর্ডিংসের প্রযুক্তি থাকবে। জেলের শৌচাগারের বাইরে থাকবে সিসিটিভি। জেলের ঢোকার প্রবেশ পথ ও বেরনোর পথে, করিডরে, লবিতে, রিসেপশনেও থাকবে সিসি ক্যামেরা। এমনকি ইনস্পেকটর ও সাব-ইনস্পেকটরের ঘর ও শৌচাগারের বাইরেও বসাতে হবে সিসিটিভি। সিবিআই, এনবিআই, এনসিবি, ইডি সহ সমস্ত তদন্তকারী সংস্থাগুলির অফিস, জেরা করার ঘরে থাকবে সিসিটিভি, একই রকম নাইট ভিশন ও অডিও রেকর্ডিংসের সুবিধা যুক্ত। শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, এতদিন তদন্তকারী সংস্থাগুলির অফিসে সিসিটিভি থাকত, কিন্তু এবার থেকে যে ঘরে জিজ্ঞাসবাদ করা হয় সেখানেও উচ্চ প্রযুক্তির সিসি ক্যামেরা বসাতে হবে। সিসি ক্যামেরায় ১৮ মাসের ঘটনার রেকর্ডিং থাকবে। দেখাশোনার দায়িত্বে থাকবে একটি প্যানেল।

আরও পড়ুন: উত্তরপ্রদেশে আধুনিক মানের ফিল্ম সিটি গড়ার উদ্যোগ যোগী সরকারের

হেফাজতে অত্যাচার বন্ধের লক্ষ্যে এই ঐতিহাসিক নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। দেশের সমস্ত থানায় এই ব্যবস্থা করতে হবে রাজ্যগুলিকে। শীর্ষ আদালত বলেছে, এমনভাবে ক্যামেরা (CCTV) বসাতে হবে যাতে ‘ইন্টারোগেশন রুম’, লক আপ, থানা বা তদন্তকারী সংস্থার দপ্তরে ঢোকা-বেরনোর সমস্ত দিক স্পষ্ট বোঝা যায়। পাঞ্জাবের একটি ঘটনায় হেফাজতে অত্যাচার সংক্রান্ত মামলায় এই নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। আদালত বলেছে, সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় থাকবে প্রবেশ-প্রস্থান পথ, লক আপ, করিডোর, লবি, রিসেপশন এলাকা, ইন্সপেক্টর, সাব-ইন্সপেক্টরদের ঘর এবং শৌচাগারের বাইরেটাও। রেকর্ডিংয়ের সুবিধাযুক্ত সিসিটিভি লাগাতে হবে নার্কোটিক্স ব্যুরো, ডিরেক্টরেট অফ রেভেনিউ ইন্টেলিজেন্স এবং সিরিয়াস ফ্রড ইনভেস্টিগেশন—এর দপ্তরেও।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close