অফবিটদেশহেডলাইন

১১১ বছরের অশক্ত শরীরে দিল্লির নির্বাচনে ভোট দিলেন কালীতারা মণ্ডল

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ১১১ বছরের শরীরটাকে নিয়ে ভোটের লাইনে দাঁড়িয়ে এক বৃদ্ধা। নাম । এবার দিল্লি বিধানসভা ভোটের সবচেয়ে বয়স্ক ভোটার তিনি। আজ পর্যন্ত কোনও নির্বাচনে ভোট মিস হয়েছে এমনটা হয়নি। সব ভোটেই তিনি তাঁর গণতান্ত্রিক নিদর্শনের স্বাক্ষর বজায় রেখেছেন। কালীতারাদেবী শুধু ভোট দিয়েই ক্ষান্ত থাকেননি, তিনি সকলকে ভোট দেওয়ার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন।
দিল্লির সিআর পার্কের বাসিন্দা আজও নিয়ম মেনে ছেলে, নাতি ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সঙ্গে দিল্লির গ্রেটার কৈলাস বিধানসভায় ভোট দিতে আসেন।

ভোট দেওয়ার পর সাংবাদিকদের সামনে তিনি তাঁর কোচকানো আঙুলের ছাপ দেওয়া হাতটি তুলেও ধরেন। কালীতারা মণ্ডলের কথায়, কবে তিনি তাঁর ভোট দেওয়া শুরু করেন আজ আর তাঁর মনে নেই। তবে আজ পর্যন্ত তিনি ভোট দিতে ভোলেননি। তিনি এই দেশের নাগরিক। ভোট দেওয়া তাঁর গণতান্ত্রিক অধিকার। সকলকে ভোট দেওয়ার জন্য আহ্বানও জানান তিনি।

কালীতারাদেবী সাংবাদিকদের জানান, ১৯০৮ সালে বাংলাদেশে বরিশালে তাঁর জন্ম। দেশভাগের অনেক কথাই এখনও তাঁর স্মৃতিতে স্পষ্ট। উদ্বাস্তু হয়ে তাঁর এখানে চলে আসা। তারপর দিল্লিতেই বাস করা শুরু।

আরও পড়ুন: বিয়ের প্রস্তাবে রাজি না হওয়াতেই কি খুন মহিলা পুলিশ কর্মী! আত্মঘাতী ব্যাচমেট

কালীতারাদেবী স্মৃতিকে সরণী ধরে এগিয়ে গিয়ে বলেন, তিনি যখন থেকে ভোট দেওয়া শুরু করেন তখন ব্যালট বক্সে ভোট নেওয়া হত।  সেই সময় বুথে থাকা নির্বাচনী এজেন্ট আমার আঙুলে কালি লাগিয়ে দিতেন। তারপর হাতে ব্যালট পেপার দিয়ে দিতেন। তবে আমি ইভিএম মেশিনেও ভোট দিয়েছি।

কালীতারা মণ্ডল যাতে সুষ্ঠুভাবে নির্বাচনে অংশ নিতে পারেন তাঁর জন্য নির্বাচন কমিশনের তরফ থেকে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া হয়। তাকে নিয়ে যাওয়ার দায়িত্ব পড়ে সহকারি রিটার্নিং অফিসার হরিশ কুমারের ওপরে।

এই দায়িত্ব পেয়ে হরিশ কুমার জানিয়েছেন, কালীতারা মণ্ডল মানুষের কাছে একটি অনুপ্রেরণা নাম। এই বয়সেও তিনি যেভাবে ভোট দিতে গেছেন তা দেখে সকলের শেখা উচিত।

প্রসঙ্গত, দিল্লিতে শতবর্ষী ভোটার রয়েছেন ১৩২ জন। এদের মধ্যে ৬৮ জন পুরুষ ও ৬৪ মহিলা ভোটার রয়েছেন।

Related Articles

Back to top button
Close