fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গশিক্ষা-কর্মজীবনহেডলাইন

জেইই ও এনইইটি পরীক্ষায় শিক্ষার্থীদের বলপূর্বক উপস্থিত করানো কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত দুর্ভাগ্যজনক, সরব তৃণমূল

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: জেইই ও এনইইটি পরীক্ষা নিয়ে ফের কেন্দ্র রাজ্য সংঘাত তুঙ্গে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পর এবার তৃণমূল দলের তরফেও জেইই ও এনইইটি পরীক্ষা নিয়ে সুর চড়ানো হল। বুধবার সোশ্যাল মিডিয়ায় দলের দুই হেভিওয়েট নেতা ও রাজ্যের মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় এবং ফিরহাদ হাকিম পরীক্ষার বিরোধিতা করে সরব হন।
এদিন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘মহামারী পরিস্থিতি এখনও পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণাধীন নয়। এমন পরিস্থিতিতে জেইই ও এনইইটি পরীক্ষার কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত রাজ্যের ছাত্রছাত্রীদের জন্য অশনিসঙ্কেত। এটা কেবলমাত্র রাজ্যের পড়ুয়াদের সঙ্গে অন্যায় নয়, যথেষ্ঠ চ্যালেঞ্জিং। এতদিন আমরা যা বলে এসেছি সম্ভবত তা কোনও বধির কানে পৌঁছেছে।’

অন্যদিকে পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলেন, ‘ মহামারীর মধ্যে আমাদের শিক্ষার্থীদের জেইই এবং এনইইটি পরীক্ষায় উপস্থিত হওয়ার জন্য কেন্দ্রের চাপ দেওয়া এক পক্ষে বিপর্যয়মূলক সিদ্ধান্ত। অবিলম্বে পুনর্বিবেচনা করা আবশ্যক! কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্ত লজ্জাজনক!

উল্লেখ্য, আগামী সপ্তাহে কেন্দ্রের নির্ধারিত নির্ঘণ্ট অনুসারে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে জয়েন্ট ও নিট এর প্রবেশিকা পরীক্ষা। গত কয়েকদিন আগেই জয়েন্ট ও নিট এর পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। করোনা পরিস্থিতির জেরে জয়েন্ট ও নিট পরীক্ষা স্থগিত রাখার আবেদনের শুনানিতে করোনা কারণে জীবন থেমে থাকে না বলে জানিয়ে পরীক্ষা নেওয়ার ব্যাপারে মত দেয় সুপ্রিম কোর্ট। সেই মতোই চলছে পরীক্ষার প্রস্তুতি।

আরও পড়ুন:প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার প্রকল্পের ঘর পাইয়ে দেওয়ার নাম করে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ 

এদিকে, জানা গেছে , পরীক্ষা স্থগিত রাখার আবেদন জানিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চিঠি লিখেছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে। যদিও মুখ্যমন্ত্রীর এই চিঠির ফলে পরীক্ষা নিয়ে সিদ্ধান্ত বদলাবে কিনা তা নিয়ে কোনও কিছু জানা যায়নি। তবে পরীক্ষা নেওয়ার জোর প্রস্তুতি আরম্ভ হয়ে গেছে। কংগ্রেস সহ বিরোধী দলগুলি করোনা আবহে পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্তকে নিন্দা করেছে।

এদিকে স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি মেনে পরীক্ষার জন্য এনটিএ তরফে পরীক্ষার্থীদের জন্য এক গুচ্ছ নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। সেই নির্দেশিকা মেনেই পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত হতে হবে।

১) পরীক্ষার্থীদের মাস্ক এবং গ্লাভস পরা বাধ্যতামূলক। পরীক্ষার কেন্দ্রে ব্যক্তিগত বোতলে জল এবং স্যানিটাইজার নিতে হবে ।

২) প্রবেশ পথে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে। পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশের সময় থার্মাল গান দিয়ে শরীরের তাপমাত্রা মাপা হবে। পরীক্ষাকেন্দ্রে প্রবেশের সময় বাড়ি থেকে পরে আসা মাস্কটি খুলে পরীক্ষাকেন্দ্রে দেওয়া মাস্ক পরতে হবে ।

৩) ৯৯.৪ ডিগ্রি ফারেনহাইটের বেশি তাপমাত্রার পরীক্ষার্থীদের আলাদা ঘরে বসানো হবে। অ্যাডমিট কার্ড এবং এসএমএসের মাধ্যমে প্রবেশের সময় জানানো হবে।

৪) করোনা উপসর্গ থাকলে পরীক্ষার্থীদের নিজে থেকে জানাতে বলা হয়েছে । পরীক্ষাকেন্দ্রে প্রবেশের সময় হাত সাবান দিয়ে ধুতে হবে ।

Related Articles

Back to top button
Close