fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বিজেপি নেত্রী ভারতী ঘোষকে গরু চোর বলে কটাক্ষ করলেন ছত্রধর মাহাতো

সুদর্শন বেরা, ঝাড়গ্রাম: বৃহস্পতিবার ঝাড়গ্রাম জেলার জামবনি ব্লক এর চিচড়া এলাকায় তৃণমূল কংগ্রেসের রাজনৈতিক কর্মী সম্মেলন আয়োজন করা হয়। ওই কর্মী সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সম্পাদক ছত্রধর মাহাতো, তৃণমূল যুব কংগ্রেসের রাজ্য কমিটির সহ-সভাপতি দেবনাথ হাঁসদা, তৃণমূল কংগ্রেসের জামবনি ব্লক সভাপতি নিশিথ মাহাতো সহ তৃণমূল কংগ্রেসের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ ।ওই কর্মী সম্মেলনে তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সম্পাদক ছত্রধর মাহাতো তার ভাষণে বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়কে পরিযায়ী বলে কটাক্ষ করেন।

সেই সঙ্গে বলেন, ঝরে পড়া মুকুল ঝরে পড়া পরিযায়ী নেতাকে নিয়ে বাংলা দখল করার স্বপ্ন দেখছে। কিন্তু বাংলার মানুষ ওই পরিযায়ী নেতা এবং ঝরে পড়া আম ও মুকুলকে উপযুক্ত শিক্ষা দেবে। তিনি তাঁর ভাষণে বলেন, যিনি একসময় অত্যাচারী শাসক ছিলেন, উর্দি পরে রাস্তায় দাঁড়িয়ে জোর করে গাড়ি থেকে টাকা আদায় করতেন, তিনি গরু চোর বলে পরিচিত, আদিবাসী মানুষদের মিথ্যা কেস দিয়ে বাড়ি থেকে টেনে নিয়ে মারধর করতো, মাওবাদী বলে তাদের ধরে নিয়ে যেতেন, সেই ভারতী ঘোষ এখন বিজেপি নেত্রী। তিনি এখন বড় বড় কথা বলছেন। বাংলায় গণতন্ত্র নেই বলে তিনি চিৎকার করছেন। বাংলায় গণতন্ত্র আছে বলে তিনি সভা সমাবেশে বক্তব্য রাখতে পারছেন।

 

গণতন্ত্র আছে বলে তিনি জঙ্গলমহলে আসতে পারছেন। যদি গণতন্ত্র না থাকতো তাহলে এই গরুচোর ভারতী ঘোষকে জঙ্গলমহলে মানুষ পা রাখতে দিতো না। তৃণমূল কংগ্রেস খুনের রাজনীতি ও হিংসায় বিশ্বাস করে না। তৃণমূল কংগ্রেস শান্তি ও উন্নয়নে বিশ্বাস করেন ।তিনি বলেন তৃণমূল কংগ্রেস ২০২১ সালের নির্বাচনে ক্ষমতায় আসে তাহলে আগামী দিনেও জঙ্গলমহলের মানুষ বিনা পয়সায় চাল পাবেন। এখন যেমন মানুষ বিনা পয়সায় চাল পাচ্ছে আগামী দিনেও পাবেন। তিনি বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ২০১১ সালে রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তিনি সেই প্রতিশ্রুতি পালন করেছেন । রাজ্য সরকার যে প্রকল্প গুলি চালু করেছে ,সারা ভারতবর্ষে আর কোথাও সেই প্রকল্প চালু নেই। তিনি তার ভাষণে আরো বলেন যে গরুচোর ভারতী ঘোষ থেকে ঝরে পড়া মুকুল এবং পরিযায়ী নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয় থেকে আপনারা দূরে থাকবেন, সাবধানে থাকবেন। কারণ জঙ্গলমহলের মানুষ শান্ত।

 

সেই জঙ্গলমহলের মানুষের উপর কিভাবে সেই সময় অত্যাচারী শাসক হিসেবে ভারতী ঘোষ অত্যাচার চালিয়েছিল তা জঙ্গলমহলের মানুষ আজও ভুলে যায় নি। সেই অত্যাচারী শাসক আজকে বিজেপিতে নাম লিখিয়ে বিজেপি নেত্রী হয়েছেন ।যতই তিনি ভালো সাজার চেষ্টা করুন না কেন, উনাকে জঙ্গলমহলের মানুষ ভালো ভাবে চেনেন। তাই ওই অত্যাচারী গরুচোর ভারতী ঘোষ কে তিনি প্রত্যাখ্যান করার আহ্বান জানান । তিনি বলেন প্রতিটি জায়গায় ছত্রধর মাহাতো কে নিয়ে বড় বড় কথা বলা হচ্ছে। কোথাও বলা হচ্ছে ঢুকতে দেওয়া হবে না, কোথাও বলা হচ্ছে জল খেতে দেবেন না, কোথাও বলা হচ্ছে দরজা বন্ধ করে দেবেন। তিনি বলেন ছত্রধর মাহাতো জনগণের জন্য আন্দোলন করেছিল। তার সেই আন্দোলন সফল হয়েছে। সেই সময়ের ৩৪ বছরের বাম সরকারের অনুন্নয়ন এর বিরুদ্ধে আন্দোলন করেছিলাম, তারই পর নড়েচড়ে বসেছে প্রশাসন। তাই রাজ্যে তৃতীয়বার দলকে ক্ষমতায় নিয়ে আসার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নের হাতকে শক্তিশালী করে তোলার জন্য তিনি সর্বস্তরের মানুষের কাছে আহ্বান জানান।ওই কর্মী সম্মেলন জনসভার আকার ধারণ করে। সবচেয়ে মহিলাদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো ।তাই জনসমুদ্রে দাঁড়িয়ে বিজেপিকে তীব্র ভাষায় আক্রমণ করলেন জঙ্গলমহলের একসময় মুকুটহীন সম্রাট’ বর্তমান তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য সম্পাদক ছত্রধর মাহাতো।

Related Articles

Back to top button
Close